আশুগঞ্জ যুবলীগের কমিটি বাতিলের দাবিতে মিছিল ও সড়ক অবরোধ
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলা যুবলীগের নবগঠিত আহবায়ক কমিটি বাতিলের দাবিতে বুধবার সকালে ঘন্টাব্যাপী মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ-মিছিল ও সমাবেশ করেছে পদবঞ্চিত একাংশের নেতাকর্মীরা। উপজেলা যুবলীগের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সাধারণ সম্পাদক মনির সিকদার ও নবগঠিত কমিটির যুগ্ম-আহবায়ক-২ ইলিয়াস আলীর নেতৃত্বে সহসবিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে উপজেলার রেলগেট এলাকায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে বালি ও টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে অবরোধ সৃষ্টি করে। এতে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে সকল প্রকার যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে মহাসড়কের দু’পাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। অবরোধের পর পদবঞ্চিতরা রেলগেট এলাকায় এক সমাবেশে মিলিত হয়। এসময় তারা নবগঠিত আহবায়ক কমিটি প্রত্যাখ্যান করে দ্রুত এই কমিটি বাতিলের দাবি জানান। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন:উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহবায়ক মো.সালাউদ্দিন, সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সাধারণ সম্পাদক মনির সিকদার, নবগঠিত কমিটির যুগ্ম আহবায়ক-২ ইলিয়াস আলী, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান কবির,আসিফ ইকবাল,আরিফুর রহমান জুয়েল,উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মারুফ রনি প্রমুখ।

উল্লেখ্য, গত ১৯ অক্টোবর উপজেলা যুবলীগের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জিয়াউদ্দিন খন্দকারকে আহবায়ক, মো. শাহীন আলম বকসী ও মো. ইলিয়াছ আলীকে যুগ্ম আহবায়ক করে ৩৩ সদস্যবিশিষ্ট উপজেলা যুবলীগের কমিটি অনুমোদন দেন কেন্দ্রীয় যুবলীগের চেয়ারম্যান মো. ওমর ফারুক ও সাধারণ সম্পাদক মো. হারুনুর রশিদ।

শরীয়তপুরে আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষ আহত ৩০

শরীয়তপুর প্রতিনিধি  শরীয়তপুর সদর উপজেলার তুলাশার ইউনিয়নের দক্ষিণ গোয়ালদি গ্রামে আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষে কমপক্ষে ৩০ জন আহত হয়েছে। বুধবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে ১৮ জনকে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সংঘর্ষের সময় ১০টি বসতঘর ভাংচুর হয়। পরিস্থিতি শান্ত করতে পালং থানা পুলিশ ৬ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোঁড়ে।  শরীয়তপুর সদর থানা ও স্থানীয় সূত্র জানায়, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে জেলা কৃষকলীগের আহবায়ক আমিন উদ্দিন ফকির ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদ ফকিরের মধ্যে দীর্ঘ দিন যাবত্ বিরোধ চলছে। আমিন উদ্দিন ফকিরের সমর্থক রাজ্জাক মোড়লের মেয়ের বিয়ে উপলক্ষে দক্ষিণ গোয়ালদি গ্রামের বাড়িতে সাজ সজ্জার কাজ চলছিল। জাহিদ ফকিরের সমর্থক কয়েকজন যুবক সেখানে বাধার সৃষ্টি করে। তখন তাদের মধ্যে হাতাহাতি হয়। এ সংবাদ গ্রামে ছড়িয়ে পড়লে দু’পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। ঘন্টা ব্যাপী সংঘর্ষে উভয় পক্ষের কমপক্ষে ৩০ জন আহত হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৬ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোঁড়ে। এ ঘটনায় পুলিশ ২০ জনকে আটক করেছে।

চরফ্যাশনে পরিবহন শ্রমিকদের সংঘর্ষে আহত ২০

চরফ্যাশন (ভোলা) সংবাদদাতা  ভোলা  চরফ্যাশনে যাত্রীবাহী বাস ও ব্যাটারীচালিত অটো বোরাক  শ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষে ২০  শ্রমিক আহত হয়েছে। ভাংচুর করা হয়েছে  ৮টি বাসসহ ১৫টি যানবাহন । গতকাল বুধবার সদর রোডে  যাত্রী উঠানামা নিয়ে বাস ও ব্যাটারীচালিত বোরাক  শ্রমিকদের মধ্যে এ সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়। আহত ১০ শ্রমিককে  চরফ্যাশন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ঘটনাস্থল চরফ্যাশন সদরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে চরফ্যাশন থেকে সকল রুটের বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। ফলে ভোগান্তিতে পড়েছে যাত্রীসাধারণ।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৩ অক্টোবর, ২০২১ ইং
ফজর৪:৪৩
যোহর১১:৪৩
আসর৩:৪৯
মাগরিব৫:২৯
এশা৬:৪২
সূর্যোদয় - ৫:৫৯সূর্যাস্ত - ০৫:২৪
পড়ুন