অভিনেতা হয়ে ওঠার গল্প
২১ ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং
অভিনেতা হয়ে ওঠার গল্প
ছোটবেলায় বাবা গোলাম মোস্তফার হাত ধরেই মঞ্চ নাটকে শ্যামল মাওলার অভিনয়ের যাত্রা। একসময় সহকারী পরিচালক হিসেবে মিডিয়াতে কাজ শুরু করেন। কেমন করে যেন হয়ে উঠলেন পেশাদার অভিনেতা। সেই গল্পই তুলে ধরা হয়েছে। লিখেছেন মিলান আফ্রিদী

 

ছোটপর্দায় এই সময়ে নিজের সপ্রতিভ অভিনয় দিয়ে এককভাবে নাটকে কিংবা টেলিফিল্মে নিজের প্রতিনিধিত্ব তৈরি করতে পেরেছেন, তাদের অন্যতম শ্যামল মাওলা। বহুমাত্রিক চ্যালেঞ্জিং চরিত্রে অভিনয় করে শ্যামল নিজেকে প্রতিনিয়ত ভাঙছেন, গড়ছেন। হয়ে উঠছেন অভিনয়ে আরও প্রত্যয়ী। একজন শ্যামল মাওলার অভিনয়ের পথে চলে নিজেকে পেশাদার অভিনেতা হিসেবে গড়ে তোলার গল্পটা খুব সহজ নয়। ২০০৯ সালে সুমন আনোয়ার, যুবরাজ খানের সহকারী হিসেবে কাজ করলেও অরুণা বিশ্বাসের নির্দেশনায় একটি নাটকে প্রথম ছোট্ট একটি চরিত্রে অভিনয় করার সুযোগ পান। এভাবে অভিনয়ের প্রতি আগ্রহ সৃষ্টি হওয়ার কারণে নাটক-টেলিফিল্মে ছোট ছোট চরিত্রে অভিনয় করেন। একসময় গাজী রাকায়েত ও চ্যালেঞ্জারের চোখে পড়েন শ্যামল মাওলা। তাদের দুজনের পরামর্শতেই তাহের শিপন শ্যামলকে নিয়ে নির্মাণ করেন ‘ই-ভরা বাদর, মাহ ভাদর’ নাটকটি। এতে তার বিপরীতে অভিনয় করেছিলেন প্রয়াত লাক্স তারকা রাহা। এর পরপরই শ্যামল অভিনয়ের সুযোগ পান গোলাম সোহরাব দোদুলের নির্দেশনায় ‘সাতকাহন’ ধারাবাহিক নাটকে। দেশ টিভিতে প্রচারিত এই ধারাবাহিকে শ্যামলের অভিনয় প্রশংসিত হয়। নির্মাতাও গল্পে তার চরিত্রের উপস্থিতি বাড়িয়ে দেন। সেই সময়ই পরিচয় ছিল এশা ইউসূফের সঙ্গে। ভাগ্যে জুটে যায় প্রথম চলচ্চিত্রে কাজ করার সুযোগ। শ্যামল সুযোগ পান নাসির উদ্দিন ইউসুফ পরিচালিত ‘গেরিলা’ চলচ্চিত্রে কাজ করার। ‘গেরিলা’-তেই তার অভিনয় তাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করে অনেকখানি। এরপর শ্যামল অভিনয় করেছেন সাজ্জাদ সুমনের ‘অপরাজিতা’, গোলাম সোহরাব দোদুলের ‘হল্লাবাজি’, সাফায়েত মনসুর রানার ‘ইচ্ছে ঘুড়ি’সহ আরও বহু দর্শকপ্রিয় নাটকে। এই মুহূর্তে শ্যামল ব্যস্ত আছেন সুমন আনোয়ারের নির্দেশনায় ‘সুখী মীরগঞ্জ’, ‘ইডিয়ট’; অরণ্য আনোয়ারের ‘বন্ধু বটে’; সোহেল আরমানের ‘জলরং’ ধারাবাহিকে কাজ করা নিয়ে। অভিনয়কে পেশা হিসেবে নেওয়া প্রসঙ্গে শ্যামল মাওলা বলেন, ‘সহকারী হিসেবে পেশাগতভাবে অভিনয়ের দুনিয়ায় আমার যাত্রা শুরু হয়েছিল। এরপর কেমন করে যেন অভিনেতা হয়ে গেলাম। যেহেতু বাবার হাত ধরেই অভিনয়ে আমার যাত্রা শুরু, তাই অভিনয় করতে তেমন বেগ পেতে হয়নি আমাকে। এটা সত্য আমি কখনোই ভাবিনি অভিনেতা হবো, অভিনয় করে টাকা রোজগার করব। বলা যায় অনেকটা চাপে পড়েই অভিনেতা হয়েছি। জীবনের যুদ্ধ খুব কাছে থেকে দেখেছি আমি। অভিনয় করতে করতে যখন সবার কাছ থেকে উত্সাহ পাওয়া শুরু করলাম, তখন মনে মনে ভেবে নিলাম অভিনয়কে পেশা হিসেবে নেওয়া যায়। যারা আমাকে আজকের এই পর্যায়ে নিয়ে আসতে পাশে থেকেছেন তাদের প্রত্যেকের কাছে আমি কৃতজ্ঞ।’ শ্যামল মাওলা জীবনের শুরুতেই সুযোগ পেয়েছেন আফজাল হোসেনের নির্দেশনায় বিজ্ঞাপনে মডেল হিসেবে কাজ করার। ‘দেশ নাটক’র হয়ে মঞ্চে অভিনয় করেছেন ‘বিরসা কাব্য’, ‘জনম জন্মান্তর’-এ। শ্যামলের একমাত্র সন্তান শ্রেয়ন মাওলা। একসময় সহকারী হিসেবে কাজ করলেও এখনো মাঝে মাঝে মনের কোণে উঁকি দেয় নির্দেশনা দেওয়ার বাসনা। কারণ সৃষ্টির নেশা তাকে তাড়িয়ে বেড়ায় প্রতিনিয়ত।

ছবি মোহসীন আহমেদ কাওছার

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২১ নভেম্বর, ২০২১ ইং
ফজর৫:১৬
যোহর১১:৫৭
আসর৩:৪১
মাগরিব৫:২০
এশা৬:৩৭
সূর্যোদয় - ৬:৩৬সূর্যাস্ত - ০৫:১৫
পড়ুন