নালিতাবাড়ীতে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা
০৫ এপ্রিল, ২০১৮ ইং
অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) সংবাদদাতা

উপজেলার রূপনারায়ণকুড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজানের বিরুদ্ধে নানা ধরনের অনিয়ম আর দুর্নীতির অভিযোগ এনে অনাস্থা প্রস্তাব দিয়েছেন পরিষদের সকল সদস্য। মঙ্গলবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তরফদার সোহেল রহমান অনাস্থার অনুলিপি পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। বুধবার প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের হাতেও অনাস্থার কপি দেন সংশ্লিষ্টরা। ইউপি সদস্যবৃন্দের অভিযোগে বলা হয়েছে, উপজেলার রূপনারায়ণকুড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজান ২০১৬ সালে নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই নানা ধরনের দুর্নীতি ও অনিয়ম করে আসছেন। অভিযোগের মধ্যে রয়েছে টিআর, কাবিখা, কাবিটা, ভিজিএফ, এডিপি, পঙ্গু-বয়স্কভাতা, বিধবাভাতা, গর্ভকালীন মাতৃত্বভাতা, ৪০ দিনের কর্মসূচি, ১০ টাকা কেজি চাল বিতরণ এবং এলজিএসপি প্রকল্পে অনিয়ম-দুর্নীতি। ওইসব অনিয়ম-দুর্নীতির কারণে গত পহেলা এপ্রিল ইউপি কার্যালয়ে সাধারণ আসনের ৯ জন সদস্য ও সংরক্ষিত আসনের তিন নারী সদস্যসহ ১২ জনের উপস্থিতিতে সর্বসম্মতিক্রমে অনাস্থা সংক্রান্ত একটি রেজ্যুলেশন পাস করা হয়েছে। ওই রেজ্যুলেশনের প্রেক্ষিতে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগে আবেদন করা হয়। আবেদনের অনুলিপি প্রেরণ করা হয়েছে এলাকার এমপি কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরীসহ স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব, বিভাগীয় কমিশনার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছেও।

৮নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের জন্য বরাদ্দকৃত সকল প্রকল্প চেয়ারম্যান তার একক সিদ্ধান্তে কাজ করেন। তিনি সকল প্রকল্পে ব্যাপকভাবে অনিয়ম ও দুর্নীতি করেছেন।

৩নং ওয়ার্ড সদস্য গোলাম গাউস বলেন, ‘আমরা সকল মেম্বারই একমত হয়ে সিদ্ধান্ত নিছি’। ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজান সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ওদের সাথে আমার সম্পর্ক ভালো। তবে এটা আমার বিরুদ্ধে একটা ষড়যন্ত্র। এই অভিযোগের কোনো ভিত্তি নেই। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তরফদার সোহেল রহমান বলেন, অভিযোগের একটি অনুলিপি আমি পেয়েছি।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৫ এপ্রিল, ২০২১ ইং
ফজর৪:৩০
যোহর১২:০২
আসর৪:৩০
মাগরিব৬:১৯
এশা৭:৩২
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৬:১৪
পড়ুন