সা ক্ষা ত্ কা র
কর্মসংস্থানমুখী প্রবৃদ্ধি অর্জনে ‘উদ্যোক্তা অর্থনীতি’
০৬ অক্টোবর, ২০১৮ ইং
কর্মসংস্থানমুখী প্রবৃদ্ধি অর্জনে ‘উদ্যোক্তা অর্থনীতি’

প্রফেসর ড. মুহম্মদ মাহবুব আলী

দেশে ‘উদ্যোক্তা অর্থনীতি’র বিকাশ সাধনে কাজ করছেন প্রফেসর ড. মুহম্মদ মাহবুব আলী। দেশে উদ্যোক্তা তৈরির জন্য এক তাত্ত্বিক ও প্রায়োগিত দিক সম্বলিত উচ্চতর গবেষণা পরিচালনা করছেন তিনি। বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো এই উদ্যোগ শুরু ও প্রাসঙ্গিক বিষয় আলাপচারিতার কিছু অংশ এখানে তুলে ধরা হলো। ‘উদ্যোক্তা অর্থনীতি’ শব্দটির অর্থ হচ্ছে উদ্যোক্তা কর্মকাণ্ডের সম্প্রসারণের জন্যে মনস্তাত্ত্বিকভাবে প্রস্তুত হওয়া। নতুন পুরোনো ভাবনা-চিন্তাকে একই সূত্রে গেঁথে অর্থনৈতিক উন্নয়নের মাধ্যমে স্বাবলম্বী ও কর্মোদ্যোগী মানবসম্পদ তৈরিকরত দেশের জাতীয় অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও মৌলিক চাহিদাগুলোকে পূরণ করার ক্ষেত্রে কাজ করা। অন্যদিকে উদ্যোক্তা উন্নয়ন শব্দটি সংকীর্ণ অর্থে ব্যবহূত হয় যার মাধ্যমে উন্নয়নের কর্মাবলিতে সম্পৃক্তকরণ করা হয়। তবে উদ্যোক্তা অর্থনীতি আরো বৃহত্তর পরিসরে আমাদের দেশের মানুষকে অর্থনৈতিক মুক্তি যোগাতে, সহায়তা করতে, উদ্যোক্তা তৈরি করতে অবশ্যই অর্থের যোগান ও ঝুঁকি দরকার।

‘উদ্যোক্তা অর্থনীতি’র জন্যে পাঠ্যক্রমের প্রয়োজন আছে কি? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, যখন আমরা টেকনো উদ্যোক্তার কথা বলি তখন অবশ্যই পাঠ্যক্রমের দরকার আছে। একটি নির্দিষ্ট পাঠ্যক্রমের আওতায় এমনভাবে মানবসম্পদ তৈরি করা যাতে দেশের অভ্যন্তরে উদ্ভাবনী ও ধীশক্তির বিকাশ সাধন করে। ভাবনা-চিন্তায় ব্যক্তিগতভাবে না ভেবে সামষ্টিক অর্থে দেশের উন্নয়ন এবং স্বাবলম্বী করে তোলার জন্যে ঢাকা স্কুল অব ইকোনোমিক্সে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অঙ্গীভূত প্রতিষ্ঠান হিসাবে উদ্যোক্তা অর্থনীতিতে মাস্টার্স প্রোগ্রাম চালু করা হয়েছে।

হঠাত্ করে ‘উদ্যোক্তা অর্থনীতি’ পাঠ্যক্রমকে ছড়িয়ে দেয়ার ইচ্ছে হলো কেন? জানতে চাইলে মুহম্মদ মাহবুব আলী বলেন, একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে উদ্যোক্তা উন্নয়নের অভিপ্রায়ে সমন্বয়ক হিসাবে কাজ করতে গিয়ে দেখি সম্ভাবনার মাঝেও নানা প্রতিবন্ধকতা। থাইল্যান্ডের নারসিয়ান বিশ্ববিদ্যালয়ে যখন ‘উদ্যোক্তা ব্যবস্থাপনার’ উপর পোস্ট ডক্টরেট করতে যাই তখন ডীন ও সুপারভাইজার আমাকে জিজ্ঞেস করেছিল— তুমি কেন এ বিষয়ে কাজ করতে চাও? আমার সোজা-সাপটা উত্তর ছিল- সরকার প্রধান দেশের উন্নয়নে বৃহত্তর পরিসরে উদ্যোক্তা তৈরি করতে চাচ্ছেন। আর এ কারণেই উদ্যোক্তা তৈরির পাঠ্যক্রম নিয়ে কাজ করে চলেছি। প্রতিটি মানুষের ভেতর যে সুকোমল প্রবৃত্তি, ধীশক্তি রয়েছে, নানা পর্যায়ে থেকে উদ্ভাবনী শক্তির বিকাশ ঘটাতে উদ্যোক্তা অর্থনীতির বিকাশ সাধন দরকার। ‘উদ্যোক্তা অর্থনীতি’র মাস্টার্স প্রোগ্রাম চালুর সময় যখন ড. কাজী খলীকুজ্জামান আহমদ স্যারের সাথে আলাপ করলাম তখন সাথে সাথে মাস্টার্সের জন্যে রাজি হয়ে গেলেন। তাঁর উত্সাহেই প্রস্তাবনা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠালে তারা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে অনুমোদন দিয়েছে। তবে ‘উদ্যোক্তা অর্থনীতি’-র বিকাশ সাধন করার জন্যে কি করা দরকার জানতে চাইলে মুহম্মদ মাহবুব আলী বলেন, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের বাংলা বইতে একটি করে প্রবন্ধ উদ্যোক্তা অর্থনীতির উপর লিখে পাঠ্য তালিকাভুক্ত করা প্রয়োজন। আবার সরকারের কাছে আবেদন থাকবে, একটি নির্দিষ্ট দিনকে উদ্যোক্তা পালন দিবস হিসাবে ঘোষণা করে তা পালনের ব্যবস্থা করা। সরকার যে স্কীলড এনহান্সমেন্টের জন্যে বহুবিধ প্রোগ্রাম গ্রহণ করেছেন তাতে যারা উদ্যোক্তা অর্থনীতিতে মাস্টার্স পাস করবে তাদেরকে প্রশিক্ষক হিসাবে নিযুক্ত করা দরকার। এদিকে পলিটেকনিকগুলোতেও উদ্যোক্তা অর্থনীতি পাঠ ও পঠনের জন্যে উপযুক্ত প্রশিক্ষক দরকার। এজন্যে এ পাঠ্যক্রমকে ছড়িয়ে দিতে হবে। কেবল পাঠ্যক্রম নয়, সাথে থাকতে হবে অর্থনৈতিক ইনকিউবেটর, বিভিন্ন অঞ্চলে যে সমস্ত সামাজিক উদ্ভাবন ঘটছে— সেগুলোর জন্যে ফিল্ড ট্রিপের ব্যবস্থা করা, ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্যে কেইস স্টাডি এবং স্ট্র্যাটেজিক এনালাইসিসের ব্যবস্থা করা ও ট্রি-স্ট্রাকচার সহ সরবরাহজনিত অর্থনীতি, বিহেভিয়ারিয়াল অর্থনীতি, উদ্ভাবন ও অনুসন্ধানমূলক মনস্তত্ত্ব তৈরি করা জরুরি। গ্রামীণ এলাকায় ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা তৈরি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, গ্রামীণ এলাকায় অপ্রাতিষ্ঠানিক কাঠামোয় ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা তৈরি হচ্ছে। এখানে জরুরি এবং নারীর অংশগ্রহণ আরো বেশি সংখ্যক করতে প্রয়োজনীয় প্রণোদান দিতে হবে।

সাক্ষাত্কার গ্রহণ: জামাল উদ্দীন

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৬ অক্টোবর, ২০২১ ইং
ফজর৪:৩৬
যোহর১১:৪৭
আসর৪:০৩
মাগরিব৫:৪৫
এশা৬:৫৬
সূর্যোদয় - ৫:৫১সূর্যাস্ত - ০৫:৪০
পড়ুন