২০১৮ সালেই টেস্ট খেলতে চায় আয়ারল্যান্ড
স্পোর্টস ডেস্ক২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭ ইং
টেস্ট স্ট্যাটাস ও আইসিসির পূর্ণ সদস্য হওয়াটা আফগানিস্তান ও আয়ারল্যান্ডের জন্য এবার স্রেফ সময়ের ব্যাপার। সব ঠিকঠাক থাকলে ১২ দলের দ্বি-ধাপ টেস্টের পথেই হাঁটছে ক্রিকেট। বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিরা কমবেশি এই প্রস্তাবের পক্ষে রায় দিয়েছেন।

২০১৯ সাল থেকে দ্বি-স্তর টেস্ট কাঠামো চালুর পরিকল্পনা করছে আইসিসি। প্রথম স্তরে নয় দল থাকবে, আর দ্বিতীয় স্তরে তিন দল। তবে আইরিশরা আগামী বছরই টেস্ট খেলতে চায়। দেশটির ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইরিশ ক্রিকেট ইউনিয়নের প্রধান ওয়ারেন ডিউট্রম জানিয়েছেন, ২০১৮ সালে প্রথম টেস্ট খেলার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে আয়ারল্যান্ড।

ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসিকে ডিউট্রম বলেন, ‘চলতি বছর টেস্ট খেলার কোনো পরিকল্পনা আমাদের নেই— আমরা ২০১৮ সালে খেলতে চাই। সেটা না হওয়ার কোনো কারণ আমি দেখছি না। তেমন না হওয়াটাই হবে বড় বিস্ময়ের।’

আইসিসির পরিকল্পনা অনুযায়ী, ২০১৯ সাল থেকে টেস্ট র্যাংকিংয়ের শীর্ষ নয় দলকে নিয়ে আয়োজিত হবে দু বছরের টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ। এই দু বছরে এই দলগুলোর প্রত্যেকে দেশের মাটিতে চারটি ও দেশের বাইরে চারটি টেস্ট সিরিজ খেলবে। দুটি দলের মধ্যে এই সময়ের মধ্যে হোম কিংবা অ্যাওয়েতে একটিই সিরিজ অনুষ্ঠিত হবে এই সময়ে। দু বছর শেষে শীর্ষ দু দল খেলবে প্লে-অফ। প্রথম দু বছরে যে দেশের বিপক্ষে হোম সিরিজ হবে, পরের বছরে সেই একই দেশের বিপক্ষে অনুষ্ঠিত হবে অ্যাওয়ে সিরিজ।

দ্বিতীয় স্তরটা টিকিয়ে রাখতেই টেস্টে দুটো নতুন দেশ আয়ারল্যান্ড ও আফগানিস্তানের আবির্ভাব ঘটতে যাচ্ছে। তাদের সঙ্গে থাকবে টেস্ট র্যাংকিংয়ের ১০ নম্বরে থাকা জিম্বাবুয়ে। প্রথম স্তরে থাকা দলগুলোর সঙ্গে এই তিন দলের খেলার আপাতত কোনো সুযোগ রাখা হয়নি।

তবে প্রতি চার বছর পর পর তিন দলের পারফরম্যান্স মূল্যায়ন করা হবে। তখন আইসিসির বিবেচনায় পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে দ্বিতীয় স্তর থেকে কোনো দল প্রথম স্তরে ওঠার সুযোগ পেতে পারে। সেক্ষেত্রে দ্বিতীয় স্তরে তখন নতুন দল যোগ করতে হবে। সেদিক থেকে টেস্ট স্ট্যাটাস পাওয়ার সম্ভাবনা বাড়বে আইসিসির সহযোগী দেশগুলোর।

আর নতুন এই পদ্ধতিতে প্রথম স্তরে থাকা বাংলাদেশের টেস্ট খেলার সুযোগ বাড়বে। তবে সে জন্য বর্তমান টেস্ট র্যাংকিং ধরে রাখার কোনো বিকল্প নেই।

টেস্ট কাঠামো আমূল বদলে ফেলার এই সুপারিশ এখন আইসিসির বোর্ডের হাতে। এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের জন্য এখন আগামী এপ্রিলে আইসিসির পরবর্তী বোর্ড সভার জন্য অপেক্ষা করতে হবে। সেখানে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত মিললে শুরু হবে এই সুপারিশ বাস্তবায়নের কাজ। আর তখনই টেস্ট স্ট্যাটাস পেয়ে যাওয়ার কথা আফগানিস্তান ও আয়ারল্যান্ডের।

ডিউট্রম জানান, সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে নিজেদের দেশেই প্রথম টেস্ট খেলবে আয়ারল্যান্ড। তবে ‘স্বপ্নের দল’ ইংল্যান্ডে খেলার সুযোগ পেলে সেটা ভিন্ন ব্যাপার। ২০১৮ সালে অবশ্য পাকিস্তান ও ভারত যাবে ইংল্যান্ড সফরে। এই ব্যস্ত সিডিউলে নবীন আয়ারল্যান্ডের জন্য আইরিশদের সময় বের করাও মুশকিল।—বিবিসি

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২০ ইং
ফজর৫:১০
যোহর১২:১৩
আসর৪:২১
মাগরিব৬:০১
এশা৭:১৪
সূর্যোদয় - ৬:২৬সূর্যাস্ত - ০৫:৫৬
পড়ুন