ভর্তিকালীন জামানত ফেরত পেতে শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি
১১ মার্চ, ২০১৮ ইং
বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়

বেরোবি প্রতিনিধি

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শেষ করে ভর্তিকালীন জামানতের টাকা ফেরত পেতে ভোগান্তির শিকার হতে হয় বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী একাধিক শিক্ষার্থী। প্রশাসনিক জটিলতার কারণেই জামানত ফেরত পেতে দীর্ঘসময় অপেক্ষা করতে হয় শিক্ষার্থীদের। এতে অনেকেই জামানত ফেরত না নিয়েই ক্যাম্পাস ছেড়ে চলে যান বলে খবর পাওয়া গেছে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়—স্নাতক ও স্নাতকোত্তরে ভর্তির সময় জামানত হিসেবে ফেরতযোগ্য একটি নির্দিষ্ট ফি গ্রহণ করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তরের সনদ ওঠানোর পর সেই ফি ফেরত দেওয়া হয়।

শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করে বলেন—জামানত তোলার আবেদন করার কমপক্ষে দুই মাস পর জামানতের টাকা ফেরত দেওয়া হয়। যেহেতু সার্টিফিকেটের কপি ছাড়া জামানতের টাকা উত্তোলনের আবেদন করা যায় না, তাই সবাই সার্টিফিকেট পাওয়ার পর জামানতের টাকা উত্তোলনের জন্য আবেদন করে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের দীর্ঘসূত্রতার কারণে ২ মাসের আগে টাকা পাওয়া যায় না। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আবেদনকারী শিক্ষার্থী ছাড়া অন্য কাউকে জামানতের টাকা দেয় না। আবার আবেদন করার সর্বোচ্চ ৬ মাসের মধ্যে টাকা তুলতে হয়। এতে, শুধু জামানতের টাকা উত্তোলনের জন্য ২ মাস ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ে ঘুরতে হয় শিক্ষার্থীদের। অধিকাংশ শিক্ষার্থী মাস্টার্স পরীক্ষার পর ক্যাম্পাস ছেড়ে চলে যান। কেউ কেউ রেজাল্টের জন্য অপেক্ষা করে। সনদ পেলে অনেকেই ক্যাম্পাস ছেড়ে চলে যায়। যারা চলে যান, তাদেরকে জামানতের টাকার দ্বিগুণ টাকা খরচ করে এসে টাকা উত্তোলন করতে হয়।

গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী লালন চন্দ্র সিংহ বলেন, ‘জামানতের টাকা ফেরত পেতে তাকে অনেক ভোগান্তির শিকার হতে হয়েছে। প্রশাসনিকভাবে বিষয়টি জটিল করায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।’ এসময় তিনি জামানত ফেরতের প্রক্রিয়া সহজ করার দাবি জানান।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ইবরাহীম কবীর বলেন, ‘সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোর সাথে কথা বলে জামানত ফেরতের প্রক্রিয়াটি সহজ করা হবে।’

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১১ মার্চ, ২০১৯ ইং
ফজর৪:৫৬
যোহর১২:০৯
আসর৪:২৭
মাগরিব৬:০৯
এশা৭:২১
সূর্যোদয় - ৬:১১সূর্যাস্ত - ০৬:০৪
পড়ুন