ব্যস্ত আগৈলঝাড়ার পাল পাড়ার নারী শিল্পীরা
০৫ এপ্রিল, ২০১৮ ইং
ব্যস্ত আগৈলঝাড়ার পাল পাড়ার নারী শিল্পীরা

সামনে বৈশাখী মেলা

তপন বসু, আগৈলঝাড়া (বরিশাল) সংবাদদাতা

আর কয়েকদিন পরেই বাঙালির প্রাণের উত্সব নববর্ষ। নববর্ষকে বরণ করতে চলছে বিভিন্ন প্রস্তুতি। জাতীয় জীবনের এই দিনটিকে বরণ করতে আগ্রহের কোনো কমতি নেই শহুরে জীবনের সঙ্গে দেশের গ্রামীণ জনপদেও। চৈত্র সংক্রান্তি থেকে গ্রামীণ জনপদে পুরো বৈশাখ মাস জুড়ে বিভিন্ন স্থানে চলবে বৈশাখী মেলা।

বৈশাখী মেলার অন্যতম আকর্ষণ মাটির তৈরি খেলনাসহ বিভিন্ন তৈজসপত্র। বৈশাখী মেলায় মাটির খেলনা ও তৈজসপত্র বিক্রির প্রস্তুতি নিতে চৈত্র মাসের শুরু থেকেই ব্যস্ত হয়ে রয়েছে উপজেলার একমাত্র গৈলা ইউনিয়নের উত্তর শিহিপাশা গ্রামের পাল পাড়ার মৃিশল্পীরা। স্বামীর কাজে সহযোগিতা করতে ঘরে বসে নেই ওই শিল্পীদের রমণীরাও। পড়াশুনার অবসরে বৈশাখী মেলার খেলনা তৈরির মাধ্যমে হাতেখড়ি দিচ্ছে পাল পাড়ার ভবিষ্যত্ প্রজন্মের শিশুরাও। 

উত্তর শিহিপাশা গ্রামের পাল পাড়ার প্রবীণ মৃিশল্পী তরণী কান্ত পাল জানান, তাদের বাড়ির  প্রত্যেকেই মেলার জন্য মাটি দিয়ে বিভিন্ন ধরনের খেলনা ও তৈজসপত্র তৈরি করছেন। এর মধ্যে রয়েছে বিশ্ব কবি রবি ঠাকুর, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, স্বামী বিবেকানন্দ, মহামানব হরিচাঁদ ঠাকুর, গণেশ পাগল, মা শারদা দেবীসহ দেশ বরেণ্য বিশিষ্ট ব্যক্তিদের প্রতিকৃতি। এ ছাড়াও বিভিন্ন সাইজের  হাঁড়ি-পাতিল, মাটির ব্যাংক, বিভিন্ন প্রজাতির পাখি, পুতুল, হাতি, ঘোড়া, বানর, সিংহ, দোয়েল, কচ্ছপ, মাছ, হাঁস, ডিম ইত্যাদি। ফলের মধ্যে আম, জাম, কাঁঠাল, লিচু, পেয়ারা, তাল ইত্যাদি।

কুমোর পাড়ার এই শিল্পীরা আরো বলেন, তাদের পূর্ব পুরুষরা এ পেশার সঙ্গে নিবিড়ভাবে জড়িত ছিলেন, তাই তারাও পূর্ব পুরুষের সেই ঐতিহ্য ধরে রাখতেই এখনও সেই পেশাকে আকড়ে রেখেছেন। তবে প্রজন্মের সন্তানরা এখন তাদের পূর্ব পুরুষের পেশায় আসতে চাইছে না। কারণ, আগের মত এখন আর তৈজসপত্রের একচেটিয়া ব্যবসা নেই। বর্তমান বাজারে সিরামিক, প্লাস্টিক ও ধাতব তৈজসপত্রের সহজ প্রাপ্যতা ও সহজলভ্যতার জন্য তাদের মৃিশল্পের ব্যবসায় অনেকটাই ধস নেমেছে। যখন কোনো মেলা বসে তখন তারা মেলার জন্য খেলনা তৈরি করেন। এটা তাদের পরিবারের জন্য মৌসুমের একটা বাড়তি আয়। কুমোর পাড়ায় চৈত্র মাসে চলে মাটির খেলনা ও তৈজসপত্র তৈরির কাজ। বৈশাখ মাস জুড়ে বিভিন্ন মেলায় বিক্রি হয় খেলনাগুলো। এসব মাটির খেলনার দাম ৩০ টাকা থেকে ৫শ টাকা পর্যন্ত বলে জানান শিল্পীরা।

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৫ এপ্রিল, ২০২১ ইং
ফজর৪:৩০
যোহর১২:০২
আসর৪:৩০
মাগরিব৬:১৯
এশা৭:৩২
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৬:১৪
পড়ুন