রাজনীতি | The Daily Ittefaq

সাংবিধানিক ধারা অব্যাহত রাখতে আওয়ামী লীগ সংলাপে সম্মত হয়েছে : ওবায়দুল কাদের

সাংবিধানিক ধারা অব্যাহত রাখতে আওয়ামী লীগ সংলাপে সম্মত হয়েছে : ওবায়দুল কাদের
অনলাইন ডেস্ক৩০ অক্টোবর, ২০১৮ ইং ১৩:১৮ মিঃ
সাংবিধানিক ধারা অব্যাহত রাখতে আওয়ামী লীগ সংলাপে সম্মত হয়েছে : ওবায়দুল কাদের
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি
 
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, গণতান্ত্রিক ও সাংবিধানিক ধারাকে অব্যাহত রাখতেই আওয়ামী লীগ জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট জোটের সঙ্গে সংলাপে সম্মত হয়েছে। 
 
তিনি বলেন, ‘আমরা গণতান্ত্রিক ও সাংবিধানিক ধারাকে অব্যাহত রাখতে এই সংলাপে সম্মত হয়েছি। এ কারণেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ড. কামাল হোসেনকে ১ নভেম্বর সন্ধ্যা ৭টায় গণভবনে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। এই আলোচনা হবে খোলা মনে।’ 
 
মঙ্গলবার সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। সমসাময়িক রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। 
 
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ড. কামাল হোসেন ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে আওয়ামী লীগ সভাপতির কাছে চিঠি দিয়েছেন। এ নিয়ে মন্ত্রিসভায় যে কথা হয়েছে, সেখানে প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন- যেহেতু তারা দেখা করতে চেয়েছেন, শেখ হাসিনার দরজা তাদের জন্য খোলা, তারা দেখা করতে পারবেন। 
 
তিনি বলেন, ড. কামাল হোসেনের প্রতি আমাদের আস্থা আছে। প্রধানমন্ত্রী তাকে চাচা বলে সম্বোধন করেন। যদিও তিনি ঐক্যফ্রন্টের বা ওই জোটের শীর্ষ নেতা কি-না আমরা নিশ্চিত নই। এই জোটের নেতৃত্ব কী লন্ডন থেকে দেয়া হচ্ছে নাকি বাংলাদেশ থেকে দেয়া হচ্ছে তা সংলাপে বসার পর বোঝা যাবে। 
 
কোনো চাপের কারণে এই সংলাপে বসা হচ্ছে না- জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, আমরা কোনো চাপে এই সংলাপে বসছি না। সংলাপে বসার অর্থ কারো প্রতি নতি শিকার করা নয়। এমনতো না যে, দেশে মহাআন্দোলন হচ্ছে, সেই আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে আমরা বসছি। শেখ হাসিনা বলেছেন, ঐক্যফ্রন্ট আমার সঙ্গে দেখা করতে চান, আমি কেনো সময় দেবো না। 
 
সংলাপের কোন কোন ইস্যুতে আলোচনা হবে- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ঐক্যফ্রন্ট চিঠির সঙ্গে উনাদের সাত-দফা দাবি এবং ১১টি লক্ষ্যের কপি সংযুক্ত করে দিয়েছেন। এসব নিয়েই আলোচনা হবে। তবে সাত-দফার মধ্যে কয়েকটি দফা আছে যা সংবিধান সম্পর্কিত। দুয়েকটি আছে আইন-আদালতের সঙ্গে সম্পর্কিত। আর দুয়েকটি আছে নির্বাচন কমিশন সম্পর্কিত। আর তারা যে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের কথা বলছেন, সেটাতো তারা এখনো পাচ্ছেন, সভা-সমাবেশ করছেন। আর তফসিল ঘোষণা হয়ে গেলে এসব তখন নির্বাচন কমিশন দেখবে। আর বিদেশি পর্যবেক্ষকের যে কথা তারা বলছেন, সেটাও আমাদের গ্রহণ করার বিষয় নয়- এটাও নির্বাচন কমিশনের ব্যাপার। 
 
জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির জোট রয়েছে, এ ক্ষেত্রে বিএনপির সঙ্গে সংলাপে বসার ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি আরো বলেন, ‘আমরা বিএনপির সঙ্গে সংলাপ করছি না। আমরা সংলাপ করছি ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে। সংলাপে বিএনপির লোকজন থাকবে কি-না আমরা এ ব্যাপারে কোনো শর্ত দেইনি।’
 
সংলাপের মাধ্যমে সংকটের সমাধান হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে ওবায়দুল কাদের বলেন, সংলাপের উত্তাপে সংকটের বরফ গলবেই। তারা যেটিকে সংকট বলছে, আমরা সেটিকে সংকট মনে করি না। আলাপ-আলোচনার মধ্যদিয়ে অনেক সংকটই সমাধান হয়ে যায়। বাসস
 
ইত্তেফাক/ইউবি
 

 

এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৯ নভেম্বর, ২০২০ ইং
ফজর৫:০২
যোহর১১:৪৭
আসর৩:৩৫
মাগরিব৫:১৪
এশা৬:৩১
সূর্যোদয় - ৬:২২সূর্যাস্ত - ০৫:০৯