‘ডিজিটাল প্লাটফর্ম আমাদের ভবিষ্যত্ বাজার’
‘ডিজিটাল প্লাটফর্ম আমাদের ভবিষ্যত্ বাজার’

নির্মাতা আফজাল হোসেন মুন্না। সম্প্রতি নারী নির্যাতন বিষয়ক একটি শর্টফিল্ম নির্মাণ করেছেন তিনি। এক সময় টেলিফিল্ম নিয়ে ব্যস্ত থাকা এই নির্মাতা এখন ব্যস্ত আছেন তার প্রথম চলচ্চিত্র নিয়ে। যদিও এখনো কিছু চূড়ান্ত হয়নি। এসব প্রসঙ্গ ও দেশের বর্তমান ডিজিটাল প্লাটফর্ম নিয়ে কথা বলেছেন বিনোদন প্রতিদিনের সাথে। সাক্ষাত্কার নিয়েছেন মোস্তফিজ মিঠু

সম্প্রতি আপনার একটি শর্টফিল্মের পোস্টার অনলাইনে সাড়া ফেলেছে। এ প্রসঙ্গে শুরুতে জানতে চাই—

‘দ্য ওল্ডম্যান অ্যান্ড দ্য গার্ল’ শিরোনামে শর্টফিল্মটির কাজ সম্প্রতি আমরা শেষ করেছি। নারী নির্যাতনের বিষয়টি ইদানিং বেশ আলোচনায় এসেছে। এই বিষয়টি শর্টফিল্মের মাধ্যমে তুলে ধরার জন্য একটি চ্যালেঞ্জ আমি করেছিলাম। অনেকটা ‘আইস চ্যালেঞ্জ’-এর মতো। আমরা কয়েকজন নির্মাতা একজন আরেকজনকে চ্যালেঞ্জ করেছি এবং সেটি গ্রহণ করে সবাই একটি করে এই বিষয়ে শর্টফিল্ম তৈরি করবে। আমারটা নির্মিত হয়েছে, বাকিরাও করছেন।

কবে নাগাদ শর্টফিল্মটি মুক্তি পাবে এবং আপনারা কতজন এটি নিয়ে কাজ করছেন?

মোট ১২টি শর্টফিল্ম নির্মাণ করা হবে। তবে কবে মুক্তি পাবে এমনটা এখন বলতে পারছি না। কারণ সবগুলো শর্টফিল্ম নির্মিত হলে একসাথে মুক্তি দেওয়া হবে। সবগুলো শর্টফিল্ম ডিজিটালি মুক্তি দেওয়া হবে। তবে এখানে আমি বাণিজ্যিক চিন্তা  করছি না, বাণিজ্যিকভাবে রিলিজের দিকেও হয়তো যাবো না। বাকিরা কিভাবে মুক্তি দেবেন সেটা যে যার মতো করে ভাববেন।

আপনি বাণিজ্যিক চিন্তার বাইরে যাচ্ছেন কেন?

শর্টফিল্মটি আমি বাণিজ্যিকভাবে নির্মাণ করিনি। যে যার জায়গা থেকে আমরা একসাথে কাজ করেছি। এটি মূল কারণ। তাই এটি বাণিজ্যিক দিকে যাওয়াটা উচিত হবে মনে করি না। তবে যদিও হয় সেটি সুষ্ঠুভাবে হবে।

অনেকদিন চলচ্চিত্র নিয়ে পরিকল্পনা করছেন। কতদূর এগুলেন?

মূল সমস্যা প্রযোজক। আমাদের পেশাদার প্রযোজকের অভাবটা আমি অনুভব করি। তবে ছবি নির্মাণের কাজ নিয়েই আমি এখন ব্যস্ত আছি। লোকেশন দেখছি। কাস্টিং নিয়ে ভাবছি। চূড়ান্ত কিছু শিগগিরই জানাতে পারবো।

প্রযোজক না পেলে নির্মাণ কি তাহলে বন্ধ থাকবে, নাকি বিকল্প কোনো পরিকল্পনা করছেন?

বিকল্প পরিকল্পনাটাই আমি করছি। প্রি-প্রোডাকশনের কাজ শেষ হওয়ার পর প্রযোজক না পেলে এটি আমি এবং আমার টিম মিলেই তৈরি করবো। অনেকটা নিজস্ব খরচে করার মতো। দেশের বাইরে আমার অনেক বন্ধু আছে, যারা ছবিটির সাথে সম্পৃক্ত হতে আগ্রহী। এভাবে সবাই মিলে আশা করি ছবিটি নির্মাণ করতে পারবো।

চলচ্চিত্রের এখনকার বাজারে ছবি নির্মাণ করে বাণিজ্যিকভাবে কতটুকু লাভজনক অবস্থায় যেতে পারবেন মনে করেন?

ছবি নির্মাণের আগে বাণিজ্যিক বিষয়েও একটি পরিকল্পনা আমার থাকবে। একটি ছবি মুক্তির পর হল থেকে, ডিজিটাল প্লাটফর্ম থেকে কত টাকা আসবে সেটির একটি হিসেব করেই আমরা নির্মাণে নামবো।

ইদানিং ওয়েব সিরিজের সংখ্যা বাড়ছে। এটির ভবিষ্যত্ কতটুকু ইতিবাচক মনে করছেন?

ডিজিটাল প্লাটফর্ম আমাদের ভবিষ্যত্ বাজার। দর্শকরাও ধীরে ধীরে সেদিকে ঝুঁকছেন। এটি খুব ইতিবাচক আমি মনে করি। তবে এটি আমরা কতটুকু ইতিবাচক হিসেবে গড়ে তুলবো এটি নিয়ে আমাদের ভাবা প্রয়োজন। কারণ জনপ্রিয়তার জন্য অশ্লীলতার মতো বিষয়কে আমরা প্রাধান্য দিচ্ছি। এ বিষয়টিতে আমার মনে হয় নজর দেওয়া খুব প্রয়োজন।

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৪ জুন, ২০১৯ ইং
ফজর৩:৪৪
যোহর১১:৫৭
আসর৪:৩৭
মাগরিব৬:৪৬
এশা৮:০৯
সূর্যোদয় - ৫:১০সূর্যাস্ত - ০৬:৪১
পড়ুন