কুরআনের ইতিহাস নিয়ে নতুন প্রপাগান্ডা
আবদুল্লাহ আল মামুন০২ অক্টোবর, ২০১৫ ইং
কুরআনের ইতিহাস নিয়ে নতুন প্রপাগান্ডা
স ম্প্রতি বার্মিংহাম বিশ্বদ্যািলয়ের ক্যাডবুরী রিসার্চ লাইব্রেরীতে বিশ্বের প্রাচীনতম কুরআনের পাণ্ডুলিপি পাওয়ার ঘোষণা বিশ্বে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। বার্মিংহাম বিশ্বদ্যািলয়ের ক্যাডবুরী রিসার্চ লাইব্রেরীতে দুটো পার্চমেন্ট পাতায় লেখা কুরআনের এই খণ্ডাংশে ১৮ থেকে ২০ নং সূরার কিছু অংশ লিপিবদ্ধ রয়েছে। ইতিমধ্যে কার্বন ডেটিং পদ্ধতি ব্যবহার করে পশুর চামড়া থেকে তৈরি পার্চমেন্ট পাতায় লেখা এই পাণ্ডুলিপির সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। কার্বন ডেটিং পদ্ধতিতে পাওয়া সময়কাল হচ্ছে ৫৬৮ থেকে ৬৪৫ সাল। যার নির্ভুলতা হল ৯৫.৪ শতাংশ। মহানবী (স) এর জীবনকাল হল ৫৭০ থেকে ৬৩০ খৃস্টাব্দ। সেই সূত্র ধরে বার্মিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞদের দৃঢ় ধারণা, আরবি হিজাজি লিপিতে লিখিত এই পাণ্ডুলিপি তাঁর জীবদ্দশায় লেখা হয়েছে। শুধু তাই নয়, বার্মিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর থমাসের মতে, কুরআনের এই পাণ্ডুলিপির লেখক হয়তো রাসুল (স) কে দেখেছেন এবং তাঁর সাহাবাদের একজন ছিলেন। উল্লেখ্য, কার্বন ডেটিং কখনো শতভাগ সঠিক তথ্য দেয় না। আর বার্মিংহামের কার্বন ডেটিং পরীক্ষা কেবল পার্চমেন্ট পাতার উপর করা হয়েছে। যে কালি দিয়ে লেখা হয়েছে তার উপর কার্বন ডেটিং করলে হয়তো আরো নিখুঁত তথ্য পাওয়া যাবে।

বার্মিংহামে পাওয়া কুরআনের এই পাণ্ডুলিপি নিয়ে বৃটিশ টেলিভিশনে মন্তব্য করতে গিয়ে ঐতিহাসিক টম হল্যান্ড দাবি করেছেন, কুরআন নাকি আসলে মহানবী (স) এর জন্মের আগে লেখা (নাউযুবিল্লাহ)। যা পড়ে রীতিমত আক্কেল গুড়ুম হবারই দশা। ইসলামকে কলঙ্কিত করার সুয়োগ পেয়ে স্বাভাবিকভাবেই পাশ্চাত্যের মিডিয়ায় টম হল্যান্ডের এই দাবির স্বপক্ষে রীতিমত প্রচারণার হিড়িক পড়ে গেছে।

কুরআন মহানবীর নবুয়ত প্রাপ্তির সময় কাল অর্থাত্ ৬১০ সাল থেকে মৃত্যুকাল ৬৩২ পর্যন্ত ধারাবাহিকভাবে নাযিল হয়। তাঁর মৃত্যুর দু’বছরের মধ্যে হযরত আবুবকর (রা) কুরআনের প্রাথমিক সংকলনের কাজ শেষ করলেও মূলত ৬৫০ সালের দিকে হযরত ওসমান (র) এর তত্ত্বাবধানে আজকে যে কুরআন আমরা পড়ছি তার কপি সংকলিত হয়। ইয়ামেন, মিসর, ও তুরস্কের তোপকাপি প্রাসাদের মিউজিয়ামে সংরক্ষিত কুরআনের প্রাচীন কপি নিরীক্ষা করে দেখা যায়, হযরত ওসমান (রা) এর সময়কার কুরআনের ভার্সনের সাথে আজকের কুরআনের বড় রকমের কোনো হের ফের নেই। এ নিয়ে ইসলামের কট্টর সমালোচক পশ্চিমা গবেষকদের মধ্যেও কোনো দ্বিমত নেই। তাই হঠাত্ করে টম হল্যান্ডের এই দাবি অসত্ কোনো পরিকল্পনারই ঈঙ্গিত দেয়।

অধিকাংশ মুসলিম স্কলারের মতামত হচ্ছে, কুরআনের বিভিন্ন আয়াত ও অধ্যায়ের বিন্যাস, অনুক্রম কেমন হবে তা মহানবী (স)-ই নির্ধারণ করে দিয়েছেন। পরবর্তীকালে হযরত ওসমান (রা) এর সময়কালে রাসুল (স)-এর নির্ধারিত নিয়মেই পুরো কুরআন সংকলিত হয়। বার্মিংহামে পাওয়া পাণ্ডুলিপিতে লাল কালী দিয়ে অধ্যায়গুলো পৃথক করা হয়েছে। মহানবীর (স) জীবদ্দশায় অধ্যায়গুলোকে আলাদা করার কথা কেউ ভাবেননি। তাই বার্মিংহামের পাতাগুলো যদি মহানবী (স) এর সময়কালের আগে লেখা হয়ে থাকে, তাহলে ওই পৃথকীকরণ চিহ্নগুলো আসলো কিভাবে?

কার্বন ডেটিং পদ্ধতি সাধারণভাবে বয়স নির্ধারণের জন্য একটি সম্ভাব্য সময়কাল (উইন্ডো) দিয়ে থাকে। যেমন বার্মিংহামে প্রাপ্ত কুরআনের খণ্ডাংশ ৫৬৮ থেকে ৬৪৫ সাল অর্থাত্ ৭৭ বছরের সময়কালে মধ্যে লেখা হয়েছে বলে কার্বন ডেটিং পরীক্ষা থেকে নির্ধারণ করা হয়েছে। কিন্তু টম হল্যান্ড বলছেন কুরআনের ওই পাতাগুলো ৭৭ বছরের টাইমফ্রেমের আগের ভাগে অর্থাত্ প্রথম ৪২ (৫৬৮-৬১০) বছরের মধ্যেই লেখা হয়েছে। এতোটা নিশ্চিত তিনি হলেন কিভাবে? অথচ কার্বন ডেটিং-এর সময়কালের শেষ ভাগ অর্থাত্ বাকী ৩৫ বছরের (৬১০-৬৪৫) মধ্যে কুরআন লিখিত হবার সম্ভাবনার কথা কেনো জানি না তিনি বেমালুম এড়িয়ে গেছেন। এর মূল রহস্য হচ্ছে কুরআনের ওই পাতাগুলো যদি ৬১০ থেকে ৬৪৫ সালের মধ্যে লেখা হয়, তাহলে সেটা কুরআন সংকলনের সর্বজন স্বীকৃত ইতিহাসের সাথে মিলে যায়। তাতে টম হল্যান্ডের এজেন্ডা বাস্তবায়ন হয় না। এছাড়া আমরা জানি কুরআনের আয়াতগুলো রাসুল (স) এর নবুয়ত প্রাপ্তির পর দীর্ঘ ২৩ বছর ধরে অবতীর্ণ হয়েছে। রাসুল (স) এর জীবনের অনেক ঘটনা, যুদ্ধের বিবরণ এবং অনেকের নামও কুরআনের বিভিন্ন আয়াতে উল্লেখিত হয়েছে। কুরআন যদি রাসুল (স) এর জন্মের আগেই লিখিত হয়ে থাকে, তাহলে এসবের রেফারেন্স কুরআনে আসলো কিভাবে?

৯/১১ এর পর থেকে টেলিভিশনের পর্দায় এবং মিডিয়ায় বিপুল পরিমাণ সন্ত্রাস বিশেষজ্ঞদের আনাগোনা শুরু হয়। ইসলাম ও মুসলিম সম্পর্কে এসব বিশেষজ্ঞদের ন্যূনতম জ্ঞান না থাকলেও এরা মুসলিমদের ঢালাওভাবে সন্ত্রাসী হিসাবে চিহ্নিত করতে থাকে এবং ইসলাম সম্পর্কে কুত্সা রটনায় ব্যস্ত থাকে। বিশ্বব্যাপী ইসলাম ও মুসলিমদের নিয়ে যে ব্যাপক নেতিবাচক প্রচারণা চলছে, টম হল্যান্ড যেনো সেই চিত্রনাট্যেরই একজন নতুন কুশীলব। কুরআন সম্পর্কে মুসলিম ও পশ্চিমা বিশেষজ্ঞদের সর্বসম্মত মতামতকে উপেক্ষা করে কুরআনের ইতিহাস নিয়ে ভ্রান্ত ধারণা প্রচার করা অন্তত টম হল্যান্ডের মতো একজন মেধাবী ঐতিহাসিকের সাজে না।

লেখক: সিডনি প্রবাসী প্রকৌশলী

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২ অক্টোবর, ২০২০ ইং
ফজর৪:৩৬
যোহর১১:৪৯
আসর৪:০৬
মাগরিব৫:৪৮
এশা৭:০১
সূর্যোদয় - ৫:৫০সূর্যাস্ত - ০৫:৪৩
পড়ুন