দক্ষিণ আমতলী আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পলিথিন টাঙিয়ে ক্লাস
আমতলী (বরগুনা) সংবাদদাতা১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং
দক্ষিণ আমতলী আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পলিথিন টাঙিয়ে ক্লাস
সংস্কারের অভাবে আমতলী উপজেলার ৩৭টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন এখন ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। এসকল ভবনের ছাদে ফাটল ধরেছে, দেয়ালের পলেস্তারা খসে পড়েছে। দরজা-জানালা নেই বললেই চলে। ছাদে ফাটল ধরায় বর্ষার সময় ছাদ চুঁইয়ে পানি পড়ে। 

আমতলী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, ভবনের অভাবে বেশি সমস্যায় পড়েছে দক্ষিণ আমতলী আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি।  জানা গেছে, স্থানীয় এক নারী শিক্ষানুরাগী সফের ভানু ১৯৮৮ সালে দক্ষিণ আমতলী গ্রামে “দক্ষিণ আমতলী আদর্শ প্রাথমিক বিদ্যালয়” নামে একটি স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন। বিদ্যালয়টি পরবর্তীতে জাতীয়করণ করা হয়। বিদ্যালয়টি স্থাপনের পর ১৯৯৫-৯৬ অর্থবছরে ৪ কক্ষের একটি ভবন নির্মাণ করে। ভবনটি নির্মাণের পর দীর্ঘ ২২ বছর অতিবাহিত হলেও আর কোনো সংস্কার করা হয়নি। সংস্কার না করায় বিদ্যালয়ের ভবনের ছাদে অসংখ্য ফাটল ধরেছে। এসময় বৃষ্টির পানি পড়ার কারণে ক্লাস নেওয়া যায় না। শিক্ষকরা নিরুপায় হয়ে ছাদের নিচ দিয়ে পলিথিন টাঙিয়ে এখন ক্লাস করছেন। বেশি বৃষ্টির সময় ক্লাস বন্ধ রেখে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা বারান্দায় গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকেন।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, বিদ্যালয় ভবনের ৪টি কক্ষেই ছাদের নিচে দরি দিয়ে বেঁধে পলিথিন টাঙানো হয়েছে। এ অবস্থার মধ্যে দিয়েই চলছে ক্লাস। বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের পানি সেবনের জন্য রয়েছে একটি গভীর নলকূপ। নলকূপ দিয়ে পানি উঠলেও সে পানি ঘোলা কাদার মত এবং লবণ মিশ্রিত। দক্ষিণ আমতলী আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) মো. ওমর ফারুক জানান, বিদ্যালয় ভবন এখন ব্যবহারের সম্পূর্ণ অনুপযোগী। ভবনটি এতই দুর্বল যে কোনো সময় ধসে পড়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। ভবনটি সংস্কারের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট বহুবার আবেদন করেছি কোনো কাজ হচ্ছে না।

এছাড়া সরেজমিন ঘুরে উপজেলার আরো ৩৬টি স্কুল ভবনের দুরবস্থার চিত্র দেখা গেছে, বিদ্যালয়গুলো হলো বাইনবুনিয়া, চাউলা, পূর্বচুনাখালী, পূর্ব চরকগাছিয়া, মধ্য শাখারিয়া, আমরাগাছিয়া, চরচিলা, উত্তর সোনাখালী, মধ্য সোনাখালী, উত্তর চুনাখালী, গাজীপুর বন্দর, চাওড়া চালিতাবুনিয়া, পাতাকাটা নুরুল হক, দক্ষিণ ঘটখালী, দক্ষিণ পাতাকাটা, কাউনিয়া, দক্ষিণ ঘোপখালী, আড়পাঙ্গাশিয়া, কুকুয়া হাট, পূর্ব তারিকাটা, মধ্য আড়পাঙ্গাশিয়া, ভায়লাবুনিয়া, জেবি সেনের হাট, পশ্চিম আমতলী, দক্ষিণ-পূর্ব গুলিশাখালী, দক্ষিণ পশ্চিম আমতলী, দক্ষিণ পূর্ব চিলা, পূর্ব মহিষডাঙ্গা, টিয়াখালী হাট, ছোট নাচনাপাড়া, পাতাকাটা নুরুল হক, উত্তর পশ্চিম তক্তাবুনিয়া, আঠারগাছিয়া, মধ্য টেপুরা, ওয়াপদা ও বেগম নূরজাহান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন খুব ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।

আমতলী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মজিবুর রহমান জানান, ঝুঁকিপূর্ণ ভবন সংস্কারের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট অর্থ বরাদ্দ  চাওয়া হয়েছে।

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১১ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং
ফজর৪:২৭
যোহর১১:৫৬
আসর৪:২৩
মাগরিব৬:১০
এশা৭:২৩
সূর্যোদয় - ৫:৪৪সূর্যাস্ত - ০৬:০৫
পড়ুন