কালাইয়ায় ধানের দাম ভালো হওয়ায় কৃষকের মুখে হাসি
বাউফল (পটুয়াখালী) সংবাদদাতা২৩ ডিসেম্বর, ২০১৬ ইং
কালাইয়ায় ধানের দাম ভালো হওয়ায় কৃষকের মুখে হাসি
দক্ষিণাঞ্চলে ধান-চালের বড় মোকাম বাউফল উপজেলার কালাইয়া হাট। ওই হাটে এ সপ্তাহে ধানের বাজার চাঙ্গা হওয়ায় স্থানীয় কৃষকদের মুখে হাসি ফুটেছে। বিগত বছরের ধার দেনা পরিশোধ করে কৃষকরা কিছুটা লাভের মুখ দেখবেন বলে আশা করছেন।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর বাউফলে ৩৭ হাজার ৬শ’ হেক্টর জমিতে আমন চাষ করা হয়েছে। ঘূর্ণিঝড় ও বিরামহীন ভারি বর্ষণে সাড়ে ১২ হাজার হেক্টর জমির ধানের কিছুটা ক্ষতি হলেও বাউফলে আমনের বাম্পার ফলনই হয়েছে। বাম্পার ফলনে বর্গা ও প্রান্তিক চাষিরা ঘূর্ণিঝড় এবং ভারী বর্ষণের ক্ষতি কাটিয়ে উঠেছেন।

কালাইয়া বাজারে প্রতি মণ (৪৮ কেজি) মোটা ধান ৮শ’ ৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। যা দু’সপ্তা আগে ৬শ’ ২০ থেকে ৬শ’ ৩০ টাকায় বিক্রি হয়েছিল। কৃষকরা জানিয়েছেন, বীজ, সার ও শ্রমিক খরচ দিয়ে প্রতিমণ ধান উত্পাদনে প্রায় ৫শ’ ৯০ টাকা খরচ হয়েছে। বর্তমান বাজার স্থিতিশীল থাকলে ধার দেনা পরিশোধ করে সমান সমান থাকা যাবে।

বাউফলের কালাইয়া বন্দর দক্ষিণাঞ্চলের ধান-চালের বড় মোকাম। প্রতি সোমবার হাট বসে। ধানের মৌসুমে উপকূলীয় চরাঞ্চলসহ ভোলার লালমোহন, চরফ্যাশন, বোরহানউদ্দিন, পটুয়াখালীর দশমিনা, গলাচিপা, রাঙ্গাবালি ও কলাপাড়া এলাকার কৃষকদের উত্পাদিত ধান বিক্রির জন্য সোমবার কালাইয়া বন্দরে আমদানি হয়।

চাঁদপুর, মুন্সীগঞ্জ, খুলনা ও ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ধান কিনতে আসা মহাজনরা জানান, মৌসুমের শুরুতে বাজারে ওঠা ধান পুরোপুরি পাকে না এবং ওই সময় ধান কম শুকানো হয়। তাই দাম কম থাকে। এখন ধান পুরোপুরি পেকে গেছে। যার কারণে দামও বেড়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মাহামুদ জামান বলেন, সরকার বরিশাল বিভাগ থেকে ধান কিনছে না। যদি কেনা হতো তবে কৃষকরা আরো উপকৃত হতো।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৩ নভেম্বর, ২০২১ ইং
ফজর৫:১৭
যোহর১১:৫৮
আসর৩:৪২
মাগরিব৫:২১
এশা৬:৩৮
সূর্যোদয় - ৬:৩৭সূর্যাস্ত - ০৫:১৬
পড়ুন