মিতু হত্যার পেছনে রয়েছে দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্র
চট্টগ্রামে আইজিপি শহীদুল হক
চট্টগ্রাম অফিস১৩ জুন, ২০১৬ ইং
মিতু হত্যার পেছনে রয়েছে দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্র
পুলিশ মহাপরিদর্শক একেএম শহীদুল হক চট্টগ্রামে গৃহবধূ মাহমুদা খানম মিতু হত্যার পেছনে দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্র রয়েছে দাবি করে বলেছেন, অতীতে পেট্রোল বোমা মেরে যারা ক্ষমতায় যাওয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছিল তারাই এখন গুপ্তহত্যা চালিয়ে দেশকে অস্থিতিশীল পরিস্থিতিতে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে। তারাই বাংলাদেশে সংখ্যালঘু সম্প্রদায় নিরাপদ নয় বলে বিদেশে প্রচার করছে। আবার তাদের নির্দেশেই দেশে সংখ্যালঘু লোক খুন হচ্ছে। বিএনপি নেতা আসলাম চৌধুরীর দিকে ইঙ্গিত করে আইজিপি বলেন, এরকমই একজন লোক চট্টগ্রামের আসলাম চৌধুরী। তিনি ইসরাইলের গোয়েন্দা সংস্থার সাথে হাত মিলিয়েছেন। সেদেশের রাজনৈতিক দল লিকুদ পার্টির নেতা সাফাদির সঙ্গে হাত মিলিয়ে দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছেন। উগ্রবাদী জঙ্গিগোষ্ঠীর ওপর নির্ভর করে ক্ষমতায় যাওয়ার প্রচেষ্টা তাদের জন্য বুমেরাং হবে।

মিতু হত্যাকাণ্ডে উগ্র জঙ্গিবাদী গোষ্ঠী সম্পৃক্ত রয়েছে বলে ইতিপূর্বে সিএমপির পক্ষ থেকে দাবি করা হলেও বিষয়টি এখনো নিশ্চিত নয় বলে আইজিপি জানান। মিতুর হত্যাকারীরা রেহাই পাবে না উল্লেখ করে তিনি বলেন, পুলিশ সুপার বাবুল আক্তার চট্টগ্রামবাসীর জন্য অনেক কাজ করেছেন। সাহস ও সততার কারণে তিনি চট্টগ্রামের মানুষের কাছে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিলেন। যারা তার স্ত্রীকে বর্বরোচিত কায়দায় খুন করেছে তাদের রেহাই দেয়া হবে না। আমরা খুনিদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনবোই। এই মামলার অগ্রগতি সম্পর্কে তিনি বলেন, দৃশ্যমান অগ্রগতি বলতে দুইজনকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এখনো পর্যন্ত  সুনির্দিষ্ট করে কিছুই বলা যাচ্ছে না। তদন্ত চলছে, তদন্ত শেষে সবকিছু পরিষ্কার হবে। গতকাল রবিবার নগরীর দামপাড়া মেট্রোপলিটন শ্যুটিং ক্লাবে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ আয়োজিত সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইজিপি এসব কথা বলেন। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সিএমপি কমিশনার ইকবাল বাহার।

দেশব্যাপী জঙ্গি বিরোধী সাঁড়াশি অভিযান নিয়ে গ্রেফতার বাণিজ্যের আশঙ্কা করে গণমাধ্যমে বক্তব্য দেয়ায় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মিজানুর রহমানের সমালোচনা করে পুলিশ মহাপরিদর্শক বলেন, সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ছাড়া একটা লোককেও গ্রেফতার করা হয়নি। কোনো নির্দোষ ব্যক্তিকে গ্রেফতার না করার পরিষ্কার নির্দেশ দেয়া আছে। আমি বারবার বলেছি কোনো নিরপরাধ মানুষকে হয়রানি করা হলে আমাকে তথ্য দিন, আমি আমার অফিসারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।  তিনি গণমাধ্যমের সমালোচনা করে বলেন, আমরা দেশব্যাপী অভিযান চালাচ্ছি। ১০ জুন থেকে সাঁড়াশি অভিযান শুরু হয়েছে। ভাল কাজ হচ্ছে। কিছু কিছু পত্রপত্রিকা এটাকে নেতিবাচকভাবে দেখছে। পুলিশ কাজ করলেও সমস্যা, না করলেও সমস্যা। এভাবে যদি পুলিশের সমালোচনা করা হয় তাহলে আমরা যাবো কোথায়? তিনি জঙ্গি দমনে সাধারণ মানুষের সহযোগিতা কামনা করে বলেন, পুলিশের একার পক্ষে জঙ্গি নির্মূল করা সম্ভব নয়। আপনারা তথ্য দিলে গোপনীয়তা রক্ষা করা হবে। সুধী সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দিন, নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরুল আলম চৌধুরী, চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার রহুল আমিন, চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মোঃ শফিকুল ইসলাম, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সভাপতি কলিম সরওয়ার প্রমুখ।

সুধী সমাবেশ শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে এক প্রশ্নের উত্তরে আইজিপি একেএম শহীদুল হক বলেন, দেশে এ পর্যন্ত যত গুপ্তহত্যা হয়েছে, সবকটির সঙ্গেই জেএমবি ও আনসারুল্লাহ বাংলাটিম বা আনসার আল ইসলামের সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১৩ জুন, ২০২১ ইং
ফজর৩:৪৩
যোহর১১:৫৯
আসর৪:৩৯
মাগরিব৬:৪৯
এশা৮:১৪
সূর্যোদয় - ৫:১১সূর্যাস্ত - ০৬:৪৪
পড়ুন