জোড়া গোল অ্যাগুয়েরো ও ফ্যালকাওর
রোমাঞ্চকর জয়ে এগিয়ে থাকল সিটি
স্পোর্টস ডেস্ক২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭ ইং
রোমাঞ্চকর জয়ে এগিয়ে থাকল সিটি
দুই দফায় পিছিয়ে পড়েও সের্জিও অ্যাগুয়েরোর জোড়া গোলে রোমাঞ্চকর খেলায় দাপুটে জয় পেল ম্যানচেস্টার সিটি। ইত্তেহাদ স্টেডিয়ামে গত মঙ্গলবার রাতে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে শেষ ১৬’র প্রথম লেগে ইংলিশ ক্লাবটি ৫-৩ গোলে হারায় মোনাকোকে।

সিটি নিজ মাঠে দুই গোলের অগ্রগামিতায় ফিরতি লেগের আগে সুবিধাজনক অবস্থায় থাকল। কোচ পেপ গার্দিওলার দলটিকে এই ব্যবধান গড়ে দিতে আরো অবদান রাখেন রাহিম স্টার্লিং, স্টোনস ও লেরয় সেইন। মোনাকোর হয়েও জোড়া গোল করেন র্যাডামেল ফ্যালকাও।

ক্ষণে ক্ষণে বদলে যাওয়া দৃশ্যপটের এ লড়াইয়ে জয়ের পর সিটি কোচ গার্দিওলা বলেন, ‘আমি এই ফলে খুবই আনন্দিত। আমরা এখনো টিকে আছি। এ ধরনের ব্যাপারগুলো এই ক্লাবটিকে আরেক ধাপ অর্জনে সাহায্য করে। আমরা ছোট ছোট জায়গা গড়ে আক্রমণ চালাই। সে জন্যই তো তারা আমাকে এখানে চেয়েছিল। সবাইকে অভিনন্দিত করতে হবে।’

পরবর্তী করণীয় সম্পর্কে তিনি বলেন,‘আমরা যতটা সম্ভব বেশি গোল করার জন্য মোনাকোয় উড়াল দেব। মোনাকোয় গোল করতে না পারলে আমরা বাদ পড়ে যাব।’ মোনাকোর কোচ লিওনার্দো জার্ডিম বলেন, ‘এটা ছিল এ বছরের চ্যাম্পিয়ন্স লিগে সবচাইতে চিত্তাকর্ষক খেলাগুলোর একটি। ফুটবলের অসাধারণ একটা খেলা। পেনাল্টিতে ৩-১ ব্যবধান গড়ার সুযোগ নষ্ট করাটা ছিল খেলাটির মুখ্য দিক। তারপরও ৯০ মিনিট খেলা বাকি আছে। কিছুই শেষ হয়ে যায়নি।’

এগিয়ে যাওয়া সিটির অন্য দুই গোলদাতা জন স্টোনস ও লেরয় সানে। মোনাকোর পক্ষে জোড়া গোল করেন রাদামেল ফালকাও, একটি গোল করেন কিলিয়ান বাপে। রাহিম স্টার্লিংয়ের গোলে ২৬তম মিনিটে এগিয়ে যায় সিটি। বাঁ-দিক থেকে সানের গোলমুখে বাড়ানো বল টোকা দিয়ে জালে পাঠান এই ইংলিশ মিডফিল্ডার। ছয় মিনিট পরেই ঝাঁপিয়ে হেড করে দলকে সমতায় ফেরান ফ্যালকাও। ৪০তম মিনিটে ফরাসি ফরোয়ার্ড কিলিয়ান বাপের জোরালো কোনাকুনি শটে এগিয়ে যায় সফরকারীরা। দুটি গোলেই অবদান রাখেন ব্রাজিলের ডিফেন্ডার ফ্যাবিনিয়ো। ফ্যালকাও ৫০তম মিনিটে ব্যবধান বাড়ানোর সুযোগ পেয়েছিলেন। কিন্তু কলম্বিয়ানটি স্পটকিকে লক্ষ্যভেদে ব্যর্থ হন। এর আট মিনিট পরেই স্টার্লিংয়ের পাস পেয়ে দলকে সমতায় ফেরান আগুয়েরো। ফ্যালকাও অবশ্য ৬১তম মিনিটে বারো গজ দূর থেকে দারুণ এক চিপ শটে গোলরক্ষকের মাথার ওপর দিয়ে বল জালে পাঠিয়ে আবারো দলকে এগিয়ে দেন। ইত্তেহাদ স্টেডিয়ামে নাটকীয়তার তখনো অনেক কিছুই ছিল বাকি। সেটাই দেখাতে ৭১তম মিনিটে ডেভিড সিলভার দারুণ কর্নারে ভলি করে আবারো সমতা ফেরান অ্যাগুয়েরো। অ্যাগুয়েরো এবারের চ্যাম্পিয়ন্স লিগে এ নিয়ে আট গোল করলেন।

গার্দিওলার দল শেষ দিকে উজ্জীবিত হয়ে পাঁচ মিনিটের ব্যবধানে আরো দুবার বল জালে পাঠিয়ে তুলে নেয় অসাধারণ এক জয়। ৭৭তম মিনিটে স্টোন্সের দলকে এগিয়ে দেওয়া গোলের পর পঞ্চম গোলটি করেন জার্মান মিডফিল্ডার সেইন। অবশ্য হারলেও প্রতিপক্ষের মাঠে তিন গোল করার সুবিধা নিয়ে ফিরছে ফরাসি দলটি। বিবিসি/বিডিনিউজ

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২০ ইং
ফজর৫:১০
যোহর১২:১৩
আসর৪:২১
মাগরিব৬:০১
এশা৭:১৪
সূর্যোদয় - ৬:২৬সূর্যাস্ত - ০৫:৫৬
পড়ুন