আনসার পদে নিয়োগ পাবে ৩৩০ জন
০২ ডিসেম্বর, ২০১৫ ইং
আনসার পদে নিয়োগ পাবে ৩৩০ জন
বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষার পাশাপাশি সরকারি ও বেসরকারি সংস্থার নিরাপত্তা রক্ষা, ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণ, জননিরাপত্তামূলক কাজ, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, দারিদ্র্য বিমোচন, নারীর ক্ষমতায়ন, বিভিন্ন অনুষ্ঠানের নিরাপত্তাসহ আর্থসামাজিক উন্নয়নে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে। সম্প্রতি এই বাহিনীতে শূন্য পদ পূরণের লক্ষ্যে ব্যাটালিয়ন আনসার পদে অস্থায়ী ভিত্তিতে দেশের ৬৪টি জেলা থেকে ৩০০ জন পুরুষ ও ৩০ জন মহিলা প্রার্থীকে নিয়োগ করা হবে বলে বিভিন্ন পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। ১৯ ডিসেম্বরের মধ্যে বিভিন্ন জেলার নির্ধারিত তারিখে আনসার-ভিডিপি একাডেমি, সফিপুর গাজীপুরে সকাল নয়টায় প্রার্থীদের শারীরিক পরীক্ষার জন্য উপস্থিত থাকতে হবে। একই দিনে প্রার্থীদের লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে।

শারীরিক পরীক্ষায় কোন জেলার প্রার্থীদের কবে উপস্থিত থাকতে হবে

০৫-১২-১৫ তারিখে বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠী, ভোলা, পটুয়াখালী, বরগুনা জেলা।

০৭-১২-১৫ তারিখে খুলনা, বাগেরহাট, সাতক্ষীরা, যশোর, ঝিনাইদহ, মাগুরা, নড়াইল, কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর জেলা।

০৯-১২-১৫ তারিখে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, নরসিংদী, গাজীপুর, কিশোরগঞ্জ, টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, শরীয়তপুর, মাদারীপুর, রাজবাড়ী, গোপালগঞ্জ জেলা।

১২-১২-১৫ তারিখে ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা, জামালপুর, শেরপুর জেলা।

১৪-১২-১৫ তারিখে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি, বান্দরবান জেলা।

১৭-১২-১৫ তারিখে কুমিল্লা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চাঁদপুর, নোয়াখালী, ফেনী, লক্ষ্মীপুর জেলা।

১৯-১২-১৫ তারিখে সিলেট, হবিগঞ্জ, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার জেলার প্রার্থীদের উপস্থিত থাকতে হবে।

আবেদনের যোগ্যতা :বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী এ পদে আবেদন করতে হলে প্রার্থীদের ন্যূনতম নবম শ্রেণি বা তদূর্ধ্ব পাস হতে হবে। বয়স হতে হবে ৩০-১১-২০১৫ তারিখে ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে।

শারীরিক যোগ্যতার ক্ষেত্রে পুরুষ প্রার্থীদের উচ্চতা সর্বনিম্ন ৫ ফুট ৪ ইঞ্চি হতে হবে। আর নারী প্রার্থীদের উচ্চতা ৫ ফুট ২ ইঞ্চি হতে হবে। ওজন পুরুষ প্রার্থীদের ক্ষেত্রে ৫২ কেজি হতে হবে। বুকের মাপ ৩০-৩২ ইঞ্চি বা ৭৫-৮০ সেন্টিমিটার (মহিলাদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়)। আর দৃষ্টিশক্তি লাগবে ৬/৬। তবে কোনো দুরারোগ্য ব্যাধি থাকলে প্রার্থীকে প্রাথমিক বাছাইয়ে নির্বাচন করা হবে না। অধিক উচ্চতা, শহীদ পরিবার, তালিকাভুক্ত আনসার-ভিডিপি সদস্য, ক্রীড়া ক্ষেত্রে অধিক যোগ্যতাসম্পন্ন প্রার্থীকে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। প্রার্থীদের অবশ্যই অবিবাহিত হতে হবে।

নির্বাচন পদ্ধতি :বিজ্ঞপ্তিতে উল্লিখিত নির্দিষ্ট তারিখ, সময় ও কেন্দ্রে প্রার্থীদের শারীরিক পরীক্ষার জন্য উপস্থিত হতে হবে। শারীরিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের সনদপত্র যাচাইয়ের পর একই দিনে লিখিত পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে। লিখিত পরীক্ষা প্রসঙ্গে উপপরিচালক (ব্যাটালিয়ন) মোহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেন জানান, প্রার্থীদের ৫০ নম্বরের লিখিত ও ১০ নম্বরের মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে। বিষয় থাকবে চারটি—বাংলা, ইংরেজি, গণিত ও সাধারণ জ্ঞান। মৌখিক পরীক্ষায় প্রার্থীদের শিক্ষাগত যোগ্যতা, আচরণ, নিজ জেলা, সাধারণ জ্ঞান ইত্যাদি বিষয়ে প্রশ্ন করা হবে।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র :লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী প্রার্থীদের নির্বাচন কমিটির কাছে গেজেটেড অফিসার কর্তৃক সত্যায়িত শিক্ষাগত যোগ্যতার মূল/প্রভিশনাল সনদপত্রের ফটোকপি, নবম শ্রেণির প্রার্থীদের শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক প্রদত্ত রেজিস্ট্রেশন কার্ড ও প্রধান শিক্ষক কর্তৃক প্রদত্ত প্রশংসাপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি, ছয় কপি সত্যায়িত পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবি (সামনে থেকে তোলা), সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ/চেয়ারম্যান/পৌরসভা চেয়ারম্যান/ওয়ার্ড কমিশনার প্রদত্ত জাতীয় সনদপত্রসহ যাবতীয় কাগজপত্র জমা দিতে হবে।

প্রশিক্ষণ :লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত প্রার্থীদের পরবর্তী সময়ে প্রদেয় সময়সূচি অনুযায়ী ছয় মাসের প্রশিক্ষণের জন্য আনসার-ভিডিপি একাডেমি, সফিপুর, গাজীপুরে যোগদান করতে হবে। এই প্রশিক্ষণকালীন তাঁদের দৈনিক ৯০ টাকা ভাতা হিসেবে দেওয়া হবে।

ভাতা ও পদোন্নতি :নিয়োগপ্রাপ্ত ব্যাটালিয়ন আনসার চাকরিকালীন ভাতা হিসেবে সমতল এলাকার জন্য ২৩৪ টাকা এবং পাহাড়ি এলাকার জন্য ২৫০.৩৯ টাকা দৈনিক খোরাক পাবেন। এই খোরাকির মধ্যে রসদভাতা, চুল কাটা, ধৌত ভাতা, যাতায়াত ভাতা, চিকিত্সা ভাতা অন্তর্ভুক্ত আছে। এ ছাড়া ২৯৮১.১৬ টাকা হারে বছরে দুটি উত্সব ভাতা পাবেন। এর বাইরে রেশনসুবিধা, চিকিত্সা ভাতা, পোশাক ইত্যাদি সুবিধা পাওয়া যাবে। চাকরির মেয়াদ নয় বছর পূর্ণ হলে প্রচলিত নিয়ম অনুসরণপূর্বক যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদন সাপেক্ষে স্থায়ীভাবে নিয়োগ করা হবে।

সাখাওয়াত হোসেন আরও জানান, একজন ব্যাটালিয়ন আনসার তার জ্যেষ্ঠতা, যোগ্যতা ও বিভিন্ন পরীক্ষার মাধ্যমে শর্ত সাপেক্ষে পদোন্নতি পেয়ে ল্যান্স নায়েক, নায়েক, হাবিলদার, এপিসি, পিসি পর্যন্ত হতে পারবেন।

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২ নভেম্বর, ২০২১ ইং
ফজর৫:০৪
যোহর১১:৪৮
আসর৩:৩৫
মাগরিব৫:১৪
এশা৬:৩১
সূর্যোদয় - ৬:২৪সূর্যাস্ত - ০৫:০৯
পড়ুন