শারীরিক শিক্ষা, খেলাধুলা ও স্বাস্থ্যবিজ্ঞান বাদ দেওয়া হবে কেন?
২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭ ইং
পত্রিকান্তরে জানতে পারলাম, ২০১৮ সালের এসএসসি পরীক্ষা থেকে চারটি বিষয় বাদ দেওয়া হচ্ছে এবং এই চারটি বিষয় সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান মূল্যায়ন করবে। প্রসঙ্গত, কৃষিশিক্ষা ও গার্হস্থ্য বিজ্ঞান পৃথক বিষয়। ছাত্রছাত্রীরা আলাদা আলাদাভাবে শিক্ষা গ্রহণ করে। অথচ শারীরিক শিক্ষা, খেলাধুলা ও স্বাস্থ্যবিজ্ঞান একটি সমন্বিত বিষয় এবং একসঙ্গে শিক্ষা গ্রহণ করা যায়। তাহলে  শারীরিক শিক্ষা, খেলাধুলা ও স্বাস্থ্যবিজ্ঞান বিষয়কে কেন বাদ দেওয়া হবে?                                                                                                                                        

শারীরিক শিক্ষা ছাড়া শিক্ষার পূর্ণতা আসে না। যে সব গুণ থাকলে দেশের প্রতিটি নাগরিক সুস্থ, সবল, দেশপ্রেমিক ও দায়িত্বজ্ঞান সম্পন্ন হয়ে গড়ে ওঠে এবং নিজের আবেগকে নিয়ন্ত্রণে সক্ষম হয়—শারীরিক শিক্ষা সেইসব গুণ অর্জনে প্রত্যক্ষ অবদান রাখে। নেতৃত্ব ও ব্যক্তিত্ব গঠনেও শারীরিক শিক্ষার অবদান অসামান্য। জানা মতে, পৃথিবীর প্রায় সকল দেশেই শারীরিক শিক্ষা, খেলাধুলা ও স্বাস্থ্যবিজ্ঞান  ভিন্ন ভিন্ন নামে প্রাথমিক স্তর থেকে উচ্চশিক্ষা পর্যন্ত বাধ্যতামূলক। শারীরিক শিক্ষা, খেলাধুলা ও স্বাস্থ্যবিজ্ঞানে শিক্ষার্থীর নৈতিক ও মানবিক মূল্যবোধ থেকে শুরু করে ইতিহাস ও ঐতিহ্য চেতনা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতিবোধ, দেশপ্রেমবোধ, প্রকৃতি-চেতনা এবং ধর্ম-বর্ণ-গোত্র ও নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সবার প্রতি সমমর্যাদাবোধ জাগায়।

এ অবস্থায়, সার্বিক কল্যাণের স্বার্থে এসএসসি (পাবলিক পরীক্ষায়) পর্যন্ত চালু রেখে পরবর্তী পর্যায়ে একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত বাধ্যতামূলক করে এইচএসসি পরীক্ষায় অন্তর্ভুক্ত করতে সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

সুধীর বরণ মাঝি                                             হাইমচর, চাঁদপুর

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২০ ইং
ফজর৫:১০
যোহর১২:১৩
আসর৪:২১
মাগরিব৬:০১
এশা৭:১৪
সূর্যোদয় - ৬:২৬সূর্যাস্ত - ০৫:৫৬
পড়ুন