টানা তিন জয়ে রেলিগেশন এড়াল কলাবাগান
কয়েকজন অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান, প্রতিশ্রুতিশীল তরুণ ক্রিকেটার, স্বীকৃত অলরাউন্ডার নিয়ে দল গড়েও ওয়ালটন ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগে সুবিধা করতে পারেনি কলাবাগান ক্রীড়াচক্র। শুরুতে আট ম্যাচের সাতটিতেই হেরে রেলিগেশনের শঙ্কায় পড়ে যায় ক্লাবটি। তবে নবম রাউন্ড থেকে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ায় কলাবাগান। টানা তিন ম্যাচ জিতে রেলিগেশন এড়াল তারা।

গতকাল রেলিগেশনের তৃতীয় দল নির্ধারকের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে খেলাঘর সমাজ কল্যাণ সমিতিকে পাঁচ উইকেটে হারিয়েছে কলাবাগান। ১১ ম্যাচে এটি তাদের চতুর্থ জয়। এই জয়ে প্রিমিয়ার লিগে টিকে থাকলো আশরাফুল-তুষার ইমরানদের দল। তিনটি ম্যাচ জিতলেও রেলিগেশন লিগে খেলতে হবে খেলাঘরকে। রেলিগেশন লিগের অপর দুই দল হলো একটি করে ম্যাচ জেতা পারটেক্স স্পোর্টিং ক্লাব ও ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ক্লাব।

বিকেএসপির চার নম্বর মাঠে প্রথমে ব্যাট করে সাত উইকেটে ২০৪ রান তুলে খেলাঘর। জবাবে জসিমউদ্দিন ও আশরাফুলের জোড়া হাফ সেঞ্চুরিতে ৪৭.৫ ওভারে পাঁচ উইকেটে ২০৫ রান করে ম্যাচ জিতে নেয় কলাবাগান। জসিমউদ্দিন ম্যাচ সেরা হন।

টসে হেরে আগে ব্যাট করতে নামা খেলাঘরের শুরুটা ভালো হয়নি। ৭২ রানে পাঁচ উইকেট হারিয়ে বসেছিল ক্লাবটি। ষষ্ঠ উইকেটে রাফসান আল মাহমুদ ও আরিফুজ্জামান সাগর প্রতিরোধ গড়েন। ১১৩ রানের জুটি গড়ে দলকে লড়াইয়ের পুঁজি এনে দেন তারা। দুজনই সাদ নাসিমের শিকার হন। রাফসান ৭১ ও আরিফুজ্জামান ৪৬ রান করেন। এছাড়া সালাউদ্দিন পাপ্পু ২২, সুরাজ রনদীভ ১১, অমিত মজুমদার ১০, মাসুম খান অপরাজিত ১০ রান করেন। কলাবাগানের পক্ষে সাদ নাসিম ৩৪ রানে তিনটি, নাবিল সামাদ দুটি, আশরাফুল ও সঞ্জিত সাহা একটি করে উইকেট পান।

টার্গেটটা খুব বড় ছিল না কলাবাগানের জন্য। ৫০ রানে ওপেনার তাসামুল হক (১৭) আউট হন। দ্বিতীয় উইকেটে আশরাফুল-জসিমউদ্দিনের ১০৪ রানের জুটি কলাবাগানকে জয়ের কাছাকাছি নিয়ে যায়। দলীয় ১৫৪ রানে আউট হওয়ার আগে ১০৫ বলে ১১টি চারে ৮৯ রান করেন জসিমউদ্দিন। তুষার ইমরান (১৭), সাদ নাসিম (০) উইকেটে থিতু হতে পারেননি। দলকে জয় থেকে ১১ রানে দূরে রেখে সাজঘরে ফিরেন আশরাফুল। তিনি ৫৬ রান করেন। শেষ দিকে অধিনায়ক মুক্তার আলী অপরাজিত ১০ ও মেহরাব জুনিয়র অপরাজিত ৩ রান করে দলের জয় নিশ্চিত করেন। খেলাঘরের পক্ষে সুরাজ রনদীভ তিনটি, রাফসান ও তানভীর একটি করে উইকেট নেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

খেলাঘর: ২০৪/৭, ৫০ ওভার (রাফসান ৭১, আরিফুজ্জামান ৪৬, সালাউদ্দিন পাপ্পু ২২, সুরাজ রনদীভ ১১, অমিত মজুমদার ১০, মাসুম খান ১০*; সাদ নাসিম ৩/৩৪, নাবিল সামাদ ২/৩০)

কলাবাগান: ২০৫/৫, ৪৭.৫ ওভার (জসিমউদ্দিন ৮৯, আশরাফুল ৫৬, তাসামুল ১৭, তুষার ইমরান ১৭, মুক্তার আলী ১০*; সুরাজ রনদীভ ৩/৩১, রাফসান ১/৪০)

ফল : কলাবাগান ক্রীড়াচক্র পাঁচ উইকেটে জয়ী

ম্যাচ সেরা : জসিমউদ্দিন (কলাবাগান)

ডিপিএল পয়েন্ট টেবিল

সুপার লিগ

দল                                ম্যাচ     জয়        পরাজয়   পয়েন্ট

গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স         ১১       ৯           ২           ১৮

প্রাইম দোলেশ্বর এসসি     ১১       ৮           ৩           ১৬

আবাহনী লিমিটেড             ১১       ৮           ৩           ১৬

প্রাইম ব্যাংক সিসি             ১১       ৮           ৩           ১৬

শেখ জামাল ডিসি              ১১       ৭           ৪           ১৪

মোহামেডান এসসি            ১১       ৬           ৫           ১২

প্রিমিয়ার লিগ

লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ         ১১       ৬           ৫           ১২

ব্রাদার্স ইউনিয়ন                ১১       ৫           ৬           ১০

কলাবাগান ক্রীড়াচক্র        ১১       ৪           ৭           ৮   

রেলিগেশন লিগ

খেলাঘর এসকেএস           ১১       ৩           ৮           ৬

ভিক্টোরিয়া এসসি              ১১       ১           ১০         ২

পারটেক্স এসসি                ১১       ১           ১০         ২

উপরের ছয়টি দল সুপার লিগে উন্নীত হয়েছে। মাঝের তিনটি দল প্রিমিয়ার লিগে টিকে থাকছে। শেষ তিনটি দল রেলিগেশন লিগে খেলবে।

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২২ মে, ২০২০ ইং
ফজর৩:৪৮
যোহর১১:৫৫
আসর৪:৩৪
মাগরিব৬:৪০
এশা৮:০১
সূর্যোদয় - ৫:১২সূর্যাস্ত - ০৬:৩৫
পড়ুন