কাজিপুরে তিন গ্রামের দুই শতাধিক পরিবারের ঘরবাড়ি যমুনায় বিলীন
কাজিপুরে তিন গ্রামের দুই শতাধিক পরিবারের ঘরবাড়ি যমুনায় বিলীন
বন্যা আর ভাঙন একসঙ্গে চলছে কাজিপুরে। নদীতীর সংরক্ষণ প্রকল্পের কাজ চলমান থাকলেও এর বাইরের এলাকাগুলো ভাঙনের তাণ্ডবে লণ্ডভণ্ড হয়ে যাচ্ছে।

গত ক’দিনের ভাঙনে সিরাজগঞ্জের কাজিপুরের নদীতীর সংরক্ষণ প্রকল্পের বাইরে মাছুয়াকান্দি, উত্তর রেহাইশুড়িবেড় ও বিল সুন্দর চরের মালেক রুস্তম, রফিকুল ইসলামের সহ ২ শতাধিক পরিবারের তাদের ঘরবাড়ী, ৫টি দোকানঘর, নাটুয়ারপাড়া নৌ-ঘাটের যাত্রীছাউনি নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। শতাধিক ঘরবাড়ি ও দোকানপাট অন্যত্র সরিয়ে নিয়েছে। ভাঙনের শিকার উত্তর রেহাইশুড়িবেড় গ্রামের তেছের আলী, রমেলা খাতুনসহ অনেকেই তাদের বসতভিটা থেকে ঘর-দোর সরিয়ে পাশের চরগুলোতে ও বগুড়ার শেরপুর উপজেলায় স্থানান্তর করেছে। ভাঙনের শিকার হচ্ছে উঠতি ফসলি জমি, সবজিক্ষেত, গাছের বাগান।

নাটুয়ারপাড়া ইউনিয়নের সাবেক সদস্য বেলাল হোসেন, আবুল কালাম আজাদ কমল জানান, ভাঙনের বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানিয়েছেন। ঐ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাজী আব্দুল মান্নান চাঁন বলেন, বন্যার সময় এই ভাঙনের শিকার চরটিতে প্রায় যুগ আগে থেকে মানুষজন তাদের বসতি গড়ে তোলে। এখনকার ভাঙনের ফলে তারা চরম ক্ষতির মুখে পড়েছে।

এখানেই শেষ নয়, ভাঙনকবলিত কাজিপুর উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের মধ্যে ৬টি ইউনিয়ন যমুনা নদীর বুকে জেগে ওঠা চরাঞ্চল। বাকি ৬টি ইউনিয়নের মধ্যে মাইজবাড়ি, কাজিপুর সদর ও শুভগাছা, গান্ধাইল  ইউনিয়নের অংশবিশেষ যমুনার ভাঙনের শিকার।

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১১ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং
ফজর৪:২৭
যোহর১১:৫৬
আসর৪:২৩
মাগরিব৬:১০
এশা৭:২৩
সূর্যোদয় - ৫:৪৪সূর্যাস্ত - ০৬:০৫
পড়ুন