প্রকৃতির জন্য প্রেম
জি এম সজল ও রফিকুল আলম, বগুড়া অফিস১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং
প্রকৃতির জন্য প্রেম
জেলায় শেরপুর হাসপাতাল রোডে বাড়ির প্রবেশ পথে শোভা পাচ্ছে সারি সারি দেবদারু, নারিকেল, আমসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ। চারিদিকে রয়েছে গোলাপ, বেলী, জুই, চামেলী, পাতাবাহার, মালতী, সন্ধ্যামনি, বাগানবিলাস, নাইটকুইন, ড্রাগন ও ফণিমনসা। এছাড়া দেশীবট, চায়নাবট, রঙিনবট, ছাতিয়ানী পামগাছ, পাকুড়সহ বিভিন্ন প্রজাতির কয়েকশ বনসাই গাছ। টবেও সাজানো আছে ভেষজ, ফুল, ফল ও বনসাইসহ শোভা বর্ধনকারী গাছ। পরিবেশবন্ধব এই মানুষটি বগুড়া-৫ (শেরপুর-ধুনট) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে পরপর দুইবারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মাদ হাবিবর রহমান।

সরেজমিনে জানা যায়, জেলায় ধুনট উপজেলার জালশুকা গ্রামে রয়েছে প্রায় আড়াইশ বিঘা আয়তনের বাইশা বিল। পাখির আশ্রয়ের জন্য বট, পাকুড়সহ দেশি গাছ লাগানো হয়েছে বিলের পাড়ে। রয়েছে ছায়া সুনিবিড় বাগান। বিলে সারা বছরই বক, শালিক, ময়না, টিয়াসহ নানান জাতের পাখি থাকে। এছাড়া শীতকালে সুদূর সাইবেরিয়া থেকে আসা পরিযায়ী পাখির মেলা বসে এখানে। সংসদ সদস্য এসব পাখি সুরক্ষার উদ্যোগ নিয়েছেন। পাখির প্রতি মানুষের ভালোবাসা সৃষ্টির জন্যই সংসদ সদস্য গ্রামটিতে অতিথি পাখির অভয়াশ্রম গড়ে তোলার চেষ্টা করছেন।

বিলের পাড়ে ব্যক্তি উদ্যোগে গড়ে তোলা নার্সারিতে লক্ষাধিক আম, জাম, পেয়ারা, আমড়াসহ বিভিন্ন জাতের দেশি-বিদেশি ফলজ, বনজ ও ভেষজ গাছের চারা রয়েছে। নার্সারির কোনো চারা বাজারে বিক্রি করা হয় না। সংসদ সদস্যের উদ্যোগে এসব চারা প্রতিবছর রোপণ করা হয়। গত পাঁচ বছরে তিনি প্রায় পাঁচ লাখ চারা লাগিয়েছেন এলাকার বিভিন্ন সড়কে।

জনপ্রতিনিধি হিসেবে শত ব্যস্ততার মাঝেও গাছ লাগানো আর গাছের পরিচর্যায় মনোনিবেশ সম্পর্কে সদালাপী এই সংসদ সদস্য মোহাম্মাদ হাবিবর রহমান বলেন, গাছ, পাখি, প্রকৃতি এসবই আমাদের সত্যিকারের বন্ধু। গাছ আমাদের ফল দেয়, ফুলের সুবাস দেয়, ছায়া দেয়, সুশীতল বাতাস দেয়। পরম বিশ্বস্ত মানুষও অনেক সময় আমাদের সাথে প্রতারণা করে, কিন্তু গাছ কখনোই মানুষের কোনো ক্ষতি করে না। নীরবে মানুষের পাশে থাকে। আমাদের পরিচর্যার মূল্য দেয়।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১১ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং
ফজর৪:২৭
যোহর১১:৫৬
আসর৪:২৩
মাগরিব৬:১০
এশা৭:২৩
সূর্যোদয় - ৫:৪৪সূর্যাস্ত - ০৬:০৫
পড়ুন