বাঘা উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানের কাণ্ডে চাঞ্চল্য
১০ আগষ্ট, ২০১৭ ইং
একজন হাজতে, অন্যজন পলাতক

বাঘা (রাজশাহী) সংবাদদাতা

জেলার বাঘা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জামায়াত নেতা জিন্নাত আলীর নাশকতার মামলায় হাজত বাস শেষ হতে না হতে এবার গম চুরির মামলায় সাজা প্রাপ্তির খবর প্রকাশ পাওয়ায় এলাকা ছেড়েছেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও জাসদ নেতা শফিউর রহমান শফি। বিষয়টি এলাকায় ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছে।

স্থানীয় লোকজন জানান, গম চুরি মামলায় ১৩ বছর সাজা প্রাপ্তির কথা গোপন রেখে ৪ বছর বহাল তবিয়তে বাঘা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন জাসদ নেতা শফিউর রহমান শফি। তবে আকস্মিকভাবে তার এ খবর ফাঁস হয়ে যাওয়ায় তিনি চরম বিপাকে পড়ে গা-ঢাকা দিয়েছেন। বুধবার  ভাইস চেয়ারম্যানের এক ঘনিষ্ঠজন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সূত্রে জানা যায়, ১৯৯৫ সালে আজকের বাঘা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও জাসদ নেতা শফিউর রহমান শফি বাঘার ১নং বাবুবাঘা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন। সে সময় ১৫ টন গম আত্মসাতের আভযোগে তার নামে আদালতে একটি মামলা হয়। ওই মামলায় ২০০১ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি তত্কালীন ডিভিশনাল স্পেশাল জজ আব্দুর রাজ্জাক শফিউর রহমানকে ৯১ হাজার টাকা জরিমানাসহ তিন বছরের সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করেন।

পরে শফিউর রহমান উচ্চ আদালতে আপিল করলে প্রথমে তাকে ৬ মাসের জন্য জামিন দেয় হাইকোর্ট। এরপর তিনি আবারো আপিল করলে আরো ৬  মাসের জন্য বেল (জামিন) মঞ্জুর করা হয়। কিন্তু শুনানিতে পূর্বের রায়ই বহাল থাকে। তবে রায় বহাল রেখে ২০১৪ সালে কীভাবে তিনি উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচন করলেন এ প্রশ্ন এখন মানুষের মুখে মুখে। 

এদিকে সম্প্রতি মসজিদে বসে গোপন বৈঠক এবং নাশকতার মামলায় জেলহাজতে রয়েছেন বাঘা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জামায়াত নেতা জিন্নাত আলী। তার নামে রয়েছে পুলিশকে মেরে অস্ত্র কেড়ে নেওয়াসহ তিনটি নাশকতা ও একটি অস্ত্র মামলা। সব মিলে একদিকে চেয়ারম্যান, অন্যদিকে ভাইস চেয়ারম্যান দুজনেরই এমন কাণ্ডে এলাকায় এখন ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। তবে তাদের এ সব কর্মকাণ্ডে বিপাকে পড়েছেন উপজেলা পরিষদের কর্মকর্তা কর্মচারীসহ কয়েকজন ঠিকাদার। অনেকে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ শেষে তাদের বিল ভাউচার ও বেতন উত্তোলন করতে পারছেন না।

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও জাসদ নেতা শফিউর রহমানের সঙ্গে কয়েক দফা যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। তবে এ সংক্রান্ত মামলার যাবতীয় কাগজ একটি মাধ্যম দিয়ে এসেছে বলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জানান।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১০ আগষ্ট, ২০২১ ইং
ফজর৪:১১
যোহর১২:০৪
আসর৪:৪০
মাগরিব৬:৩৯
এশা৭:৫৭
সূর্যোদয় - ৫:৩২সূর্যাস্ত - ০৬:৩৪
পড়ুন