পাঁচ বিশেষজ্ঞ চিকিত্সকের মতামত চেয়েছে হাইকোর্ট
ধর্ষণের শিকার নারীর ‘দ্বি-অঙ্গুলি বিশিষ্ট’ পরীক্ষা
ইত্তেফাক রিপোর্ট০৮ আগষ্ট, ২০১৬ ইং
ধর্ষণের শিকার নারীর ‘দ্বি-অঙ্গুলি বিশিষ্ট’ পরীক্ষা পদ্ধতির প্রয়োজনীয়তার বিষয়ে পাঁচজন বিশেষজ্ঞ চিকিত্সকের মতামত জানতে চেয়েছে হাইকোর্ট। আগামী ১৬ আগষ্ট তাদেরকে আদালতে এসে এ বিষয়ে মতামত দিতে বলা হয়েছে। এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুর ও বিচারপতি আবু তাহের মো: সাইফুর রহমানের ডিভিশন বেঞ্চ গতকাল রবিবার এই আদেশ দেন। আদালত ৫জন চিকিত্সকের নামও নির্ধারণ করে দিয়েছেন। এরা হলেন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের সাবেক প্রধান ডা. হাবিবুজ্জামান চৌধুরী ও ন্যাশনাল ফরেনসিক ডিএনএ প্রোফাইল ল্যাবরেটরির প্রধান ডা. সাফিউর আখতারুজ্জামান, মিরপুরের ডেল্টা মেডিক্যাল কলেজের প্রিন্সিপাল ডা. জাহিদুল করিম আহমেদ, বারডেম হাসপাতালের ফরেনসিক মেডিসিনের অধ্যাপক ডা. গুলশান আরা এবং  ইন্দো-প্যাসিফিক এসোসিয়েশন অফ ল মেডিসিন এন্ড সাইন্সের ভাইস প্রেসিডেন্ট মুজাহিরুল হক।

গত বছরের ৮ অক্টোবর মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক), বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড এন্ড সার্ভিসেস ট্রাস্ট (ব্লাষ্ট), বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ, ব্র্যাক, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন, নারীপক্ষ নামে ৬টি পৃথক সংগঠন এবং দুইজন ব্যক্তি ধর্ষণের শিকার নারীর ‘দ্বি-অঙ্গুলি বিশিষ্ট’ পরীক্ষার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে কি না এই বিষয়ে হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন। ওই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ওই বছরের ১০ অক্টোবর হাইকোর্ট ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়নের শিকার নারীদের পরীক্ষা সংক্রান্ত নীতিমালা প্রণয়নে কমিটি গঠনের নির্দেশ দেয়। এছাড়া বিশেষজ্ঞদের দিয়ে কমিটি গঠন করে আগামী তিন মাসের মধ্যে এ বিষয়ে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়। এরপরই বিশেষজ্ঞ কমিটি আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন। কমিটির দাখিল করা ওই নীতিমালায় ধর্ষিত নারীর সঙ্গে হাসপাতালের চিকিত্সক, পুলিশসহ সবাইকে কেমন আচরণ করতে হবে তা পৃথকভাবে উল্লেখ করা হয়। এছাড়া ‘দ্বি-অঙ্গুলি বিশিষ্ট’ পদ্ধতিতে কেউ মেডিক্যাল পরীক্ষা করতে না চাইলে জোর করে না করাতে, ধর্ষিতার রিপোর্টে ধর্ষণের বিষয় ছাড়া নারীর মর্যাদা ক্ষুণ্ন করে এ জাতীয় শব্দ ব্যবহার না করতেও বলা হয়। এই পদ্ধতিকে প্রাধান্য না দিয়ে অন্য কোনো পদ্ধতির প্রবর্তনের ব্যবস্থা করার বিষয় তুলে ধরা হয় ওই নীতিমালায়।

সম্প্রতি হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট বেঞ্চে মামলাটি রুল শুনানির জন্য আসে। শুনানির এক পর্যায়ে রিটকারী সংগঠনের পক্ষ থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিত্সকদের মতামত চেয়ে একটি আবেদন দাখিল করেন। আবেদনের পক্ষে ব্যারিস্টার সারা হোসেন ও রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এসএম নাজমুল হক শুনানি করেন। শুনানি শেষে হাইকোর্ট এই রিট মামলার সুষ্ঠু নিষ্পত্তির জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিত্সকদের মতামত চেয়ে আদেশ প্রদান করে।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৮ আগষ্ট, ২০১৯ ইং
ফজর৪:০৯
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪১
মাগরিব৬:৪০
এশা৭:৫৯
সূর্যোদয় - ৫:৩১সূর্যাস্ত - ০৬:৩৫
পড়ুন