রায়গঞ্জে বহু প্রত্যাশিত সেতু নির্মাণ কাজ বন্ধ
১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭ ইং
সাইট সিলেকশন নিয়ে জটিলতা

g দ্বীপক কর, রায়গঞ্জ (সিরাজগঞ্জ) সংবাদদাতা

সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জে ‘সাইট সিলেকশন’কে কেন্দ্র করে জটিলতা সৃষ্টি হওয়ায় বহু প্রত্যাশিত একটি সেতু নির্মাণের কাজ শুরুতেই বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কাজটি সম্পন্ন না হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলার সলঙ্গা থানার ধুবিল ইউনিয়নের উত্তরপাড়া ভরমোহনী গ্রামের একটি খালে সেতু না থাকায় বর্ষা মৌসুমে উভয় পাশের ৮/১০টি গ্রামের প্রায় ১০ হাজার মানুষ অবর্ণনীয় দুর্ভোগের শিকার হয়। সমপ্রতি ওই খালের উপর একটি সেতু নির্মাণের কাজ শুরু হয়। একাজে বাধা দিয়ে ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় নেতা-কর্মীরা এমপি বরাবর একটি আবেদন করেন। এতে তারা দাবি করেন মুক্তারের বাড়ির নিকট সেতু নির্মাণ না করে প্রায় ৫০০ ফুট উত্তরে দিদার মাস্টারের বাড়ির কাছে সেতু নির্মাণ করা হোক। এমপির নির্দেশে এ নিয়ে সমপ্রতি স্থানীয় নেতা-কর্মীদের বৈঠকও অনুষ্ঠিত হয়। তবে বিষয়টি এখনো ঝুলে আছে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কামরুল হাসান জানান, ২০১৬ সালের জুলাই মাসে ঘুরকা-সলঙ্গা পাকা সড়কে উত্তরপাড়া ভরমোহনী মুক্তারের বাড়ির পাশে খালের উপর ৫০ ফুট সেতু নির্মাণের জন্য স্থান নির্ধারণ করা হয়। এজন্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর থেকে বরাদ্দ দেওয়া হয়  ৪০ লাখ ৯৪ হাজার ৫০০ টাকা। কার্যাদেশ প্রদান করা হয় চলতি বছরের ২২ জানুয়ারি এবং কার্য সম্পন্নের তারিখ ২২ মার্চ। নির্ধারিত স্থানে ২৬ জানুয়ারি কাজও শুরু হয়। এমতাবস্থায় ঐস্থানে কাজ না করার জন্য এমপি’র নিকট ৩ ফেব্রুয়ারি আবেদন করা হয়।

 ঠিকাদারি কাজে নিয়োজিত উপজেলা আ’লীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক গৌতম কুমার দত্ত বলেন, বিধিমোতাবেক সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার পর কাজ শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যেই নির্ধারিত স্থানে সেড নির্মাণ, বক্সকাটিং, নির্মাণ সামগ্রী সরবরাহ ও শ্রমিক মজুরি বাবদ দেড় লক্ষাধিক টাকা ব্যয় হয়ে গেছে। নির্ধারিত স্থানেই কাজ সম্পন্ন করার জন্য তিনি প্রয়োজনে আইনের আশ্রয় নিবেন।

এদিকে ধুবিল ইউপি চেয়ারম্যান হাসান ইমাম তালুকদার বলেন, যারা আপত্তি জানাচ্ছেন তাদের সঙ্গে দুইবার বৈঠক হয়েছে। তারা সেতুর সংযোগ সড়কের জন্য জায়গা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় এলাকার মানুষের মতামতের ভিত্তিতেই বর্তমানের সাইট সিলেকশন করা হয় এবং কাজও শুরু হয়েছে।

এ ব্যাপারে স্থানীয় এমপি আলহাজ গাজী ম ম আমজাদ হোসেন মিলন বলেন, নির্ধারিত স্থানে সেতুটি নির্মাণ হলে স্থানীয় সকলেরই উপকার হবে। কার বাড়ির পাশ দিয়ে সেতু নির্মাণ হলো এটা বড় কথা নয়। বর্তমান সরকারের আমলে সেতু নির্মাণ হচ্ছে এটাই স্থানীয় আ’লীগ নেতা-কর্মীদের জন্য গর্বের বিষয় হওয়া উচিত বলে তিনি মন্তব্য করেন।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২১ ইং
ফজর৫:১৬
যোহর১২:১৩
আসর৪:১৭
মাগরিব৫:৫৭
এশা৭:১০
সূর্যোদয় - ৬:৩২সূর্যাস্ত - ০৫:৫২
পড়ুন