অশুভ শক্তি রুখতে মঞ্চনাটক শক্তিশালী করার প্রত্যয়
তিনদিনের এশিয়ান থিয়েটার সামিট শুরু
০৬ অক্টোবর, ২০১৮ ইং
ইত্তেফাক রিপোর্ট

থিয়েটার আর্ট সামিটের উদ্বোধনী পর্বে বক্তারা বলেছেন, যে কোনো অশুভ শক্তির বিপরীতে মঞ্চনাটক একটি শক্তিশালী অস্ত্র। অবিবেচকদের অমানবিক কর্মকাণ্ড রুখতে মঞ্চনাটককে আরও বেশি শক্তিশালী করতে হবে। সময়ের প্রেক্ষাপটে এশীয় অঞ্চলের দেশগুলোর নাট্যদলগুলোর মধ্যে যোগাযোগ আরও বৃদ্ধি করতে হবে। গতকাল শুক্রবার স্বাগতিক বাংলাদেশসহ সাত দেশের প্রতিনিধিদের অংশগ্রহণে রাজধানীতে শুরু হয়েছে তিনদিনের এশিয়ান থিয়েটার সামিট। ইন্টারন্যাশনাল থিয়েটার অ্যাসোসিয়েশন-আইয়াটা’র এশিয়ান রিজিওনাল সেন্টারের উদ্যোগে এবং পিপলস থিয়েটার অ্যাসোসিয়েশন ও শিল্পকলা একাডেমির যৌথ আয়োজনে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। গতকাল শুক্রবার শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার সেমিনার কক্ষে এ সম্মেলন শুরু হয়েছে।

উদ্বোধনী আয়োজনে অংশ নেন নাট্যজন আতাউর রহমান, শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী, সিঙ্গাপুরের চাইনিজ অপেরা ইনস্টিটিউটের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক চুয়া সু পং, জাপানের অধ্যাপক ইয়াসু নাগাটা, হংকংয়ের চান কাম কুয়েন, চীনের চেন ইয়া জিন ও কোয়াও জিংপিং, ভারতের রবিজিতা গোগোই, ফিলিপাইনের অধ্যাপক জিমি ফং এবং ঢাকাস্থ ইরানি সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের পক্ষে অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ কাজেম কাহেদাহি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে ছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। শুরুতেই বাঁশিতে সুরের মূর্ছনা তোলেন শিল্পী মনিরুজ্জামান। ছিল ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর শিল্পীদের পরিবেশনায় নৃত্য। গানের সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করেন শিল্পকলা একাডেমির নৃত্যশিল্পীরা। উদ্বোধন শেষে দিনভর নানা অধিবেশনে নিজ নিজ দেশের নাট্যচর্চার ইতিহাস ও বর্তমান প্রেক্ষাপট নিয়ে আলোচনা করেন সিঙ্গাপুরের চুয়া সু পং, জাপানের অধ্যাপক ইয়াসু নাগাটা, হংকংয়ের চান কাম কুয়েন, চীনের চেন ইয়া জিন ও কোয়াও জিংপিং, ভারতের রবিজিতা গোগোই এবং ফিলিপাইনের অধ্যাপক জিমি ফং।

ছায়ানটে আনন্দ আয়োজন :সবার প্রিয় দাদা বা টুনু ভাই আফম সাইফুদ দৌলা গত ২৮ সেপ্টেম্বরে ৯০ বছরে পা রেখেছেন। তিনি ছায়ানটের বর্তমান সংগঠকদের মধে প্রবীণতম। তাকে শুভেচ্ছা জানাতে ছায়ানট গতকাল শুক্রবার এক আনন্দ আয়োজন করে। সন্ধ্যায় ছায়ানট মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তার প্রিয় তিন প্রজন্মের তিন শিল্পী গাইলেন গান। টুনু ভাইয়ের নিবিড়ভাবে দেখা তিন প্রজন্মের শিল্পীদের মধ্য থেকে তারই নির্বাচিত প্রিয়দের অন্যতম ফাহমিদা খাতুন, ইফ্ফাত আরা দেওয়ান, মহিউজ্জামান ময়না ও লাইসা আহমদ লিসা। কিছু গানের কলি গেয়ে স্মৃতিচারণ করেন সন্জীদা খাতুন। শুরুতেই সম্মেলক কণ্ঠে শিল্পীরা গেয়ে শোনান ‘আনন্দধ্বনি জাগাও গগনে’। মঞ্চে আসেন ইফফাত আরা দেওয়ান। তিনি রবীন্দ্র সংগীত দিয়ে শুরু করেন। এরপর মহিউজ্জামান ময়নাও শুরু করেন রবীন্দ্র সংগীত দিয়ে। এরপর সম্মেলক কণ্ঠে ছায়ানটের শিল্পীরা গেয়ে শোনায় ‘প্রাণ বরিয়ে তৃষা হরিয়ে’। একক গান নিয়ে আসেন লাইসা আহমেদ লিসা। সবশেষে সন্জীদা খাতুন টুকরো টুকরো গান আর টুনু ভাইকে নিয়ে স্মৃতিকথায় আসর জমিয়ে তোলেন।

রবীন্দ্র সরোবরে শরত্ উত্সব :গতকাল শুক্রবার সকালে ধানমন্ডির রবীন্দ্র সরোবর মঞ্চে শরতের গান নিয়ে উত্সবের আয়োজন করেছিল জাতীয় রবীন্দ্র সংগীত সম্মিলন পরিষদের ঢাকা মহানগর শাখা। ছিল নৃত্য পরিবেশন। শুরুতেই ছিল দুটি সম্মেলক গান। পরিষদের ঢাকা মহানগর শাখার শিল্পীরা এক হয়ে গেয়ে শোনান ‘আলোর অমল কমলখানি’ ও ‘শরতে আজ কোন অতিথি’ গান দুটি। সম্মেলক কণ্ঠে শিল্পীরা আরো গেয়ে শোনান ‘আমরা বেঁধেছি কাশের গুচ্ছ’, ‘দেখো দেখো দেখো শুকতারা’, ‘তোমার মোহন রূপে’ ও ‘কোন খেলা যে খেলবো কখন’। একক কণ্ঠে গান গেয়ে শোনান তপন মাহমুদ, লাইসা আহমেদ লিসা, অভীক দেব, শুকলা পাল সেতু, শ্রেয়া ঘোষ, পার্থ প্রতীম রায়, অভয়া দত্ত, রাজিন মুস্তাফা দিপ্র, স্বাতী সরকার, এএসএম জাকারিয়া, সেঁজুতি বড়ুয়া ও পীযূষ বড়ুয়া। অনুষ্ঠানে একক ও সম্মেলক কণ্ঠে সংগীত পরিবেশনার মধ্যেই শর্মীলা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তার দল নৃত্যনন্দন দলীয় নৃত্য পরিবেশন করেন।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৬ অক্টোবর, ২০২১ ইং
ফজর৪:৩৬
যোহর১১:৪৭
আসর৪:০৩
মাগরিব৫:৪৫
এশা৬:৫৬
সূর্যোদয় - ৫:৫১সূর্যাস্ত - ০৫:৪০
পড়ুন