চীনামাটির দেশ
বিরিশিরির গল্প
২৭ ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং
বিরিশিরির গল্প

  রাকিবুল হাসান ও শাহীন সরদার

 

বিশ্ববিদ্যালয়ের জীবন মানেই ক্লাস, পরীক্ষা, প্রাকটিক্যাল আর অ্যাসাইনমেন্টে ভরা। তাই একটু ছুটি পেলে সবারই ইচ্ছে করে দূর অজানায় কোথাও হারিয়ে যেতে। ফাইনাল পরীক্ষা শেষ। তাই সবারই মন যেন কোথাও ঘুরতে যাওয়ার জানার জন্য, দেখার জন্য। আমরা বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাত্স্যবিজ্ঞান অনুষদের একদল ভ্রমণপিপাসু তাই বেরিয়ে পড়লাম বিরিশিরির উদ্দেশে।

উত্তরে ভারতের মেঘালয়ের গারো পাহাড়ের পাশ দিয়ে বয়ে চলা কংশ নদ আর সোমেশ্বরী নদীর কোল ঘেঁষে গড়ে ওঠা অপরূপ শান্ত ছোট জনপদ দুর্গাপুর, বিজয়পুর এবং বিরিশিরি। এখানে রয়েছে দিগন্তজোড়া সবুজ গারো পাহাড়, লাল, বেগুনি রঙের চীনামাটির পাহাড়, অদ্ভুত সুন্দর নীল পানির লেক যা নিমিষেই চোখ জুড়িয়ে দেয়। বিরিশিরির পাশ দিয়ে দিগন্ত হারানো স্বচ্ছ পানির সোমেশ্বরী নদী যেন হার মানায় সকল সৌন্দর্যকে। বসবাসকারী ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর (গারো, হাজং, কোচ, ডালু, বানাই প্রভৃতি) জীবনযাত্রার নানা নিদর্শনে ভরপুর এসব অঞ্চল।

আঁকাবাঁকা ভঙ্গুর রাস্তায় পাড়ি দিয়ে বিজয়পুরের পথে প্রথমে থামলাম বিরিশিরি আদিবাসী কালচারাল একাডেমিতে। শান্ত-স্নিগ্ধ, সবুজে ঢাকা চারপাশের পরিবেশ। এ অঞ্চলে বসবাসকারী ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর জীবনযাত্রার নানা নিদর্শন, সাংস্কৃতিক পরিচয় সংরক্ষিত আছে এখানে। আদিবাসী পাহাড়িদের সাংস্কৃতিক কেন্দ্রস্থল বলা যেতে পারে একাডেমিটিকে।

এখান থেকে আমরা পৌঁছোলাম বিরিশিরি সোমেশ্বরী নদীর ঘাটে। নৌকার জন্য অপেক্ষা। এর মধ্যেই সবাই একে অন্যকে পানি ছোড়াছুড়ি। অবশেষে আমরা সবাই উঠে পড়লাম নৌকায়। নৌকায় ওঠার পর সে এক অপার দৃশ্য। পাহাড়ের কোলে হারিয়ে যাওয়া চিরযৌবনা সোমেশ্বরীর সঙ্গে নিজেরও যেন হারিয়ে যেতে ইচ্ছে করছিল।

বিজয়পুর বিজিবি ক্যাম্প। বিজিবি ক্যাম্পের পাশের ছোট গারো পাহাড়টিতে ওঠার জন্য কারো যেন আর তর সইছে না। কমলার পাহাড় নামের এই পাহাড়ে উঠে দেখলাম প্রকৃতির অপার সৌন্দর্য। প্রকৃতি তার ঝুলি উজাড় করে দিয়েছে এ গারো পাহাড় সাজাতে। পাহাড়ের অসমতল উঁচু-নিচু টিলার মধ্য দিয়ে বয়ে গেছে ঝরণা। দুই পাহাড়ের মাঝে মাঝে সমতল ভূমি। তার মাঝে সবুজ ফসলের ক্ষেত। কোথাও সবুজ টিলার ওপর ছোট কুঁড়েঘর। আর সবুজ গাছের ফাঁকে নীল আকাশ।

দুর্গাপুর চৌরাস্তায় দুপুরের খাবার সেরে রওনা দিলাম বিরিশিরির মূল আকর্ষণ চীনামাটির পাহাড় ও সবুজ পানির লেকের দিকে। যার বুক চিড়ে চলে গেছে অবাক সুন্দর নীলচে-সবুজ পানির হ্রদ। শরতে নীল আকাশ আর সাদা মাটির পটভূমি লেকগুলো জলের রঙকে যেন আরো গাঢ় করে তুলেছে।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৭ নভেম্বর, ২০২১ ইং
ফজর৫:১৮
যোহর১২:০০
আসর৩:৪৪
মাগরিব৫:২৩
এশা৬:৪১
সূর্যোদয় - ৬:৩৯সূর্যাস্ত - ০৫:১৮
পড়ুন