বাংলাদেশের আদলে নৌ পরিবহন সাজাবে পশ্চিমবঙ্গ
কলকাতা প্রতিনিধি১৩ জুন, ২০১৬ ইং
বাংলাদেশকে মডেল করে পশ্চিমবঙ্গের নৌ পরিবহন ও চলাচল ব্যবস্থা সাজানোর নির্দেশ দিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। বাংলাদেশে কীভাবে জলপথ পরিবহন ব্যবস্থা পরিচালনা করা হয় তা দেখতে কিছুদিনের মধ্যে বাংলাদেশে আসতে পারেন পশ্চিমবঙ্গের পরিবহন দপ্তরের কর্মকর্তারা। ?কয়েকদিন আগেই পশ্চিমবঙ্গের নৌ চলাচল ব্যবস্থাকে পরিবহন দপ্তরের আওতায় এনেছেন মমতা।

পশ্চিমবঙ্গের পরিবহন দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, দ্বিতীয়বার পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী হয়ে আরো উদ্যোগী মমতা ব্যানর্জি। এতদিন পশ্চিমবঙ্গে নদীপথে পরিবহন ও যাত্রী চলাচলের ক্ষেত্রে কোনো নিয়ম নীতি ছিল না। যত ইচ্ছা যাত্রী তোলা যেত। নদী ঘাট থেকে ইচ্ছা মতো ফেরি চলাচল করত। এতে দুর্ঘটনাও ঘটত।

পশ্চিমবঙ্গের সব নৌ চলাচল ব্যবস্থাকে পরিবহন দপ্তরের আওতায় আনার পর ঠিক হয়েছে প্রথম ধাপে রাজ্যে বড় বড় যে সব ফেরি চলাচল করে সেগুলোকে পরিবহন দপ্তরের আওতায় এনে পরিকাঠামো উন্নয়ন করা হবে। পরে ছোট জলযানগুলোকেও এর আওতায় আনা হবে। নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে সেগুলো চলাচল করবে। কীভাবে এই জলযান চলাচল হবে, তার ক্ষেত্রে মডেল হবে বাংলাদেশ। এ সংক্রান্ত এক বৈঠকে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্য সচিব বাসুদেব ব্যানার্জি বলেছেন, বাংলাদেশে জলপথ পরিবহন ব্যবস্থা ভালো। তারা কীভাবে জলপথ পরিবহন ব্যবস্থা চালায় সেটিকে মডেল করে এ রাজ্যের জলপথ পরিবহন ব্যবস্থাকে সাজাতে হবে। পাশাপাশি ব্যাঙ্কক শহরের জলপথ পরিবহন ব্যবস্থাও দেখা হবে।

প্রসঙ্গত এখন স্থানীয় প্রশাসনের মাধ্যমে পশ্চিমবঙ্গে ঘাট ইজারা দেওয়া হয়। অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় ইজারাদার বেশি লাভের জন্য অতিরিক্ত ভুটভুটি, নৌকা চলাচলের অনুমতি দিয়ে দেয়। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় যাত্রীরা প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করছেন। অনেক সময় দুর্ঘটনাও ঘটে। বর্ধমানের কালনায়ও এ রকমই ঘটেছিল।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১৩ জুন, ২০২১ ইং
ফজর৩:৪৩
যোহর১১:৫৯
আসর৪:৩৯
মাগরিব৬:৪৯
এশা৮:১৪
সূর্যোদয় - ৫:১১সূর্যাস্ত - ০৬:৪৪
পড়ুন