অজানা শচীনের অপেক্ষায়
স্পোর্টস রিপোর্টার২২ মে, ২০১৭ ইং
অজানা শচীনের অপেক্ষায়
গত কয়েক বছর ধরে মুম্বাইতে খেলোয়াড়দের জীবনী নিয়ে চলচ্চিত্র বানানোর হিড়িক পড়েছে। ভাগ মিলখা ভাগ, ম্যারি কম, মহেন্দ্র সিং ধোনি থেকে শুরু করে দঙ্গল; ব্যবসাও করছে সবাই চুটিয়ে। এ তালিকায় এবার নাম লেখাতে আসছে ‘শচীন: আ বিলিয়ন ড্রিমস’। ২০১২ সালে কাজ শুরু করার পর অবশেষে আগামী ২৬ তারিখ আলোর মুখ দেখতে যাচ্ছে এ ‘ডকুফিকশন’। এ ছবির বিশেষ কিছু প্রদর্শনীও ইতোমধ্যে হয়ে গেছে। ছবি মুক্তির আগে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ডেকে দেখা করেছেন শচীন টেন্ডুলকারের সাথে। এ সময়ে টেন্ডুলকার নিজে বললেন, এ তার জীবনের অনেক না বলা কথা, না জানা অধ্যায় উঠে এসেছে এ ছবিতে।

যদিও একটা প্রশ্ন উঠেছে যে, টেন্ডুলকারের এ বায়োপিক নির্মাতা কী স্র্রোতে গা ভাসাতে এলেন? টেন্ডুলকার পরিষ্কার বলে দিলেন এ ছবির কাজ শুরু হয়েছে ভাগ মিলখা বা ম্যারি কমেরও অনেক আগে। যখন কাজ শুরু হয়, তখন সম্মতি দেওয়ার ক্ষেত্রে দ্বিধায় ছিলেন সর্বকালের অন্যতম সেরা এ ব্যাটসম্যান, ‘যখন ২০১২ সালে রবি (প্রযোজক) আমার সঙ্গে দেখা করে ফিল্মের প্রস্তাব দেয়, আমি বলে দিয়েছিলাম, আমার দ্বারা অভিনয় হবে না। প্রস্তাবে হ্যাঁ বলতে আমার অনেক সময় লেগেছিল। আসলে আমার ক্রিকেট জীবনে যা ঘটছে, তা সবাই জানত। আমি যদি কোনো ম্যাচে ৫৫ করি, তা হলে লোকে সেটা জেনে যেত। আমি তো ফিল্মে ৫৫ রানটাকে ১৫৫ করতে পারতাম না। রবি তখন আমাকে বলেছিল, সব কিছুই বাস্তব থেকে নেওয়া হবে।

বাইশ গজে তার পারফরম্যান্স ভক্তদের কাছে অজানা নয়। তা হলে এ ফিল্মে বাড়তি কী পাওয়া যাবে? টেন্ডুলকার জানাচ্ছেন, এ ফিল্ম দেখলে বোঝা যাবে ওই সময় তার মনের মধ্যে কী চলত, ‘সবাই দেখেছে আমি রান করছি বা ব্যর্থ হচ্ছি। কিন্তু কেউ জানে না, তখন আমার মনের মধ্যে কী চলত। সেই সব মুহূর্তের কথা আমি তুলে ধরেছি। সে সব নিয়ে কথা বলেছি। আমার পরিবার আমাকে নিয়ে কথা বলেছে। আমার মা, বোন, ভাই, অঞ্জলি সবাই আমার সম্পর্কে বলেছে। আমার ছেলে-মেয়ের সঙ্গে আমার সম্পর্ক, আমার কিছু পারিবারিক ভিডিও, যা আজ পর্যন্ত বাইরের কেউ দেখেনি, সে সব এ ফিল্মে দেখা যাবে।’

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২২ মে, ২০২০ ইং
ফজর৩:৪৮
যোহর১১:৫৫
আসর৪:৩৪
মাগরিব৬:৪০
এশা৮:০১
সূর্যোদয় - ৫:১২সূর্যাস্ত - ০৬:৩৫
পড়ুন