আটক ‘জঙ্গি’ হাসানই বগুড়ার রিগ্যান
এক বছর ধরে নিখোঁজ ছিল, মাকে জিজ্ঞাসাবাদ
বগুড়া প্রতিনিধি২৭ জুলাই, ২০১৬ ইং
রাজধানীর কল্যাণপুরের ‘জঙ্গি আস্তানায়’ পুলিশের অভিযানকালে আহত অবস্থায় আটক হাসানের প্রকৃত নাম রাকিবুল হাসান ওরফে রিগ্যান। সে এক বছর যাবত্ নিখোঁজ ছিল। তার বাড়ি বগুড়া শহরের জামিলনগর এলাকায়। সে এলাকার মৃত রেজাউল করিমের ছেলে। মা রোকেয়া আকতার বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সিনিয়র নার্স হিসেবে কর্মরত। সম্প্রতি পুলিশের তৈরি করা নিখোঁজদের তালিকাতেও রিগ্যানের নাম  রয়েছে। পরিবারের দাবি, গত বছর এইচএসসি পাস করার পর মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি পরীক্ষা দেয়ার কথা ছিল রিগ্যানের। ২০১৫ সালের ১৪ জুলাই কোচিং এ যাবার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হবার পর আর ফেরেনি। মঙ্গলবার সকালে আহত অবস্থায় রিগ্যান ঢাকায় গ্রেফতারের পর দুপুরে বগুড়া সদর থানা পুলিশ তার মা রোকেয়া আকতারকে থানায় নিয়ে এসে জিজ্ঞাসাবাদ করলে এমন তথ্যই বেরিয়ে আসে।

কথিত হাসান তথা রিগ্যানের  মায়ের ভাষ্য, একমাত্র ছেলে  রিগ্যান ২০১৩ সালে বগুড়া শহরের করতোয়া মাল্টিমিডিয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এসএসসি পাস করে। এরপর ২০১৫ সালে সরকারি শাহ সুলতান কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করে মেডিক্যাল কলেজে ভর্তির উদ্দেশ্যে শহরের রেটিনা কোচিং সেন্টারে ভর্তি হয়। এরপর গত বছরের ১৪ জুলাই কোচিং সেন্টারে যাওয়ার কথা বলে রিগ্যান নিখোঁজ হয়। পরদিন তিনি বগুড়া সদর থানায় ছেলে নিখোঁজ হওয়ায় সাধারণ ডায়েরি  করেন। মায়ের দাবি, ছেলের সঙ্গে গত এক বছর ধরে কোনো যোগাযোগ ছিল না তার। গতকাল দুপুরে বগুড়া সদর থানা থেকে একদল পুলিশ বাসায় গেলে ছেলের বিপথগামী হবার বিষয়টি জানাজানি হয়।

রোকেয়া আকতার জানান, তার চাকরির টাকা দিয়েই সংসার চলে। ২০১২ সালে স্বামী মারা যাওয়ার পর তিনি জামিলনগরে জায়গা কিনে টিনশেড বাড়ি করে বসবাস করেন। ছেলে নিখোঁজ হওয়ার পর জিডির কপি নিয়ে তিনি থানা-পুলিশ থেকে শুরু করে র্যাব ক্যাম্পে একাধিক বার যোগাযোগ করেও ছেলের সন্ধান পাননি।

রিগ্যানের মা আরো জানান, এক ছেলে এক মেয়ে নিয়ে তার সংসার। ছেলে সম্পর্কে তিনি বলেন রিগ্যান খুব ভাল ছেলে ছিল। নিয়মিত নামাজ আদায় করতো, বাইরে ঘোরাফেরা কম করতো। বন্ধু-বান্ধব তেমন একটা ছিল না। বেশিরভাগ সময় পড়াশুনা করেই বাসায় সময় কাটাতো। তবে তার বাসায় একজন ভাড়াটিয়া ছিল।  তার এক ছেলে মোমায়নুল ইসলাম শিহাব এর সাথে মেশার পর থেকেই রিগ্যান বিপথে চলে গেছে বলে তিনি সন্দেহ করছেন। রিগ্যান নিখোঁজ হওয়ার পর ওই ভাড়াটিয়ার ছেলেও নিখোঁজ হয় এবং এর কিছুদিন পর ওই ভাড়াটিয়া বাসা ছেড়ে চলে যায়।

রিগ্যানদের প্রতিবেশি জহুরুল, শাহাদত্ ও রেজা জানান, রিগ্যান এভাবে বিপথগামী হবে এটি এলাকার কেউ ধারণাও করেনি। প্রায় এক বছর ধরে তাকে কোথাও দেখা যায়নি ।

বগুড়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল বাসার বলেন, রাকিবুল হাসান ওরফে রিগ্যানের মাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে দুপুরের দিকে থানায় নেওয়া হয়েছিল। ছেলের পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পর তাকে  ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৭ জুলাই, ২০২১ ইং
ফজর৪:০২
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৪৭
এশা৮:০৮
সূর্যোদয় - ৫:২৫সূর্যাস্ত - ০৬:৪২
পড়ুন