পর্যটকদের পদচারণায় মুখরিত সুন্দরবনসহ পর্যটন কেন্দ্রগুলো
ইত্তেফাক ডেস্ক২৬ আগষ্ট, ২০১৮ ইং
পর্যটকদের পদচারণায় মুখরিত সুন্দরবনসহ পর্যটন কেন্দ্রগুলো
ঈদের ছুটিতে পর্যটকদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠছে সুন্দরবনসহ পর্যটন কেন্দ্রগুলো। ইত্তেফাক প্রতিনিধি ও সংবাদদাতাদের পাঠানো  খবর।

পর্যটকে মুখরিত সুন্দরবন

ঈদের ছুটিতে প্রতিবেশ-পর্যটকের (ইকো-ট্যুরিস্ট) পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠেছে সুন্দরবন। বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের চাঁদপাই রেঞ্জের করমজল বন্যপ্রাণি প্রজনন কেন্দ্রের দর্শনার্থীদের ভিড় সামলাতে রীতিমত হিমশিম খেতে হচ্ছে বন প্রহরীদের। সুন্দরবন বিভাগ জানিয়েছে, দেশ-বিদেশ থেকে আশা প্রতিবেশ-পযর্টকদের এ ভিড় থাকবে আরো এক সপ্তাহ ধরে।

ওয়ার্ল্ড হ্যারিটেজ সাইড সুন্দরবন প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যের লীলাভূমি জীব-বৈচিত্র্যের আধার। সুন্দরবন শুধু দেশের নয়, বিশ্বের দর্শনীয় স্থানগুলোর মধ্যে স্থান করে নিয়েছে। বিশেষ করে ঈদসহ বিভিন্ন উত্সবসহ ছুটির দিনগুলোতে অনেক বেশি দেশি-বিদেশি প্রতিবেশ-পর্যটকরা ছুটে আসে সুন্দরবনে। সুন্দরবনের করমজল বন্যপ্রাণি প্রজনন কেন্দ্রেটি দূরত্বের দিক দিয়ে লোকালয়ের সবচেয়ে কাছের ও দর্শনীয় হওয়াতে সাধারণত প্রতিবেশ-পর্যটকের ভিড় সারা বছর লেগেই থাকে। করমজল পর্যটন কেন্দ্রের ফুট টেইলার, সুউচ্চ ওয়াচ টাওয়ার, লবন পানির কুমির, মায়া ও চিত্রল হরিণ, বানর ও বিলুপ্তপ্রায় কচ্ছপ বাটারগুল বাচকাসহ বিভিন্ন পশু-পাখি এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে দেখে আনন্দ উপভোগ করে থাকেন প্রতিবেশ-পর্যটকরা। করমজল ছাড়াও হাড়বাড়িয়া, হিরণপয়েন্ট, কটকা ও কচিখালী পর্যটন কেন্দ্রগুলোতেও এবারের ঈদের ছুটিতে পর্যটকদের উপস্থিতি বিগত সময়ের তুলনায় কয়েক গুণ বেড়েছে।

সুন্দরবনের পর্যটন ব্যবসায়ী মিজানুর রহমান ও গোলাম রহমান বিটু বলেন, প্রতি বছরই সুন্দরবনে দেশি-বিদেশি পর্যটকদের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। প্রতিবেশ-পর্যটন শিল্পের বিকাশের জন্য এই মুহূর্তে সুন্দরবনের পর্যটন কেন্দ্রগুলোকে আরো বেশি আকর্ষণীয় ও অবকাঠামোগত সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধির প্রয়োজন রয়েছে।

সুন্দরবন বিভাগের চাঁদপাই রেঞ্জের করমজল বন্যপ্রাণি প্রজনন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাওলাদার আজাদ কবির বলেন, ঈদ উপলক্ষ্যে পর্যটকদের ভিড় হঠাত্ বেড়ে যাওয়ায় তাদের সার্বিক সহায়তা ও নিরাপত্তা নিশ্চিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে স্বপ্ল সংখ্যক প্রহরীদের। তারপরও সাধ্য অনুযায়ী সেবা ও নিরাপত্তা দিয়ে যাচ্ছেন তারা। দেশ-বিদেশ থেকে আশা প্রতিবেশ-পযর্টকদের ভিড় আরো এক সপ্তাহ ধরে থাকবে।

কাহারোলের কান্তজীউ মন্দির ও ব্রিজে

দর্শনার্থীদের উপচেপড়া ভিড়

ঈদ আনন্দ উপভোগ করতে দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলার ঐতিহাসিক কান্তজীউ মন্দির ও ব্রিজে দর্শনার্থীদের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। বৃহস্পতিবার থেকে গতকাল শনিবার বিকাল পর্যন্ত বিভিন্ন বয়সের পুরুষ, নারী ও শিশুরা যেন মনের আনন্দে উপভোগ করছেন বিনোদন কেন্দ্রে প্রভৃতি খেলায়। কান্তজীউ মন্দির অত্যাধুনিক দৃষ্টিনন্দন কারুকর্জ দেখার জন্য ভীড় জমাচ্ছে অসংখ্য দর্শনার্থীরা। এলাকায়ও ছিল উঠতি বয়সের যুবক যুবতী ও কিশোর কিশোরীদের আনন্দের জোয়ার। বসেছিল মেলার আসর।

যমুনার পাড়ে উপচে পড়ছে মানুষ

ঈদের আনন্দকে আরো রঙিন করতে মানুষ প্রিয়জনদের নিয়ে ভিড় করছেন বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে। ঈদ আনন্দ যেন উপচে পড়ছে টাঙ্গাইলের ভুঞাপুরে বঙ্গবন্ধু সেতুপূর্ব যমুনা পাড়ে। যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজতর হওয়ায় দূর-দূরান্ত থেকে পরিবার-পরিজন নিয়ে মানুষজন এখানে বেড়াতে আসছেন। শুক্রবার বিকালে সরেজমিনে বঙ্গবন্ধু সেতুপূর্ব যমুনা পাড়ে গিয়ে এমন দৃশ্য দেখা গেছে।

ঢাকার ধামরাই থেকে যমুনার পাড়ে বেড়াতে আসা গোলাম কিবরিয়া জানান, এখানকার পরিবেশ খুব ভাল। সাথে বঙ্গবন্ধু সেতুকে খুব কাছ থেকে দেখছি। রাতের বেলায় বেশি সু্ন্দর লাগে সেতুটি। যেহেতু প্রচুর মানুষ এখানে আসে সেহেতু এটাকে পর্যটন হিসেবে গড়ে তোলা উচিত।

সিরাজগঞ্জ সদর থেকে আসা আবু তালেব জানান, পরিবারের সবাইকে নিয়ে এসেছি। খুব ভাল লাগছে। নৌকা নিয়ে সেতুর নিচ দিয়ে ঘুরেছি। যাতায়াত ব্যবস্থা ভাল তাই এখানে আসছি বেড়াতে।

গাজীপুরের কালিয়াকুর থেকে আসা সিদ্দিকুর রহমান জানান, গাজীপুর থেকে সরাসরি বঙ্গবন্ধু সেতুপূর্ব গোলচত্ত্বরে এসে নেমে পরে ভ্যানযোগে যমুনার পাড়ে আসছি। পরিবেশগতভাবে খুব ভাল লেগেছে। যমুনার পাড়ে অস্থায়ী নাগরদোলায় উঠেছি। একদিকে যমুনা নদী অন্যদিকে বঙ্গবন্ধু সেতু। সব মিলিয়ে অসাধারণ লেগেছে।

আলতাদিঘীতে ভ্রমণ পিপাসুদের উপচেপড়া ভিড়

নওগাঁর ধামইরহাটের ঐতিহ্যবাহী আলতাদিঘী জাতীয় উদ্যানে ভ্রমণ পিপাসুদের উপচেপড়া ভীড় লক্ষ্য করা গেছে। আলতাদিঘী ও দু’শত বছরের পুরাতন শালবনের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দেখার জন্য দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে হাজার হাজার দর্শনার্থীদের আগমন ঘটেছে।

ধামইরহাটের পার্শ্ববতী পত্নীতলা উপজেলার ভ্রমণ পিপাসু মনিরুজ্জামান চৌধুরী মিলন বলেন, বন এলাকায় দূরের যাত্রীদের জন্য একটি রেস্ট হাউজের ব্যবস্থা দরকার।

ধামইরহাট বনবিট কর্মকর্তা লক্ষণ চন্দ্র ভৌমিক বলেন, এবার ঈদের ছুটিতে দেশের বিভিন্ন স্থানে থেকে বিনোদন ও ভ্রমণ পিপাসু হাজার হাজার মানুষ বাস, মাইক্রোবাস, ইজিবাইক, প্রায়ভেট কার, ভটভটি, টেম্পু ও ভ্যান যোগে এসে এ বনের সৌন্দর্য উপভোগ করছে।

বেড়া নৌবন্দরে দর্শনার্থীদের ভিড়

জমে উঠেছে পাবনার বেড়া উপজেলার বড়ালের তীরে গড়ে ওঠা নৌবন্দর। এ যেন কোন সমুদ্রবন্দর! প্রতিদিন হাজার হাজার দর্শনার্থী পরিবার পরিজন নিয়ে সময় কাটাতে বেছে নিয়েছে এই স্থান। শুধু বেড়া উপজেলা নয় আশেপাশের সব উপজেলা থেকেও এখানে বেড়াতে আসছে অনেকে। মূলত বর্ষার শুরু থেকেই এখানে প্রতিদিন মানুষের ঢল নামতে থাকে। দুপুর গড়িয়ে বিকেল হলেই মানুষের আনাগোণা বাড়তে থাকে। থাকে গভীর রাত পর্যন্ত।

 

 

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৬ আগষ্ট, ২০২১ ইং
ফজর৪:২০
যোহর১২:০১
আসর৪:৩৩
মাগরিব৬:২৬
এশা৭:৪১
সূর্যোদয় - ৫:৩৮সূর্যাস্ত - ০৬:২১
পড়ুন