ফরিদপুরে কৃষক লীগের দুই গ্রুপে সংঘর্ষ
গুলিতে নিহত-১, আহত ১০
উপজেলার পরমেশ্বরদী ইউনিয়নের জয়পাশা গ্রামে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে কৃষক লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে গুলিতে গতকাল শুক্রবার সৈয়দ নাজিম উদ্দিন (১৮) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। নাজিম উদ্দিন ওই গ্রামের কৃষক ইদ্রিস আলীর বড় ছেলে। আহত হয়েছে কমপক্ষে ১০ জন। এক পক্ষের ৫টি বাড়ি ভাঙচুর ও লুটপাট হয়েছে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ফরিদপুর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

স্থানীয় এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার রাতে ধুলজোড়া গ্রামে আমজাদ হোসেনের নাতির খাতনা অনুষ্ঠানে উচ্চৈশব্দে গানবাজনাকে কেন্দ্র করে এ সংঘর্ষের সুত্রপাত হয়। আমজাদ হোসেনের বাড়ির অনুষ্ঠানে উপজেলা কৃষক লীগের সদস্য মোঃ সাইদ শেখের সমর্থক শওকত আলীর ছেলে রোমান (১০) ও উপজেলা কৃষক লীগের আহ্বায়ক      সৈয়দ আব্দুর রহমান বাশার সমর্থক শাহিদ মোল্লার ছেলে সাত্তার (১২) এর মধ্যে হাতাহাতি হয়। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান নূরুল আলম মিনা রাতেই মীমাংসা করে দেন।

এ ব্যাপারে নিহতের নিকটাত্মীয় সৈয়দ রহমত আলী বলেন, ঘটনার দিন সকাল ৭টার দিকে প্রতিবেশী সাইদ মেম্বারের সমর্থক সৈয়দ মিরাজ আলীর ছেলে ইমামুলকে (১৬) প্রাইভেট পড়তে যাওয়ার সময় সৈয়দ আব্দুর রহমান বাশারের সমর্থক রবিউল ও রাকিব হাতুড়ি দিয়ে মাথায় আঘাত করে। পরে সাইদ ও বাশারের সমর্থকরা দেশিয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। একপর্যায়ে সাইদের সমর্থকরা বাশারের বাড়ির দিকে অগ্রসর হলে বাশারের বাড়ির ভেতর থেকে লাইসেন্স করা বন্দুক দিয়ে গুলি ছোড়া হয়। এ সময় নাজিম উদ্দিনের কপালে গুলি লাগে। গুরুতর আহত অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনার পথে তার মৃত্যু হয়। গুলিতে আহত ইমন, রাসেল, কুতুব উদ্দিন, সৈয়দ মেজবাহ আলীকে ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। এদের মধ্যে ইমনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

থানার ওসি (তদন্ত) শহিদুল ইসলাম বলেন, গ্রামে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটেছে। বন্দুকটি জব্দ করা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে দুটি গুলির খোসা উদ্ধার করা হয়। মামলা হলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৬ অক্টোবর, ২০২১ ইং
ফজর৪:৩৬
যোহর১১:৪৭
আসর৪:০৩
মাগরিব৫:৪৫
এশা৬:৫৬
সূর্যোদয় - ৫:৫১সূর্যাস্ত - ০৫:৪০
পড়ুন