নোটিস
১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭ ইং
নোটিস
কে-ক্র্যাফট

একুশে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে কে-ক্র্যাফট পোশাকের বিশেষ আয়োজন করেছে। এসব পোশাকের অবয়ব অলংকরণে নানাভাবে বর্ণমালাকে মোটিফ হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে।

বর্ণ ও শব্দমালার বিন্যাসে আমাদের ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ এবং অন্যান্য গর্বের বিষয়সমূহ ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। রঙের ক্ষেত্রে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে ‘শোক’-এর কালো, সূর্যের লাল, বিষণ্নতার ধূসর, সত্য ও পবিত্রতার প্রতীক সাদার সমতলে। একুশের এই সংগ্রহে থাকছে নতুন নতুন ডিজাইনের শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, কটি, টপস, স্কার্ট, শার্ট, পাঞ্জাবি, টি-শার্ট, বাচ্চাদের পোশাকসহ নানা উপহারসামগ্রী।

 

ঢাকা রিজেন্সিতে ভালোবাসা দিবসের বিশেষ আয়োজন

 

বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। উপলক্ষে ঢাকা রিজেন্সির রুফটপ গার্ডেন রেস্টুরেন্ট গ্রিল অন দ্য স্কাই লাইনে চলবে আজ নানা আয়োজন। মজার মজার খাবারের আয়োজন তো আছেই, এছাড়া যারা অতিথি হিসেবে আসবেন তাদের জন্য থাকবে উপহার এবং এই বিশেষ মুহূর্তকে ফ্রেমে আটকে রাখতে ছবি তোলার ব্যবস্থা। বাড়তি আয়োজন হিসেবে আছে সন্ধ্যা ৬টা ৩০ থেকে রাত ১০টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত লাইভ মিউজিক আর এ অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করবেন এই সময়ের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পীরা।

 

ফেসবুক শপে বেচাকেনা হোক ঝামেলামুক্ত

 

স্মার্টফোনের সাহায্যে রাজ্যের সবকিছু এখন হাতের মুঠোয়! ফেসবুকে গড়ে উঠেছে হাজারো পণ্যর হাজারো শপ। সহজেই যে কেউ কেনাকাটা করা থেকে ইচ্ছেমতো পণ্য বিক্রিও করতে পারছেন। ফেসবুক ব্যবসায়ে প্রচুর লাভ থাকলেও বিক্রেতাদের পোহাতে হয় নানা ধরনের সমস্যা। ঠিকভাবে অর্ডার নেওয়া, সেগুলো সময়মতো ক্রেতার কাছে পৌঁছে দেওয়া এবং সারাক্ষণ শপের নজরদারি করা ইত্যাদি। অনেকে হয়তো এসব ঝামেলা ও চিন্তার কারণে নিজের আকর্ষণীয় পণ্যগুলো বিক্রি করতে পারছেন না বা আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন। এসব সমস্যার সমাধান নিয়ে এসেছে একটি অ্যাপ, যার নাম শপআপ (ShopUp)। শপ ম্যানেজমেন্ট থেকে ডেলিভারি পর্যন্ত সবকিছু নিয়েই সাহায্য করে এই অ্যাপ। অ্যাপের সাহায্যে যে কোনো ফেসবুক পেজ থেকে, যেকোনো পণ্য খুব সহজেই অর্ডার করা সম্ভব। ক্রেতারা ছবির লিংক ক্লিক করলেই অর্ডার প্লেস হয়ে যায়, আর সেই অর্ডার সঙ্গে সঙ্গে বিক্রেতা দেখতে পায় তার মুঠোফোনে। মাস শেষে শপআপ বিক্রেতা কে জানিয়ে দেয় কত টাকা বিক্রি হলো এবং কোন ক্রেতা কী কিনল। ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে যাত্রা শুরু করে শপআপ।

 

রঙ বাংলাদেশ

ফ্যাশন হাউস রঙ বাংলাদেশ এবার ভাষার মাসে নতুন সংগ্রহে সাজিয়েছে তাদের আউটলেটগুলো। সাদা আর কালোর সঙ্গে এ বছরের একুশে সংগ্রহে আরও যোগ করা হয়েছে অ্যাশ আর অফ হোয়াইট। মেয়েদের জন্য তৈরি করা হয়েছে সুতি ও হাফ সিল্কের শাড়ি, থ্রি-পিস, সিঙ্গেল কামিজ, লং-স্কার্ট ও টপস। অন্যদিকে ছেলেদের জন্য রয়েছে পাঞ্জাবি, শার্ট, আর টি-শার্ট। এছাড়া ফ্রক, স্কার্ট-টপস, পাঞ্জাবি, শার্ট ও টি-শার্ট করা হয়েছে বাচ্চাদের জন্য। এই ম্যাধমগুলোতে ভ্যালু এডিশনের পর প্রতিটি পোশাকের ডিজাইনকে মাত্রা দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে নানা অনুষঙ্গের সন্নিবেশে।

 

বিশ্বরঙ

ফ্যাশন হাউস বিশ্বরঙ বিশেষ আয়োজন করেছে একুশে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে। তাদের পোশাকসহ অন্যান্য পণ্যে এনেছে ‘বিশ্ব মাতৃভাষা দিবস’-এর অনুপ্রেরণায় বিশেষ ডিজাইন। বর্ণমালা মোটিফ তৈরি করে সাজানো হয়েছে সালোয়ার-কামিজ, শাড়ি, পাঞ্জাবি, শার্ট, টি-শার্ট, বাচ্চাদের পোশাক, মগ ইত্যাদি। এসব ডিজাইন ছাড়াও আরও বিভিন্ন ডিজাইনের পোশাক ও পোশাকের অনুষঙ্গ ক্রেতারা পাবেন বিশ্বরঙ-এর সকল শোরুমে।

 

‘সুদিনের পথে ফ্যাশন মডেলিং’ অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠিত

 

জমকালো অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে ‘জেন্টেল পার্ক’ নিবেদিত ‘সুদিনের পথে ফ্যাশন মডেলিং’ অনুষ্ঠান। বস্ত্র মন্ত্রণালয়ের অধীনেই নেওয়া হবে ফ্যাশন মডেলিং সেক্টর আর সেখানেই প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম। দৈনিক দিনের শেষের আয়োজনে এবং ভোরের কাগজের সহযোগিতায় সম্প্রতি শাহবাগস্থ জাতীয় জাদুঘরের প্রধান হলে অনুষ্ঠিত ‘জেন্টেল পার্ক’ নিবেদিত ‘সুদিনের পথে ফ্যাশন মডেলিং’ শীর্ষক আলোচনা সভা ও গুণীজন সম্মাননা। এ সময় ফ্যাশন জগতে বিশেষ অবদান রাখার জন্য ১৪ জনকে দেওয়া হয় বিশেষ সম্মাননা। অনুষ্ঠানটির সভাপতিত্ব করেন ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত। সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন শান ক্রিয়েশন’সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং ‘দিনের শেষে’র বিনোদন ও ফ্যাশন সম্পাদক একে আজাদ সানি। সম্মাননা পেয়েছেন বিবি রাসেল (ফ্যাশন ডিজাইনার), সানজিদা হক আরেফিন লুনা (ফ্যাশন কোরিওগ্রাফার), পল ডেভিড বারিকদার (ফ্যাশন ফটোগ্রাফার), বুলবুল টুম্পা (ফ্যাশন মডেল), আসিফ খান (ফ্যাশন মডেল), লিনা খান (ফ্যাশন স্টাইলিং), কৃষাণ ভূইয়া (ফ্যাশন স্টাইলিং), কানিজ আলমাস (বিউটি এক্সপার্ট), শান্তনা রহমান (বিউটি এক্সপার্ট), সানাউল হক বাবুল (ফ্যাশন সিআইপি), অঞ্জন’স (ফ্যাশন হাউস), মোহাম্মদ আব্দুর রউফ  (লাইফস্টাইল রিটেইল এক্সপার্ট), তৌফিক অপু (ফ্যাশন সাংবাদিক), শাহাদাত চৌধুরী বাবু (তরুণ ফ্যাশন উদ্যোক্তা)।

 

এড্রয়েট

একুশের চেতনাকে ধারণ করে এড্রয়েট তাদের শোরুমগুলো সাজিয়েছে দিবসটির উপযোগী পোশাক দিয়ে। বড়দের পাশাপাশি ছোটদের পোশাকেও নিয়ে আসা হয়েছে একুশের বিভিন্ন চিত্র। যাতে করে শিশুরাও এখন থেকেই একুশ সম্পর্কে জানতে পারে। শাড়ি, পাঞ্জাবি, সালোয়ার-কামিজ, ফতুয়া, টি-শার্ট, শার্ট প্রভৃতি পোশাকে বিভিন্ন একুশের মোটিফ ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। এবারের ডিজাইনের প্রধান বৈশিষ্ট্য হলো বাংলা সাহিত্যের উদ্ধৃতি। আবার অক্ষর বিন্যাসে তৈরি করা হয়েছে চেক বা স্ট্রাইপ। পাশাপাশি বিভিন্ন মাধ্যমেও ব্যবহার করা হয়েছে ‘একুশ’ শব্দটি।

 

 

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২১ ইং
ফজর৫:১৬
যোহর১২:১৩
আসর৪:১৭
মাগরিব৫:৫৭
এশা৭:১০
সূর্যোদয় - ৬:৩২সূর্যাস্ত - ০৫:৫২
পড়ুন