রাজনীতি | The Daily Ittefaq

সংলাপে গেলেও নৈশভোজে অংশ নেবেন না ঐক্যফ্রন্ট নেতারা

সংলাপে গেলেও নৈশভোজে অংশ নেবেন না ঐক্যফ্রন্ট নেতারা
ইত্তেফাক রিপোর্ট০১ নভেম্বর, ২০১৮ ইং ০৬:৪২ মিঃ
সংলাপে গেলেও নৈশভোজে অংশ নেবেন না ঐক্যফ্রন্ট নেতারা
ফাইল ছবি
আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় গণভবনে অনুষ্ঠেয় সংলাপে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের নৈশভোজে আপ্যায়িত করার লক্ষ্যে ফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেনের বিশেষ পছন্দের খাবার চিজ কেকসহ ১৭ ধরনের আইটেমের ব্যবস্থা রাখার প্রস্তুতি ছিল।  এই চিজ কেক আনার কথা পাঁচতারকা হোটেল র‌্যাডিসন থেকে।  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত সহকারী-১ (এপিএস-১) এবং প্রটোকলের চৌকস কর্মকর্তারা এসব খাবার প্রস্তুতের তদারকি করবেন বলেও সিদ্ধান্ত ছিল।  এছাড়া পর্যটন করপোরেশন খাবারের ব্যবস্থাপনায় থাকার কথা বলে গণভবন সূত্রে জানা গেছে।
 
তবে সংলাপে গেলেও নৈশভোজে অংশ না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতারা।  জানা গেছে, বিনএপি প্রধান বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে রেখে সরকারের প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া নৈশভোজে অংশ নেওয়া অমানবিক হবে বিবেচনায় প্রথমে এই সিদ্ধান্ত নেন বিএনপি নেতারা।  পরে ফ্রন্টের অন্য নেতারাও বিএনপির এই সিদ্ধান্তের প্রতি একাত্মতা প্রকাশ করেছেন।
 
ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য ও নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না গতকাল বুধবার সাংবাদিকদের বলেছেন, দেশের একটি সংকটকালে আলোচনার জন্য আমরা গণভবনে যাচ্ছি, নৈশভোজ গ্রহণের জন্য নয়।  রাতের খাবারের যেন আয়োজন না করে সেজন্য আওয়ামী লীগকে জানানো হয়েছে বলেও দাবি করেন মান্না।
 
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন বলেছেন, আমরা চাই সংলাপের পুরো সময়টায় জাতির স্বার্থে সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে আলোচনা হোক।  নৈশভোজে অংশ নিলে সেই আলোচনায় ব্যাঘাত ঘটবে।  এই কারণে  নৈশভোজে অংশ না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।  অন্য কোনো কারণে নয়।
 
জানা গেছে, গতকাল রাতে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট সিদ্ধান্ত নেয় গণভবনে রাতের খাবারে অংশ না নেওয়ার।  এরপর গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মোহসীন মন্টু আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে ফোন করে এই সিদ্ধান্তের বিষয়টি জানান।  পরে আবার বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু ফোন করেন মন্টুকে, তখনও মন্টু ফ্রন্টের সিদ্ধান্তের কথা জানান।
 
এদিকে গণভবন সূত্রে জানা গেছে, ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের সৌজন্যে রাতের খাবারের মেন্যুতে পিয়ার সর্দারের মোরগ পোলাও, চিতল মাছের কোপ্তা, রুই মাছের দো-পেঁয়াজা, চিকেন ইরানি কাবাব, বাটার নান, মাটন রেজালা, বিফ শিক কাবাব, মাল্টা, আনারস, জলপাই ও তরমুজের ফ্রেশ জুস, চিংড়ি ছাড়া টক-মিষ্টি স্বাদের কর্ন স্যুপ, চিংড়ি ছাড়া মিক্সড নুডলস, মিক্সড সবজি, সাদা ভাত, টক ও মিষ্টি উভয় ধরনের দই, মিক্সড সালাদ, কোক ক্যান এবং চা ও কফি রাখার প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছিল।
 
 
ইত্তেফাক/কেআই 
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
১ জুন, ২০২০ ইং
ফজর৩:৪৪
যোহর১১:৫৬
আসর৪:৩৬
মাগরিব৬:৪৪
এশা৮:০৭
সূর্যোদয় - ৫:১০সূর্যাস্ত - ০৬:৩৯