পরিত্যক্ত ঘোষণার ১০ বছরেও দিশাবন্দ স্কুলের ভবন হয়নি
পরিত্যক্ত ঘোষণার ১০ বছরেও দিশাবন্দ স্কুলের ভবন হয়নি
মনোহরগঞ্জ উপজেলার দিশাবন্দ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি পরিত্যক্ত ঘোষণার ১০ বছর পার হলেও ভবন নির্মাণ হয়নি। আর তাই বিদ্যালয়ের আঙ্গিনা ও তত্সংলগ্ন ফ্লাড সেন্টারে চলছে শিশুদের পাঠদান। যে কোন মুহূর্তে বিদ্যালয়টি ধসে প্রাণহানির ঘটনা ঘটতে পারে।

উপজেলা সদরে অবস্থিত জীর্ণশীর্ণ এ বিদ্যালয়ের অধিকাংশ শ্রেণিকক্ষের দরজা-জানালা ও গ্রীল নেই। ভিতর ও বাইরে আস্তর খসে পড়ে গেছে অনেক আগেই। ২০১৩ সালের ১ জানুয়ারি বিদ্যালয়টিকে রেজিষ্ট্রার্ড প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে সরকারি প্রাথমিকে উন্নীত করা হলেও ভাগ্যের পরিবর্তন হয়নি।

বিদ্যালয়টি ১৯৯৪-৯৫ অর্থবছরে নির্মাণ করা হয়। নির্মাণের এক বছর পর থেকেই ছাদ চুইয়ে পানি পড়তে থাকে। ২০০৪ সালের শেষের দিকে ক্লাস চলাকালে এক শিক্ষার্থীর মাথায় ছাদের কিছু অংশ খসে পড়ে। ২০০৫ সালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও প্রকৌশলী বিদ্যালয়টি পরিদর্শন করে ভবনটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করেন। ধীরে ধীরে ভবনটি অধিক ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়লে বিকল্প হিসেবে গ্রীষ্মকালে পাঠদান চলে বিদ্যালয় মাঠে ও বর্ষাকালে নিকটবর্তী ফ্লাড সেন্টারে। এতে শিক্ষা ব্যবস্থা চরম হুমকিতে পড়েছে।

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা কাজী মফিজ উদ্দিন জানান, বিদ্যালয়টির জন্য একটি ভবন বরাদ্দ হয়েছিল। কিন্তু কেন ভবনটি নির্মাণ হয়নি সেটা আমার জানা নেই। তবে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে জাতীয়করণকৃত বিদ্যালয়ের ভবন সংক্রান্ত তথ্যে বিদ্যালয়টি জরাজীর্ণ হিসেবে দেখানো হয়েছে এবং জরুরিভিত্তিতে নতুন ভবন নির্মাণের সুপারিশ করা হয়েছে।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৩০ এপ্রিল, ২০১৯ ইং
ফজর৪:০৪
যোহর১১:৫৬
আসর৪:৩২
মাগরিব৬:২৯
এশা৭:৪৭
সূর্যোদয় - ৫:২৫সূর্যাস্ত - ০৬:২৪
পড়ুন