সংবাদপত্রে কর অব্যাহতির দাবি নোয়াবের
ইত্তেফাক রিপোর্ট০৫ এপ্রিল, ২০১৮ ইং
সংবাদপত্রে কর অব্যাহতির দাবি নোয়াবের

সংবাদপত্র শিল্প ধীরে ধীরে রুগ্ন শিল্পে পরিণত হচ্ছে উল্লেখ করে সেবা শিল্প বিবেচনা করে এ খাতে বিদ্যমান শুল্ক-কর অব্যাহতির দাবি জানিয়েছে সংবাদপত্র মালিকদের সংগঠন নোয়াব। গতকাল বুধবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় রাজস্ব ভবনে সংবাদপত্র ও টেলিভিশন চ্যানেল মালিকদের দুটি সংগঠনের সঙ্গে আয়োজিত প্রাক বাজেট আলোচনায় সংগঠনের সভাপতি ও প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান এ দাবি জানান। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) আয়োজিত ওই সভায় সভাপতিত্ব করেন এনবিআর চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভুঁইয়া।

সভায় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য বিষয়ক উপদেষ্টা ও ডেইলি অবজারভার সম্পাদক ইকবাল সোবহান চৌধুরী, অ্যাসোসিয়েশন অব টিভি চ্যানেল ওনার্স (অ্যাটকো) সভাপতি ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর বেসরকারি খাত উন্নয়ন বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমানসহ নোয়াব ও অ্যাটকোর সিনিয়র নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনায় অংশ নিয়ে মতিউর রহমান সংবাদপত্র শিল্পের বিদ্যমান বিভিন্ন সমস্যা তুলে ধরে বলেন, টেলিভিশন ও অনলাইন মিডিয়ার কারণে সংবাদপত্রের পাঠক কমছে। গত কয়েক বছর ধরে প্রতি বছর গড়ে ৫ থেকে ১০ শতাংশ পাঠক হারাচ্ছে সংবাদপত্র। ফলে বিজ্ঞাপন কমছে। কিন্তু ব্যয় বাড়ছে। ৩ মাসে কাগজের দাম টনপ্রতি ১শ’ ডলার থেকে বেড়ে ১৫০ ডলার হয়েছে। ধীরে ধীরে এই শিল্প রুগ্ন শিল্পে পরিণত হচ্ছে।

বর্তমানে সংবাদপত্রের নিউজপ্রিন্ট আমদানিতে ৫ শতাংশ শুল্ক, ১৫ শতাংশ ভ্যাট (মূল্য সংযোজন কর), কর্পোরেট কর ৩৫ শতাংশ ছাড়াও অগ্রিম আয়কর রয়েছে। মতিউর রহমান বলেন, বিজ্ঞাপনের বিলের উপর অগ্রিম কর কর্তনের সনদ আমরা পাইনা। ফলে ওই টাকা আমাদের পরিশোধ করতে হয়। ২০১৬ সালে তার সংবাদপত্রকে এ জন্য ৫০ লাখ টাকা পরিশোধ করতে হয়েছে। অন্যদিকে সরকার ই-টেন্ডারে যাওয়ায় বড় অঙ্কের বিজ্ঞাপন হারাচ্ছে সংবাদপত্র। এসময় সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুক, ইউটিউবকে নিবন্ধনের মাধ্যমে করের আওতায় আনার দাবিও জানান তিনি।

সালমান এফ রহমান বলেন, সংবাদপত্র শিল্প ধীরে ধীরে মারা যাচ্ছে। মনে হয় করমুক্ত করে দেওয়া দরকার। এ সময় রপ্তানি খাতকে গুরুত্ব দিয়ে আগামী বাজেট প্রণয়নের প্রস্তাবও দেন তিনি।

ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনাম সংবাদপত্রের কর্মীদের বাড়িভাড়া ভাতার পুরো ব্যয় অনুমোদনযোগ্য ব্যয় হিসেবে ঘোষণা করার দাবি জানান। একই সঙ্গে কর্মীর আয়কর মালিকপক্ষ কর্তৃক পরিশোধের বিধানও বেআইনি বলে উল্লেখ করেন তিনি। এ বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে সংবাদপত্র শিল্পের কর্মীদের বাড়িভাড়া ভাতার পুরো অর্থ অনুমোদনযোগ্য খরচ হিসেবে বিবেচনা করার আশ্বাস দেন এনবিআর চেয়ারম্যান।

ইকবাল সোবহান চৌধুরী করদাতাদের প্রণোদনা দেওয়ার প্রস্তাব দিয়ে বলেন, এটি বাস্তবায়ন করা গেলে আয়কর নীতিতে একটি মাইলফলক হয়ে থাকবে। আলোচনায় টিভি মালিকদের পক্ষ থেকেও বিভিন্ন দাবি তুলে ধরেন অ্যাটকোর সহ-সভাপতি মোজাম্মেল বাবু। এ সময় এনবিআরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৫ এপ্রিল, ২০২১ ইং
ফজর৪:৩০
যোহর১২:০২
আসর৪:৩০
মাগরিব৬:১৯
এশা৭:৩২
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৬:১৪
পড়ুন