গাংনীতে ভুয়া প্রকল্প দেখিয়ে কোটি টাকা লুটপাট
মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে এলজিএসপি-২ এর বরাদ্দকৃত কোটি টাকার কাজ না করে ভুয়া প্রকল্প দেখিয়ে তড়িঘড়ি করে উত্তোলন করে ভাগাভাগি করার অভিযোগ উঠেছে। বরাদ্দকৃত দ্বিতীয় কিস্তির টাকা ইউপি চেয়ারম্যান ও তাদের সচিবগণ মেয়াদের শেষভাগে উত্তোলন করার পাঁয়তারা চালাচ্ছে।

জানা গেছে, উপজেলার কাথুলী ইউনিয়নে অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য ১০ লাখ ৮ হাজার টাকা, তেঁতুলবাড়ীয়া ইউপিতে ১২ লাখ ৫০ হাজার টাকা, কাজীপুর ইউপিতে ১৫ লাখ ১০ হাজার টাকা, বামন্দী ইউপিতে ১২ লাখ ২১ হাজার টাকা, মটমুড়া ইউপিতে ১৬ লাখ ৯২ হাজার টাকা, ষোলটাকা ইউপিতে ১০ লাখ টাকা, সাহারবাটি ইউপিতে ১০ লাখ ১৬ হাজার টাকা, ধানখোলা ইউপিতে ১৬ লাখ ২৩ হাজার টাকা ও রায়পুর ইউপিতে ৯ লাখ ৪৬ হাজার টাকাসহ মোট ১ কোটি ১২ লাখ ৬৬ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়।

সরেজমিন দেখা গেছে, সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যানগণ পরিষদ সদস্যদের সাথে সমন্বয় না করে সচিবকে সাথে নিয়ে কিছু ভুয়া প্রকল্প দেখিয়ে লাখ লাখ টাকা ভাগাভাগি করেছেন। হাতেগোনা দু’একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করলেও নিম্নমানের ইট-বালি দিয়ে হেরিংবন্ড রাস্তা দায়সারাভাবে করেছেন। অভিযোগ উঠেছে, বিগত বছরের মেরামতকৃত রাস্তাও নতুন প্রকল্পে দেখিয়ে টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।

যদিও চেয়ারম্যানরা এসব অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, এলজিএসপির টাকা সঠিকভাবে কাজ করা হয়েছে। তবে সরকারি নিয়মানুযায়ী পুরোপুরি ভালো ইট-বালি ব্যবহার করা হয়নি। তাছাড়া সবাইকে ম্যানেজ করেই কাজ করতে হয়।

এলজিএসপির প্রকল্প পরিদর্শক শফিকুল ইসলাম জানান, ১ম কিস্তির টাকা প্রকল্প বাস্তবায়ন করে যথানিয়মে উত্তোলন করা হয়েছে। নিম্নমানের কাজ করে টাকা উত্তোলনের কোনো সুযোগ নেই। এরকম অভিযোগ প্রমাণিত হলে আগামী অর্থবছরে কোনো বরাদ্দ দেওয়া হবে না এবং তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৭ জুলাই, ২০২১ ইং
ফজর৪:০২
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৪৭
এশা৮:০৮
সূর্যোদয় - ৫:২৫সূর্যাস্ত - ০৬:৪২
পড়ুন