দৌলতপুরে গৃহবধূর শরীর ঝলসে দিয়েছে স্বামী
২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭ ইং
g দৌলতপুর (কুষ্টিয়া) সংবাদদাতা

কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার পল্লীতে পারিবারিক কলহের জেরে এক গৃহবধূর শরীর আগুনে ঝলসে দিয়েছে পাষণ্ড স্বামী ও তার স্বজনরা। ঝলসে যাওয়া গৃহবধূ দৌলতপুর হাসপাতালে চিকিত্সাধীন রয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় মামলা হয়েছে। পুলিশ একজনকে আটক করলেও এখনো পাষণ্ড স্বামীকে আটক করতে পারেনি।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, উপজেলার আড়িয়া গ্রামের চা বিক্রেতা কামরুল ইসলামের মেয়ে চাঁদনীর (১৯) সাথে ৯ মাস পূর্বে পার্শ্ববর্তী তেলিগাংদিয়া গ্রামের ইউনুস শেখের ছেলে মৌসুমী ব্যবসায়ী মনিরের বিয়ে হয়। চাঁদনীর বাবা কামরুল ইসলাম জানান,  বিয়ের পর থেকে জামাই মনির ও তার বাড়ির লোকজন কারণে-অকারণে তার মেয়েকে বিভিন্নভাবে নির্যাতন করত। এরই একপর্যায়ে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় চাঁদনীর সাথে কথা কাটাকাটির জের ধরে স্বামী মনির তার শাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেয়। এ সময় চাঁদনী আগুন নেভানোর চেষ্টা করলে মনির ও তার বাড়ির লোকজন তাকে দরজা বন্ধ করে রাখে। চাঁদনীর চিত্কারে প্রতিবেশীরা ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে দৌলতপুর হাসপাতালে নিয়ে যায়। দৌলতপুর হাসপাতালের চিকিত্সক ডা. নিগার সুলতানা জানান, চাঁদনীর পিছনের অংশ সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে। তার অবস্থা শঙ্কামুক্ত নয়। এ ব্যাপারে চাঁদনীর বাবা কামরুল ইসলাম বাদী হয়ে দৌলতপুর থানায় স্বামী মনির, তার মা ও ভাই ও ভাবীকে আসামি করে মামলা করেছে। দৌলতপুর থানার ওসি আহমেদ কবীর হোসেন জানান, এ ঘটনায় জড়িত মনিরের ভাবীকে আটক করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২১ ইং
ফজর৫:১০
যোহর১২:১৩
আসর৪:২১
মাগরিব৬:০১
এশা৭:১৪
সূর্যোদয় - ৬:২৬সূর্যাস্ত - ০৫:৫৬
পড়ুন