সাহিত্য বিশ্ব
০৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৫ ইং
গ্রন্থনা ও অনুবাদ :তুহিন সাইফুল

গোয়েন্দা নজরদারিতে ছিলেন নোবেলজয়ী লেখিকা ডরিস লেসিং!

নোবেল পুরস্কার বিজয়ী ব্রিটিশ লেখিকা ডরিস লেসিং জীবনের গুরুত্বপূর্ণ কিছু সময় গোয়েন্দা নজরদারিতে ছিলেন। সম্প্রতি প্রকাশিত কিছু গোয়েন্দা নথিপত্র থেকে বেরিয়ে এসেছে এমন সব চাঞ্চল্যকর তথ্য। মার্ক্সীয় দর্শনে বিশ্বাস ও  সাম্প্রদায়িক বৈষম্য বিরোধী কর্যক্রমের জন্য প্রায় ২০ বছর তাঁর গতিবিধির উপর তীক্ষ দৃষ্টি রাখে ব্রিটিশ গোয়েন্দারা।

ঔপনেবেশিক শাসনের শেষ দিকে দক্ষিণ রোডেশিয়ায় ১৯৪৩ সাল থেকে লেসিং-এর উপর শুরু হয় নজরদারি। পরবর্তী সময়ে আফ্রিকা থেকে ব্রিটেন, ১৯৬৪ সাল পর্যন্ত গোপনে অনুসরণ করা হয় তাঁকে। লেসিং-এর উপর নজরদারির চাঞ্চল্যকর সব তথ্য যুক্তরাজ্যের আভ্যন্তরীণ গোয়েন্দা সংস্থা ‘এমআই ১৫’ সম্প্রতি পাঁচ খণ্ডে প্রকাশ করে। যা তাদের জাতীয় সংগ্রহশালায় উন্মুক্ত রাখা হয়েছে সে দেশের জনসাধারণের জন্য। ১৯১৯ সালে জন্ম নেয়া ডরিস বিখ্যাত হয়ে আছেন ‘দ্য গোল্ডেন নোটবুক’ উপন্যাসটির জন্য। ১৯৬০ সালে প্রকাশিত এই উপন্যাস পরবর্তী সময়ে তাঁর নোবেল প্রাপ্তিতেও গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে। অবশ্য ২০০৭ সালে নোবেল প্রাপ্তির ছয় বছর পরেই ২০১৩ সালে ৯৪ বছর বয়সে মারা যান তিনি। ‘দ্য গ্রাস ইজ সিঙ্গিং’, ‘দ্য গুড টেরোরিস্ট’ ডরিসের উল্লেখযোগ্য আরও দুটো উপন্যাস। 

 

 

এরদাল ওজ সাহিত্য পুরস্কার জিতলেন ওরহান পামুক

 

নোবেল পুরস্কার বিজয়ী তুর্কি ঔপন্যাসিক ওরহার পামুক ‘এরদাল ওজ’ সাহিত্য পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছেন। সাত সদস্যের পুরস্কার কমিটি সোমবার এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এই খবর নিশ্চিত করেন। মাত্র অষ্টম ব্যক্তি হিসেবে পামুক পেতে যাচ্ছেন তুরস্কের সম্মানজনক এই পুরস্কারটি। এ উপলক্ষে ১৫ সেপ্টেম্বর ইস্তাম্বুলের স্থানীয় একটি হোটেলে জমকালো অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। যেখানে পুরস্কারের পাশাপাশি পামুকের হাতে তুলে দেয়া হবে নগদ পনের হাজার লিরা।

তুরস্কের বিখ্যাত ক্যান পাবলিশিং হাউজ-এর প্রতিষ্ঠাতা এরদাল ওজের নামে ২০০৮ সাল থেকে দেয়া হয় এই পুরস্কার। পামুকের আগে তুরস্কের জনপ্রিয় লেখক কেমিল কাভুককু, কবি কুচুক ইস্কেন্দার, ঔপন্যাসিক ইহসান ওকতায় আনারসহ আরো চার জন ‘এরদাল ওজ’ পুরস্কারে সম্মানিত হয়েছেন। 

‘দ্য ব্ল্যাক বুক’, ‘মাই নেম ইজ রেড’, ওরহান পামুকের বিখ্যাত ও বেস্টসেলার দুটো উপন্যাস। এছাড়া ‘স্নো’, ‘দ্য মিউজিয়াম অব ইনোসেন্স’-এর মতো জনপ্রিয় অনেক বইও লিখেন তিনি। ২০০৬ সালে নোবেল পুরস্কারে সম্মানিত হওয়া ওরহান পামুক বর্তমানে তুরস্কের ইস্তাম্বুল শহরে বসবাস করছেন।

 

 

মুরাকামির প্রায় সব বই কিনে নিল জাপানি বই বিক্রেতা!

 

সেপ্টেম্বরের ১০ তারিখে প্রকাশিত হতে যাচ্ছে বিখ্যাত জাপানি লেখক হারুকি মুরাকামির নতুন বই ‘নোবেলিস্ট অ্যাস অ্যা ভোকেশন’। তবে প্রকাশিত হওয়ার আগেই বইটির ৯০ শতাংশ কপি কিনে নিয়েছেন এক জাপানি বই বিক্রেতা। অনলাইনে কেনাবেচার দোকান ‘আমাজন’কে ঠেকাতেই মূলত এই উদ্যোগ নিয়েছেন তিনি।

বিখ্যাত দৈনিক গার্ডিয়ানের বরাত দিয়ে একটি সূত্র জানায়, জাপানের বেস্টসেলার চার্টে আমাজনের অবস্থান পাঁচ। যে কারণে স্থানীয় ব্যবসায়িক অনলাইনগুলো তেমন একটা সুবিধা করে উঠতে পারছে না তাদের সাথে। তাই এবার আমাজনকে ঠেকাতে অভিনব এক কাজ করে বসল জাপানি বই কোম্পানি কিনোকুনিয়া। মুরাকামির প্রকাশিতব্য বইয়ের ৯০,০০০ হাজার কপি কিনে নিল তারা।

প্রসঙ্গত, হারুকি মুরাকামি জাপানে বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় লেখকদের মধ্যে অন্যতম। তিনি একাধারে একজন ঔপন্যাসিক, গল্পকার, প্রাবন্ধিক ও সায়েন্স ফিকশন লেখক। পরাবাস্তববাদ ও জাদুবাস্তবতা ছাড়াও তিনি সমাজ বাস্তবতাধর্মী বেশকিছু গল্প ও প্রবন্ধ লিখেছেন। ‘নরওয়েজিয়ান উড’, ‘দ্য উইন্ড আপ বার্ড ক্রনিকল’, ‘কাফকা অন দ্য শোর’ মুরাকামির বিখ্যাত রচনাগুলোর মধ্যে অন্যতম।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং
ফজর৪:২৪
যোহর১১:৫৮
আসর৪:২৭
মাগরিব৬:১৭
এশা৭:৩১
সূর্যোদয় - ৫:৪১সূর্যাস্ত - ০৬:১২
পড়ুন