গড গিফটেড অ্যাকট্রেস
তাহমিনা সুলতানা০৩ মার্চ, ২০১৬ ইং
গড গিফটেড অ্যাকট্রেস
তাকে সবাই চেনে ‘স্ক্রিম কুইন’ হিসেবে। তার অভিনীত সিনেমাগুলোর মধ্যে বেশিরভাগই হরর ধাঁচের। যা দেখতে বসে দর্শক শিউরে ওঠেন ভয়ে। সেই স্ক্রিম কুইন মেরি এলিজাবেথ উইনস্টেন্ড আবারও আসছেন দর্শকদের সামনে আরেকটি গা-ছম-ছম করা গল্পের নতুন সিনেমা ‘টেন ক্লোভারফিল্ড লেন’-এ। প্রথমে এ সিনেমার কাজ শুরু হয়েছিল ‘দ্য সেলার’ নামে, পরবর্তী সময়ে এর নাম বদলে রাখা হয় ‘টেন ক্লোভারফিল্ড লেন’। হলিউডি সায়েন্স ফিকশন থ্রিলার সিনেমাটি ২০০৮ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘ক্লোভারফিল্ড’ ছবির সিক্যুয়াল না হলেও হরর ধাঁচের। কার অ্যাকসিডেন্টের কবল থেকে রক্ষা পাওয়া এক নারী মিশেলের জীবনে একের পর এক ঘটতে থাকা অতিপ্রাকৃত নানা ঘটনা তুলে ধরা হয়েছে ‘টেন ক্লোভারফিল্ড লেন’-এ। এখানে ভয়াবহ কিছু ঘটনার মুখোমুখি হওয়া সেই নারী মিশেলের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন মেরি এলিজাবেথ উইনস্টেড। ৩১ বছর বয়সী হলিউডি এই অভিনেত্রী গত কিছুদিন ধরে সঙ্গীতশিল্প হিসেবে গান গাওয়া শুরু করেছেন। গায়িকা হিসেবেও কম যান না। যার প্রমাণ এরমধ্যে দিতে শুরু করেছেন। পাঁচ ভাইবোনের মধ্যে সবার ছোট উইনস্টেডের জন্ম আমেরিকার নর্থ ক্যারোলিনার রকি মাউন্টেনে। তার দাদা ছিলেন বিখ্যাত অভিনেত্রী আভা গার্ডনারের কাজিন। যখন তার বয়স মাত্র পাঁচ, তখন তাদের পরিবার উটাহর সল্ট লেক সিটির স্যান্ডিতে এসে বসবাস শুরু করেছিল। স্কুলজীবনে পড়াশোনার পাশাপাশি একজন তুখোড় নৃত্যশিল্পী ও গায়িকা হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলতে সচেষ্ট ছিলেন তিনি। ব্যালে নাচের ক্লাসে নিয়মিত অংশ নিতেন। একসময় নিজেকে একজন ব্যালেরিনা হিসেবে ভাবতে শুরু করেছিলেন কিশোরী মেরি এলিজাবেথ উইনস্টেড। এ লক্ষ্যে একটি ব্যালে গ্রুপে যোগ দিয়েছিলেনও। কিন্তু অল্প দিন পর অত্যধিক লম্বা হওয়ার কারণে তাকে ব্যালে গ্রুপ থেকে বাদ দেওয়া হয়। অল্প বয়সেই বেশ দীর্ঘাঙ্গী হয়ে উঠেছিলেন উইনস্টেড। ব্যালেরিনা হওয়ার স্বপ্ন মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলে তখন থেকে অভিনয়ে মনোযোগী হয়েছিলেন তিনি। শুরুতে ব্রডওয়াতে মঞ্চ নাটকের সঙ্গে যুক্ত হয়ে পরপর বেশ কয়েকটি নাটকে ছোটখাটো চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে নিজেকে স্বাচ্ছন্দ্য করে তোলেন। মঞ্চে নিজের যোগ্যতা প্রমাণের পর বেশ কয়েকটি টিভি সিরিজে কাজ করেন তিনি। এর মধ্যে এনবিসির সোপ অপেরা সিরিজ ‘প্যাশন’-এর কথা বলা যায়। যদিও ওখানে তার অভিনীত চরিত্রটি ছিল ছোট। এ কারণে ছোটপর্দায় অভিনয় করে তৃপ্তি পাচ্ছিলেন না। এক পর্যায়ে ‘প্যাশন’ সিরিজ ছেড়ে দেন নিজে থেকে। এরপর ছোটপর্দায় তাকে উল্লেখযোগ্য রোলে অভিনয় করতে দেখা যায়। ২০০৫ থেকে বড়পর্দায় তার পথ চলা শুরু হয়। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য হলিউডি সিনেমার মধ্যে রয়েছে ‘দ্য রিং টু’, ‘চেকিং আউট’, ‘স্কাই হাই’, ‘ফাইন্যাল ডেস্টিনেশন থ্রি ও ফাইভ’, ‘ফ্যাক্টরি গার্ল’, ‘ব্ল্যাক ক্রিস্টমাস’, ‘ববি’, ‘ডেথ প্রুফ’, ‘লিড ফ্রি অর ডাই হার্ড’, ‘দ্য থিং’, ‘আব্রাহাম লিংকন’, ‘ভ্যাম্পায়ার হান্টার’, ‘স্ম্যাশড’, ‘অ্যালেক্ট অব ভেনিস’, ‘কিল দ্য মেসেঞ্জার’ প্রভৃতি। অভিনীত বেশির ভাগ সিনেমা হরর ধাঁচের হলেও কমেডি ও সিরিয়াস ছবিতেও তাকে দেখা গেছে সফলভাবে অভিনীত চরিত্র রূপায়ণ করতে। মেরি এলিজাবেথ উইনস্টেড ২০১০-এ বিয়ে করেন চলচ্চিত্র নির্মাতা রিলেস্টার্নসকে। আর অভিনীত ‘ফল্ট’-এর মাধ্যমে তার স্বামী হলিউডে পরিচালক হিসেবে অভিষিক্ত হয়েছেন ২০১৪ সালে। গত জানুয়ারিতে মেরি উইস্টেড অভিনীত ‘দ্য হলার্স’ ও ‘সুইস আর্মি ম্যান’ মুক্তি পেয়েছে। বলা বাহুল্য এ সিনেমা-দুটি কমেডি-ড্রামা ধাঁচের। যার মাধ্যমে নিজেকে একজন ভার্সেটাইল অভিনেত্রী হিসেবে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছেন। অনেকেই তাকে ‘গড গিফটেড অ্যাকট্রেস’ হিসেবে অভিহিত করেন। মেরি এলিজাবেথ উইনস্টেড নিজেকেও তা-ই ভাবেন।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৩ মার্চ, ২০২১ ইং
ফজর৫:০৪
যোহর১২:১১
আসর৪:২৪
মাগরিব৬:০৫
এশা৭:১৮
সূর্যোদয় - ৬:১৯সূর্যাস্ত - ০৬:০০
পড়ুন