গঙ্গাচড়ায় বালুতে ঢেকে গেছে আমন খেত, কৃষকের ব্যাপক ক্ষতি
গঙ্গাচড়ায় বালুতে ঢেকে গেছে আমন খেত, কৃষকের ব্যাপক ক্ষতি
 ‘এক ছটাক ধানও এবার গোলাত উঠপার নয়, মোর জীবনে চরত এমন ক্ষতি মুই আর আগত দেখং নাই’— এভাবে কথাগুলো বলছিল চর শংকরদহ গ্রামের কৃষক আমিনুর (৫৫)। এ বছর সাম্প্রতিক কালের বন্যায়  জেলার গঙ্গাচড়ায় তিস্তার চরে বালুতে ঢেকে গেছে আমন ক্ষেত। নষ্ট হয়ে গেছে কয়েক একর জমির আমন ক্ষেত। কৃষকরা  ব্যাপক ক্ষতির শিকার হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, গত কয়েক দিনের উজান থেকে আসা ঢলের সঙ্গে নেমে আসে বালু আর পলি। আর সেই বালু আর পলি জমা হয় চরাঞ্চলের সদ্য রোপণকৃত আমন খেতে। ধানের চারাগুলো তলিয়ে গেছে বালু আর পলিতে। কৃষকরা জানান, এসব ধান আর হবে না। গত বছর তারা এখানে আমন লাগিয়েছিল। বিঘা প্রতি ২০ থেকে ২৫ মণ ধান হয়েছিল। এবার এক ছটাক ধানও ঘরে উঠবে না। সরেজমিনে চরাঞ্চলে গিয়ে দেখা যায়, কয়েকদিন আগের সবুজ তরতাজা আমন খেতগুলো বালুর নিচে তলিয়ে গেছে। চর শংকরদহ এলাকার কৃষক আমিনুরের এক একর, মৃনালের ৫০ শতক, সুশীলের ৭৫ শতক, সুশান্তর ৫০ শতকসহ অন্যান্য কৃষকের কয়েক একর জমির আমন ধান বালুর নিচে তলিয়ে গেছে।  তিস্তার শংকরদহ, ধামুর, কলাগাছী, জয়রামওঝাসহ চরাঞ্চলের অধিকাংশ জমিতে এ রকম অবস্থা হয়েছে বলে জানা গেছে। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, এখন পর্যন্ত ক্ষয়-ক্ষতির হিসাব তাদের কাছে নেই। কৃষি বিভাগের মতে, এখনো যেহেতু আমন লাগানোর সময় আছে। সেহেতু কৃষকরা নতুন করে চারা লাগাতে পারে। তাই ক্ষতির হিসাব দেখানোর সুযোগ নেই কৃষি বিভাগের।

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১০ আগষ্ট, ২০২১ ইং
ফজর৪:১১
যোহর১২:০৪
আসর৪:৪০
মাগরিব৬:৩৯
এশা৭:৫৭
সূর্যোদয় - ৫:৩২সূর্যাস্ত - ০৬:৩৪
পড়ুন