বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ উত্সব
বিশেষ প্রতিনিধি২১ ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং
বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ উত্সব
জাতীয় দিবসের স্বপ্ন দেখেন তিনি

বাঙালিদের স্বাধীনতা সংগ্রামের জন্য প্রস্তুত হওয়ার এক কালজয়ী আহ্বান জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চের ভাষণ। দিনটি হোক ‘জাতীয় ভাষণ দিবস’। এমনই স্বপ্ন দেখতেন কামরুল আহসান তালুকদার সেই ছাত্র জীবন থেকে। ছাত্রজীবন শেষে চাকরি জীবন। উদ্যোগ নেওয়ার সুযোগ এলো। এবার সিদ্ধান্ত নিলেন- যে করেই হোক নতুন প্রজন্মের সামনে ৭ই মার্চের ভাষণ তুলে ধরবেন। এ লক্ষ্যে ২০১৭ সালের ২৫ জানুয়ারিতে ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলায় নিজ উদ্যোগে তিনি শুরু করেন ‘বঙ্গবঙ্গুর ৭ই মার্চের ভাষণ উত্সব’। ভালুকা উপজেলা তার দ্বিতীয় কর্মস্থল। তখন তিনি ওই উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা। তার মহত্ উদ্যোগের কারণে এ উপজেলায় কয়েক হাজার শিক্ষার্থী এখন ‘খুদে বঙ্গবন্ধু’-তে পরিণত হয়েছে। যারা ভাষণটি মুখস্থ বলতে পারেন, অবিকল বঙ্গবন্ধুর আদলে। প্রসঙ্গত, তার এই মহত্ উদ্যোগের প্রায় নয়মাস পর চলতি বছরের ৩০ অক্টোবর  ইউনেস্কো বিশ্ব ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেওয়া ৭ই মার্চের ভাষণ।

কামরুল আহসান তালুকদার বিসিএস ২৫তম ব্যাচের প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা। বর্তমানে তিনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সহকারী সচিব। ময়মনসিংহের ভালুকায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা থাকাকালে অনুমতির জন্য জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে সরকারের শীর্ষ পর্যায়ে প্রস্তাব পাঠান। মৌখিক অনুমতি মেলার পরই তিনি ভালুকা উপজেলা ও পৌরসভার ৪ শতাধিক কিন্ডার গার্টেনসহ  প্রাথমিক  ও মাধ্যমিক পর্যায়ের কয়েক হাজার শিক্ষার্থীর মধ্যে বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ নিয়ে প্রতিযোগিতার আয়োজন করেন। কয়েক মাস অনুশীলনের পর গত ২৫ নভেম্বর ভালুকা ডিগ্রি কলেজ মাঠে চার গ্রুপে চূড়ান্ত প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। সেরা ভাষণদাতা হিসেবে ১২ জনকে নির্বাচিত করা হয়। তাদের হাতে তুলে দেওয়া হয় পুরস্কার ও ক্রেস্ট। কামরুল আহসান তালুকদার বলেন, আমি বিশ্বাস করি একদিন দেশে মিলবে ৭ই মার্চ ভাষণ দিনটির জাতীয় স্বীকৃতি।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২১ নভেম্বর, ২০২১ ইং
ফজর৫:১৬
যোহর১১:৫৭
আসর৩:৪১
মাগরিব৫:২০
এশা৬:৩৭
সূর্যোদয় - ৬:৩৬সূর্যাস্ত - ০৫:১৫
পড়ুন