ঘুম ভেঙেছে ইসির
ত্রাস সৃষ্টির অভিযোগে ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যানকে বরখাস্তের সুপারিশ  উপজেলার সবকটি ইউপির তফসিল বাতিল  পরশুরামে মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় একদিন বাড়ল  দ্বিতীয়ধাপেও মনোনয়নপত্র দাখিলে বাধা ও অগ্নিসংযোগ
ঘুম ভেঙেছে ইসির
ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের প্রথমধাপে মনোনয়নপত্র দাখিলের বাধা-বিপত্তির ঘটনায় নির্বাচন কমিশন (ইসি) নির্লিপ্ত থাকলেও দ্বিতীয়ধাপে এসে ঘুম ভেঙেছে তাদের। যেসব স্থানে মনোনয়নপত্র দাখিলে বাধা এবং ত্রাস সৃষ্টির ঘটনা ঘটেছে তার বিরুদ্ধে গতকাল ইসিকে বেশকিছু কঠোর পদক্ষেপ নিতে দেখা গেছে। ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল আলিম নির্বাচনী কর্মকর্তাকে তার তালিকার বাইরে মনোনয়নপত্র ক্রয় ও জমা না নিতে নির্দেশ দিয়েছিলেন। এ নিয়ে ওখানে ত্রাসও সৃষ্টি করা হয়। খোদ নির্বাচনী কর্মকর্তা বিষয়টি ইসিকে অবহিত করেন। এটিসহ আরো কিছু অভিযোগে কমিশনের বৈঠকে ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যানকে সাময়িক বরখাস্তের সুপারিশ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ফুলগাজীর পাশের উপজেলা পরশুরামেও মনোনয়নপত্র দাখিলে বাধাদান এবং আগের রাতে সম্ভাব্য প্রার্থীদের বাড়িতে গিয়ে হুমকি দিয়েছে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকরা। এসব ঘটনায় কমিশন পরশুরামের মনোনয়নপত্র দাখিলের সময়সীমা একদিন বর্ধিত করেছে। ফলে পরশুরামে নির্বাচনে অংশগ্রহণেচ্ছু প্রার্থীরা আজও মনোনয়নপত্র দাখিলের সুযোগ পাবেন।

কিন্তু সেখানে ভীতিকর পরিবেশ বিরাজ করায় অনেকে মনোনয়ন দাখিলের সাহস পাচ্ছেন না। দ্বিতীয় ধাপে এসে দু’টিস্থানে মনোনয়নপত্র দাখিলের সুযোগ দিয়েছিল ইসি। কিন্তু দেখা গেছে, কোনো কোনো স্থানে মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার এ দু’টি কেন্দ্র সরকার সমর্থকরা দখল করে রেখেছিল। তাদের নজরদারি ও পাহারা উপেক্ষা করে অনেকে মনোনয়নপত্র দাখিল করতে পারেননি। এসব কাজে সরকার সমর্থকদের স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনকেও সহায়তা করতে দেখা গেছে। অভিযোগ উঠেছে, কোনো কোনো স্থানে মনোনয়নপত্র ছিনতাইয়ের সঙ্গে পুলিশও সহযোগী ছিলো।

দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠেয় ৬৫৩টি ইউপির নির্বাচনের মধ্যে অর্ধশত ইউপিতে মনোনয়নপত্র দাখিলে বাধাদানের ঘটনার খবর পাওয়া গেছে। চট্টগ্রামের মিরেরসরাই বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থী ইউসুফ মিয়ার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভাংচুর করে তালা লাগিয়ে দিয়েছে তার প্রতিপক্ষরা। তার ব্যবহূত মোটরসাইকেলে অগ্নিসংযোগ এবং বাড়িতে গিয়ে স্ত্রীকে হুমকি দেয়ার অভিযাগ পাওয়া গেছে। বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জে বিএনপির প্রার্থীর উপর হামলা হয়েছে। যশোরে চুড়ামনকাঠি ইউপিতে বিএনপির প্রার্থী আব্দুর ছাত্তারকে সন্ত্রাসীরা অবরুদ্ধ করে রাখে। পরে পুলিশ এসে তাকে উদ্ধার করে নিয়ে যায়। এছাড়া হৈবতপুর, কাশিমপুর, রামনগর, লেবুতলা ও ইছালী ইউপিতে বিএনপির প্রার্থীদের মনোনয়ন জমায় বাধা ও হুমকি দেয়া হয়।

যশোর পুলিশের প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘মঙ্গলবার রাতে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীদের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে কিছু ব্যক্তি প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে মনোনয়নপত্র দাখিল করতে নিষেধ করেছে। কাশিমপুর ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী শামীম অভিযোগ করেছেন, সন্ত্রাসীদের হুমকির কারণে তিনি নিজেই মনোনয়নপত্র জমা দেননি। গোপনে তারপক্ষে ছেলে মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে ফেরার পথে সন্ত্রাসীরা তাকে মারধর করেছে। যশোর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাবেরুল হক সাবু ইত্তেফাককে বলেন, ১৫টি ইউপির মধ্যে ১৩টিতে চেয়ারম্যান আমাদের দলীয়; কিন্তু সংরক্ষিতসহ অন্তত ২০ জন মনোনয়ন জমা দিতে পারেননি।

স্থানীয় সরকার সচিবকে ইসির চিঠি

ইউপি নির্বাচনে প্রভাব বিস্তারের অভিযোগে ফেনীর ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল আলিমকে বরখাস্তের জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে সুপারিশ করেছে নির্বাচন কমিশন। গতকাল রাতে ফ্যাক্সযোগে স্থানীয় সরকার বিভাগ সচিবের কাছে বরখাস্তের সুপারিশের চিঠিটি পাঠানো হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ইসি সচিবালয়ের সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম ইত্তেফাককে বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন। সেই অনুযায়ী স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে চিঠি দেয়া হয়।

ইসি সূত্রে প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, ফুলগাজী উপজেলার চেয়ারম্যান উপজেলার ৫টি ইউপিতে যার যার মনোনয়ন সংগ্রহ ও দাখিল করা যাবে তার একটি তালিকা উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে দেন; কিন্তু ইসির কর্মকর্তা ওই তালিকার বাইরে কিছু ব্যক্তির মনোনয়ন সংগ্রহ ও দাখিলের ব্যবস্থা করেন। এতে ক্ষিপ্ত হন উপজেলা চেয়ারম্যান। পরে নির্বাচন অফিসের এক স্টাফকে লাঞ্ছিত করা হয়। নির্বাচন অফিসে উপজেলা চেয়ারম্যানের অনুসারীরা পাহারা বসান। এঘটনা ইসিতে অবগত করা হলে ক্ষুব্ধ হয় কমিশন। গতকাল সকালে কমিশন দ্বিতীয় ধাপে ফুলগাজী উপজেলার ফুলগাজী, আমজাদহাট, দরবারপুর, জি.এম.হাট, মুন্সিরহাট, আনন্দপুর ইউপির ভোটের তফসিল বাতিল করে। উপজেলা চেয়ারম্যানকে বরখাস্তের সুপারিশ করার সিদ্ধান্ত হয়। একইসঙ্গে নিরাপত্তার কারণে ওই উপজেলার নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ শেখ ফরিদকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে কমিশন। এছাড়া উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মহল থেকে ত্রাস সৃষ্টির অভিযোগ উঠেছে। এ পরিস্থিতিতে ফেনী জেলার পরশুরাম উপজেলার চিখিলা, বক্সমাহমুদ ও মির্জানগর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় একদিন বৃদ্ধি করা হয়েছে অর্থাত্ আগামী কাল ৩ মার্চ পর্যন্ত এ তিন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা দেয়া যাবে।

নির্বাচন কমিশনার মোহাম্মদ আবু হাফিজ ইত্তেফাককে বলেন, ‘সুর্নিদিষ্ট কোনো অভিযোগ এলে কমিশন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। ফুলগাজীর ঘটনায় কমিশন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। 

৪ ইউপির ভোট হচ্ছে না

আলফাডাঙ্গা উপজেলার আলফাডাঙ্গা, বুড়াইচ, গোপালপুর এবং চাঁদপুর সদর উপজেলার লক্ষ্মীপুর মডেল ইউপির নির্বাচনের তফসিল বাতিল করেছে কমিশন। বর্তমানে দ্বিতীয় ধাপে ৬৫৩টি ইউপিতে আগামী ৩১ মার্চ ভোট অনুষ্ঠিত হবে।

আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে বৈঠক আজ

আজ বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে বৈঠক করবে নির্বাচন কমিশন। রাজধানীর আগারগাঁও এনইসি সম্মেলন কক্ষে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) সভাপতিত্বে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। ২০১১ সালের মতো এবারও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য রাখা হবে।

মিরসরাইয়ে প্রার্থীর ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা

মিরসরাই (চট্টগ্রাম) সংবাদদাতা জানান, মিরসরাইয়ের ২ নম্বর হিঙ্গুলী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. ইউসুফ মিয়া প্রকাশ ইউসুফ জমিদারের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে তালা লাগিয়ে দিয়েছে প্রতিপক্ষের লোকজন। এসময় তার ব্যবহূত মোটর সাইকেলে অগ্নিসংযোগও করা হয়। গত মঙ্গলবার রাতে উপজেলার বারইয়ারহাট বাজারে এ হামলার ঘটনা ঘটে। চেয়ারম্যান প্রার্থী ইউসুফ মিয়া অভিযোগ করেন, মঙ্গলবার রাত নয়টার সময় বারইয়ারহাট বাজারে অবস্থিত তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভাংচুর করে তালা লাগিয়ে দেয় আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীর লোকজন। এছাড়া রাত ১২টার সময় জামালপুরে অবস্থিত বাড়িতে গিয়ে খোঁজ করে তাকে (ইউসুফ মিয়া) না পেয়ে তার স্ত্রীকে হুমকি দেয়- মনোনয়নপত্র যেন জমা না দেয়। মনোনয়নপত্র জমা দিলে বাড়ি-ঘরে আগুন দেয়া হবে। বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ইউসুফ জমিদারের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ও মোটর সাইকেলে অগ্নিসংযোগের বিষয়টি অস্বীকার করে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী নাসির উদ্দিন হারুন। 

মেহেন্দিগঞ্জে প্রার্থীর উপর হামলা

বরিশাল অফিস জানায়, রায়পাশা-কড়াপুরের পর এবার মেহেন্দিগঞ্জের ভাসান চরে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীর উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল বুধবার বিকালে ঐ ইউনিয়নের বিএনপি মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী সাইফুল ইসলাম বাবলু চৌধুরীর উপর স্বতন্ত্র (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী) চেয়ারম্যান প্রার্থী মজিবর রহমানের সমর্থক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা জামাল খান দলবল নিয়ে হামলা চালায়। বাবলু চৌধুরী জানান, মনোনয়ন দাখিলের পর থেকেই আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মজিবর ও তার সমর্থক জামাল খান তাকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর জন্য অব্যাহত হুমকি দিয়ে আসছে। গতকাল বিকালে নিজ বাড়ির দরজায় অবস্থানকালে জামাল খান তার ক্যাডার বাহিনী নিয়ে এসে অতর্কিত ভাবে বাবলুর উপর হামলা চালায়।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৩ মার্চ, ২০২১ ইং
ফজর৫:০৪
যোহর১২:১১
আসর৪:২৪
মাগরিব৬:০৫
এশা৭:১৮
সূর্যোদয় - ৬:১৯সূর্যাস্ত - ০৬:০০
পড়ুন