বলিউড
বড় তারকাদের জয়
২৫ ডিসেম্বর, ২০১৪ ইং
বড় তারকাদের জয়
সময়ের আবর্তে হারিয়ে গেল আরও একটি বছর। ২০১৪ অতিক্রম করে আমরা ২০১৫-তে প্রবেশ করছি। সাফল্য, ব্যর্থতা, অর্জন, লাভ লোকসান, আনন্দ বেদনা—সব মিলিয়ে কেমন কাটল বছরটা—শেষ প্রান্তে এসে সবাই হিসাব মেলাতে ব্যস্ত। এ বছরটা কেমন কাটল বলিউডের, তার বিচার বিশ্লেষণ খুব সহজে, কম সময়ে করা সম্ভব নয়। তারপরেও সংক্ষিপ্ত পরিসরে এ বছরের বলিউডের চালচিত্র

তুলে ধরেছেন

রেজাউল করিম খোকন

বছর শুরু হয়েছিল মাধুরী দীক্ষিত অভিনীত বহুল প্রতীক্ষিত ‘ঢের ইশকিয়া’ ছবির মাধ্যমে। নাহ, মাধুরী ম্যাজিকে আবিষ্ট হয়নি দর্শক এ বছর। ফ্লপের কাতারে ঠাঁই পেয়েছে ছবিটি। এ বছর মাধুরীর আরেকটি ছবি ‘গুলাব গ্যাং’ও মুক্তি পেয়েছে। ওটারও একই পরিণতি হয়েছে। ২০১৪ সালের মুক্তিপ্রাপ্ত হিন্দি সিনেমার মধ্যে ব্লকবাস্টার হিট ছবি যেমন রয়েছে, তেমনি চরমভাবে ব্যর্থ ছবিও রয়েছে। অ্যাকশন, রোমান্টিক, কমেডির গতানুগতিক ধারার পাশাপাশি ব্যতিক্রমধর্মী বিষয়বস্তুর চমত্কার উপস্থাপনা দর্শকদের হূদয় ছুঁয়েছে। এ প্রসঙ্গে ‘হাইওয়ে’, ‘মেরি কম’, ‘হায়দার’, ‘কুইন’, ‘মারদানি’, ‘এক ভিলেন’, ‘পিকে’ প্রভৃতি ছবির কথা বলা যায়। এ ছবিগুলোর নির্মাণ, গল্প, উপস্থাপনে, চরিত্র চিত্রণে অনেক চমত্কারিত্ব ছিল। যা দর্শক-সমালোচকদের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা অর্জন করেছে। এ ছবিগুলোর ব্যবসায়িক সাফল্যও চোখে পড়ার মতো। ২০১৪ সালের ব্যবসা সফল শীর্ষ ১০ বলিউডি সিনেমার তালিকায় রয়েছে ‘কিক’, ‘হ্যাপি নিউ ইয়ার’, ‘ব্যাং ব্যাং’, ‘সিংহাম রিটার্নস’, ‘হলিডে’, ‘জয় হো’, ‘টু স্টেটস’, ‘এক ভিলেন’, ‘হাম্পটি শর্মা কি দুলহানিয়া’, ‘গুন্ডে’। এর বাইরে হিট ছবি হিসেবে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে ‘ইয়ারিয়ান’, ‘কুইন’, ‘রাগিনী এমএমএস’, ‘ম্যায় তেরা হিরো’, ‘হিরো পান্তি’, ‘মারদানি’, ‘মেরি কম’, ‘হায়দার’ ছবিগুলো। নামীদামি জনপ্রিয় তারকা, বড় বাজেট, বিশাল আয়োজন, প্রখ্যাত নির্মাতা, ব্যাপক প্রচারণার পরেও এ বছর বেশ কিছু হিন্দি সিনেমা বক্স অফিসে চরমভাবে ধরাশায়ী হয়েছে। এ প্রসঙ্গে রেখা অভিনীত ‘সুপার নানী’, সোনাম কাপুর অভিনীত ‘বেওকুফিয়ান’ ও ‘খুবসুরত’, অক্ষয় কুমার অভিনীত ‘এন্টারটেইনমেন্ট’ ও ‘সাওয়াখিনস’, কঙ্গনা রানাওত অভিনীত ‘রিভলভার রানি’ ও ‘উংগলি’, অক্ষয় দেবগণ অভিনীত ‘অ্যাকশন জ্যাকসন’, পরিনীতি চোপড়া অভিনীত ‘দাওয়াত এ ইশক’ ও ‘কিল দিল’, বিদ্যা বালান অভিনীত ‘ববি জাসুস’ ও ‘শাদি কে সাইড এফেক্টস’ প্রভৃতি ছবির কথা বলা যায়। বলিউডের সিনেমায় সাহসী গল্পের উপস্থাপনা এ বছরও বেশ ভালোভাবে লক্ষ করা গেছে।

‘রাগিনী এমএমএস’, ‘হেট স্টোরি টু’ ছবিগুলোতে নরনারীর সম্পর্কের ভিন্ন রসায়ন অত্যন্ত সাহসীভাবে তুলে ধরা হয়েছে। যা দর্শকদের কৌতূহলী করেছে। সানি লিওন, সুরভীন চাওলার মতো অভিনেত্রীদের দুঃসাহসী পারফর্মেন্স ছবিগুলোর বক্স অফিস সাফল্য নিশ্চিত করেছে। পুরুষকেন্দ্রিক বলিউডে নারীচরিত্রপ্রধান ছবি তৈরির ধারাটি এ বছরেও অব্যাহত ছিল। ‘ঢের ইশকিয়া’, ‘গুলাব গ্যাং’, ‘কুইন’, ‘মারদানি’, ‘মেরি কম’, ‘ববি জাসুস’, ‘রিভলভার রানি’, ‘খুবসুরত’ ছবিগুলোতে নায়িকারাই দাপটের সঙ্গে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত অভিনয় করেছেন, যেখানে তাদের পাশে প্রেমিক কিংবা স্বামীর চরিত্রে যাদের দেখা গেছে তাদেরকে তুলনামূলকভাবে অনেক দুর্বল মনে হয়েছে। নায়িকাপ্রধান ছবিগুলোর বক্স অফিস সাফল্য প্রমাণ করেছে, দর্শক পর্দায় নায়কদের শৌর্য, বীরত্ব, পুরুষত্ব দেখার পাশাপাশি নারীত্বের যথার্থ সম্মানজনক উপস্থাপনাও দেখতে চায়।

এ বছর বলিউডের নায়িকাদের ইঁদুর দৌড়ে কেউ কাউকে তেমন টপকে যেতে পারেনি। দীপিকা অভিনীত দুটি ছবি মুক্তি পেয়েছে। এরমধ্যে ‘হ্যাপি নিউ ইয়া’ সুপার ডুপার হিট হলেও তার ‘ফাইন্ডিং ফানি’ ছবিটি মোটেও চলেনি। প্রিয়াঙ্কার দুই ছবি ‘মেরি কম’ ও ‘গুন্ডে’ দর্শকপ্রিয়তা যেমন পেয়েছে, তেমনি ‘মেরি কম’ ছবির নাম ভূমিকায় তার পরিশ্রমসাধ্য অসাধারণ অভিনয় সবার প্রশংসা অর্জন করেছে। ‘ব্যাং ব্যাং’ ছবিতে ক্যাটরিনার গ্ল্যামারাস আকর্ষণীয় উপস্থিতি দর্শকদের মুগ্ধ করলেও নতুন কোনো চমক নিয়ে আবির্ভূত হননি তিনি। কারিনা কাপুর বিয়ের পর অভিনয় কমিয়ে দিয়েছেন, তবে এ বছর ‘সিংহাম রিটার্নস’ ছবিতে অজয় দেবগণের পাশে তাকে খারাপ লাগেনি। আলিয়া ভাট ‘হাইওয়ে’ ছবিতে দুর্দান্ত অভিনয়ের চমক দেখিয়েছেন। ‘টুস্টেটস’ এবং ‘হাম্পটি শর্মা কি দুলহানিয়া’ ছবি দুটির বক্সঅফিস সাফল্য তার ক্যারিয়ারের ভিত্তি আরও শক্ত করেছে। ‘কুইন’ ছবিতে অপূর্ব অভিনয়ের মাধ্যমে সবার মন জয় করেছেন কঙ্গনা রানাওত। শ্রদ্ধা কাপুর এ বছর অভিনেত্রী হিসেবে আরও অনেকটা এগোতে সক্ষম হয়েছেন ‘এক ভিলেন’ ও ‘হায়দার’ ছবির মাধ্যমে। গত কয়েক বছরের সাফল্যের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে ব্যর্থ হয়েছেন পরিণীতি চোপড়া। এ বছর তার অভিনীত কোনো ছবিই উল্লেখযোগ্য ব্যবসা করতে পারেনি। প্রায় দু বছর পর আনুশকা শর্মা আবারও দর্শকদের সামনে উপস্থিত হয়েছেন নতুন লুকে। সম্প্রতি তার অভিনীত ‘পিকে’ ছবিটি মুক্তি পেয়েছে। জ্যাকলিন ফার্নান্দেজ ‘কিক’-এর মতো ব্লকবাস্টার মুভির একক নায়িকা হওয়ার সুবাদে এ বছর বড় ধরনের চমক দেখিয়েছেন। সালমান খানের বিপরীতে নায়িকা হওয়ার সুযোগ বেশ ভালোভাবে কাজ লাগাতে পেরেছেন শ্রীলঙ্কান সুন্দরী। সোনাক্ষি সিনহা এ বছর সাফল্যের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে পারেননি। তার অভিনীত একমাত্রা ‘হলিডে’ ছবিটি হিট হয়েছে।

বছর শেষে ‘পিকে’ ছবির মাধ্যমে দর্শকদের সামনে এসেছেন আমির খান। খান সাহেবদের সবাই এ বছর রুপালি পর্দায় উপস্থিত হয়েছেন। শাহরুখ খান ‘হ্যাপি নিউ ইয়ার’ ছবির সাফল্য দিয়ে সালমান খানকে টেক্কা দিতে পারেননি। সালমান এ ক্ষেত্রে ‘কিক’ ছবির বিরাট সাফল্যের জোরে অনেকটা এগিয়ে গেছেন। তার আরেক ছবি ‘জয় হো’ হানড্রেড মিলিয়ন ক্লাবে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। সাইফ আলি খানের তিনটি ছবি মুক্তি পেলেও কোনোটিই সফলতা পায়নি। ঋত্বিক রোশন এ বছর তার একমাত্র ছবি ‘ব্যাং ব্যাং’ দিয়ে বাজিমাত করেছেন। অক্ষয় কুমার ‘হলিডে’ ছবিতে সাফল্য পেলেও বাকি দুই ছবিতে চরমভাবে ব্যর্থ হয়েছেন। শহিদ কাপুর ‘হায়দার’ ছবিতে তার দক্ষতার প্রকাশ ঘটিয়েছেন চমত্কারভাবে। অজয় দেবগণ ‘সিংহাম রিটার্ন’-এ বিরাট সাফল্য পেলেও ‘অ্যাকশন জ্যাকসন’-এ ব্যর্থ হয়েছেন চরমভাবে। রণবীর সিং ‘গুন্ডে’ ছবিতে সফল হলেও ‘কিল দিল’ ছবিতে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন। বরুণ ধাওয়ান, সিদ্ধার্থ মালহোত্রা, অর্জুন কাপুর এ বছর অভিনীত প্রতিটি ছবিতেই দর্শকদের মুগ্ধ করেছেন। রণবীর কাপুর গত কয়েক বছর ধরে সুপারহিট ছবির মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টি করলেও এ বছর তার অভিনীত কোনো ছবি মুক্তি পায়নি। ২০১৪ সালে হিন্দি সিনেমার গানে ভিন্ন ডাইমেশন লক্ষ করা গেছে। এ বছরের সুপারহিট ১১ গানের তালিকা এখানে তুলে ধরা হলো।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৫ নভেম্বর, ২০২০ ইং
ফজর৫:১৭
যোহর১১:৫৯
আসর৩:৪৩
মাগরিব৫:২২
এশা৬:৪০
সূর্যোদয় - ৬:৩৮সূর্যাস্ত - ০৫:১৭
পড়ুন