ঈশ্বরদী স্টেশনে মৈত্রী ট্রেনে যাত্রী উঠা-নামার ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি
বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে চলাচলকারী মৈত্রি এক্সপ্রেস ট্রেনে ঈশ্বরদী জংশন স্টেশন থেকে যাত্রী উঠা-নামার ব্যবস্থা গ্রহণের দীর্ঘদিনের দাবি পূরণ হচ্ছে না। আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারণে উত্তরাঞ্চল ও দক্ষিণাঞ্চলের একাংশের মানুষ মৈত্রী ট্রেনে ভারত ভ্রমণের সুবিধা হতে বঞ্চিত হচ্ছে। অথচ কম সংখ্যক যাত্রী নিয়ে মৈত্রি এক্সপ্রেস ট্রেন চলাচল করায় রেলওয়ে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব আয় হতে বঞ্চিত হচ্ছে। এই ট্রেনে যাত্রী সংখ্যা আশানুরূপ হওয়ার সম্ভাবনাকে সামনে রেখে ২০০৮ সালের এপ্রিলের পরে ঈশ্বরদী স্টেশন থেকে যাত্রী উঠা-নামার প্রাথমিক পর্যায়ের প্রক্রিয়া শুরু করা হয়।

পরে দু’দেশের রেলওয়ের বিভাগীয় রেলওয়ে ম্যানেজার (ডিআরএম) পর্যায়ের একাধিক বৈঠকও অনুষ্ঠিত হয়। এসব বৈঠকে ইমিগ্রেশনসহ নানা সুযোগ-সুবিধার বিষয় আলোচনায় স্থান পায়। কিন্তু এরপরও এই স্টেশন থেকে যাত্রী উঠা-নামার ব্যবস্থা গ্রহণের চূড়ান্ত কোনো পরিবেশ আজো সৃষ্টি হয়নি।

রেলের দায়িত্বশীল একাধিক সূত্রে জানা যায়, ঈশ্বরদী স্টেশন থেকে মৈত্রী ট্রেনে যাত্রী উঠা-নামার ব্যবস্থা করা হলে প্রতিদিন বহু যাত্রী ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে চলাচলের সুযোগ পেত।  ট্রেনটিতে শুধু ঢাকা থেকে যাত্রী উঠা-নামার ব্যবস্থা থাকায় একদিকে যেমন উত্তরাঞ্চলের মানুষ বঞ্চিত হচ্ছে, অপরদিকে রেল কর্তৃপক্ষও লাখ লাখ টাকার রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। 

এ ব্যাপারে পশ্চিমাঞ্চল রেলের পাকশী বিভাগীয় ব্যবস্থাপক আফজাল হোসেন  জানান, রেল কর্তৃপক্ষের আন্তরিকতার অভাব নেই। শুধু কাস্টমস ও ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ এখন পর্যন্ত কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় রেল কর্তৃপক্ষ যাত্রী উঠা-নামার ব্যবস্থা করতে পারছে না।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২ নভেম্বর, ২০২১ ইং
ফজর৫:০৪
যোহর১১:৪৮
আসর৩:৩৫
মাগরিব৫:১৪
এশা৬:৩১
সূর্যোদয় - ৬:২৪সূর্যাস্ত - ০৫:০৯
পড়ুন