প্রকৃতি
ঘাসফুলের ক্যাম্পাস
শাহজাহান নবীন৩০ এপ্রিল, ২০১৫ ইং
ঘাসফুলের ক্যাম্পাস
সবুজ ঘাসের বিস্তীর্ণ মাঠ। দূর থেকে দেখলে মনে হবে চকচকে ঘাসের চাদরের ওপর শুভ্র তুষার কণা। কিন্তু কাছে গেলে মিলবে ঘাসের ডগায় বাতাসে দোল খাওয়া ‘ঘাসফুল’। পথচারী, শিক্ষার্থী, সাহিত্যপ্রেমী, প্রেমিক যুগল, আড্ডাবাজদের আকর্ষণ করতে সমর্থ হয়েছে এই ঘাসফুল। ষড়ঋতুর দেশে শুভ্র তুষারের দেখা মেলা ভার। তাই সেই সাধ মেটানোর উত্স যদি ঘাসফুল হয় তাতে দোষের কী?

বসন্তের শেষার্ধে ও গ্রীষ্মের আগমনী লগ্নে প্রকৃতি সেজেছে নতুন রূপে। সেই সাজগোজ থেকে বাদ যায়নি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়। ক্যাম্পাসের সবুজ চত্বরগুলো এখন সাদা ঘাসফুলের চাদরে আবৃত। সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত মাঠগুলোতে ঘাসফুলের অপরূপ সৌন্দর্য অবলোকন করতে আসছে ফেসবুকপ্রিয় শিক্ষার্থীরা। সবুজ ঘাসের ডগায় সাদা সাদা ফুল আর নীল আকাশের দৃষ্টিনন্দন সৌন্দর্য হাতছাড়া করতে কে চাই! 

বিকাল হলেই মাঠগুলোতে চলে প্রাণোচ্ছল আড্ডা। সবুজ ঘাস আর সাদা ফুলের দোল-দুলুনিতে মেতে ওঠে শিক্ষার্থীদের মন। বিকাল থেকে শুরু হয়ে মধ্যরাত পর্যন্ত এই মাঠগুলো শিক্ষার্থীদের আড্ডায় ভরে থাকে। বিশেষ করে সন্ধ্যার পর ল্যাম্পপোস্টের আলোতে সাদা সাদা ঘাসফুল অনেক বেশি সুন্দর দেখায়। কাশফুলের মাঝে দাঁড়ালে সাদা রঙের ঢেউ দেখা যায় না। কারণ তা অধিকাংশ ক্ষেত্রে মানুষের উচ্চতার কাছাকাছি থাকে। কিন্তু ঘাসফুলের ঢেউ দেখা যায়।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৩০ এপ্রিল, ২০১৯ ইং
ফজর৪:০৪
যোহর১১:৫৬
আসর৪:৩২
মাগরিব৬:২৯
এশা৭:৪৭
সূর্যোদয় - ৫:২৫সূর্যাস্ত - ০৬:২৪
পড়ুন