পড় তে প র বা সে
প্রতি মাসে সরকার আট লাখ ওন দেয়!
০২ ডিসেম্বর, ২০১৫ ইং
প্রতি মাসে সরকার আট লাখ ওন দেয়!
  নাদিম মজিদ

 

আমি দক্ষিণ কোরিয়া সরকারের কোরিয়ান গভর্নমেন্ট স্কলারশিপ প্রোগ্রাম (কেজিএসপি) বৃত্তি নিয়ে পুসান ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে এসেছি। এ বৃত্তির আওতায় টিউশন ফিসহ সব ফি ফ্রি। ইন্সুরেন্সও দেয় সরকার। প্রতিমাসে সরকার আট লাখ ওন দেয়! থাকা-খাওয়ার জন্য এ টাকা দিয়ে থাকে। প্রতিবছর বাংলাদেশ থেকে দু’জন শিক্ষার্থী এ বৃত্তির সুযোগ পায়। আমি পুসান ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে অণু জীববিজ্ঞান নিয়ে পড়াশোনা করছি। পাশাপাশি কোরিয়ান ল্যাঙ্গুয়েজ ইনস্টিটিউটে কোরিয়ান ভাষা শিখছি। থাকি বিশ্ববিদ্যালয়ের ডরমেটরিতে। সকাল সাড়ে ছয়টার মাঝে ঘুম থেকে উঠি। সকাল নয়টায় ক্লাস শুরু হয়। শেষ হয় দুপুর একটায়। ক্লাস শেষে দুপুরের খাবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাফেটরিয়াতেই সারি। বিকেলের দিকে কোরিয়ার সর্ব বৃহত্ লাইব্রেরি কুড়নডের আউটলেটে যাই। ডরমেটরিতে ফিরে একটু সময় পেলে লবিতে যাই। সেখানে সন্ধ্যার পর লবিতে তৈরি হয় এক সত্যিকারের বিশ্বায়নের ক্ষেত্র। অন্যান্য দেশের বন্ধুদের সাথে গল্প করি। রাতে ঘুমানোর আগ পর্যন্ত  বিজ্ঞান ব্লগে লেখালেখি করছি। রাতে খাওয়া-দাওয়ার পর বাড়িতে কথা বলি। মা ফোন দেন স্কাইপেতে। অবসরে গান করতে খুব পছন্দ করি। জাতীয় পর্যায়ে নজরুল সংগীতে স্বর্ণ পদক, উচ্চাংগ সংগীতে রৌপ্যপদক পেয়েছিলাম। অবসর সময়ে তাই গান করি। রেওয়াজ করাটা একেবারেই ছাড়িনি। দিনের মাঝে সময় বের করে ঠিকই গান নিয়ে বসা হয়।  আর প্রচুর গল্পের বই পড়ি।

এখানে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের খণ্ডকালীন কাজ করে নিজ খরচে পড়ার সুযোগ আছে। সেক্ষেত্রে তাদের কোরিয়ান ভাষা জানতে হয়। একজন কোরিয়ান গভর্নমেন্ট স্কলার হিসেবে বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করাটা আমার কাছে বড় সম্মানের। তাই যখন বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষ্ঠানে দেশের নাম বললে আমাকে উঠে দাঁড়াতে হয় তখন দেশের নাম আমার হূদয়ে পরম ভালোবাসা আর মমতা মাখানো গর্বের সাথে ধ্বনিত হয়। সাপ্তাহিক ছুটির দিনগুলোতে কোরিয়ার ঐতিহ্যবাহী স্থান, যাদুঘর, খ্যাতনামা স্থানসমূহ ভ্রমণ করি। দক্ষিণ কোরিয়ায় পড়তে আসা, পড়াশোনা এবং অন্যান্য কার্যক্রমের জন্য বাবা-মায়ের প্রতি আমি সবসময় কৃতজ্ঞ। ভবিষ্যতে একজন জীববিজ্ঞানী হতে চাই। পাশাপাশি বাংলা ভাষায় বিজ্ঞান চর্চার ক্ষেত্রে যতটুকু পারি কাজ করে যেতে চাই। সুস্থ সংস্কৃতি, মুক্তবুদ্ধি আর যুক্তিবাদের মাধ্যমে মেধা মননের বিকাশ করতে চাই নিরন্তর।

অতনু চক্রবর্তী

পুসান ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি

সিউল, দক্ষিণ কোরিয়া।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২ নভেম্বর, ২০২১ ইং
ফজর৫:০৪
যোহর১১:৪৮
আসর৩:৩৫
মাগরিব৫:১৪
এশা৬:৩১
সূর্যোদয় - ৬:২৪সূর্যাস্ত - ০৫:০৯
পড়ুন