ছেলেধরা সাজিয়ে হত্যা
অজ্ঞাত তিন হাজার জনের বিরুদ্ধে মামলা সাথিয়ায় আতঙ্ক
অজ্ঞাত তিন হাজার জনের বিরুদ্ধে মামলা সাথিয়ায় আতঙ্ক
পাবনার সাঁথিয়ায় অপহরণের নাটক সাজিয়ে করমজা চতুর হাটে তিনজনকে পিটিয়ে হত্যা মামলায় অজ্ঞাত তিন হাজার জনকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার দুইদিন পার হলেও পুলিশ এ হত্যার কোন ক্লু উদ্ধার করতে পারেনি। থানায় মামলার পর থেকেই এলাকায় সাধারণ মানুষের মধ্যে গ্রেফতার আতংক বিরাজ করছে।

এ ব্যাপারে পুলিশ নিহতদের আত্মীয়-স্বজন ও বিভিন্ন সূত্রে আরও কিছু তথ্য পায়। নিহতদের পকেটে থাকা চিকিত্সাপত্র ও মোবাইল সিম থেকে তিনজনের পরিচয় পায় পুলিশ। পাবনা মর্গে ময়না তদন্তশেষে গতকাল বুধবার নিহত আলাউদ্দিন (নাটোর) আবু বক্কার (পাবনা) ও আসলামের (দিনাজপুর) লাশ তাদের স্বজনেরা গ্রহণ করেন। এ ব্যাপারে সাঁথিয়া থানায় আলাউদ্দিনের ছোট ভাই রানা শেখ বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। নিহত বক্কারের স্ত্রী বছিরন (৪০) ও আসলামের ছেলে দিনাজপুর সরকারি কলেজের অনার্সের ছাত্র আফজাল (২২) জানায়, নিহত তিনজন পরস্পর আত্মীয় এবং গরু ও পিঁয়াজের ব্যবসার সাথে জড়িত। পূর্বশত্রুতার জের ধরে পরিকল্পিতভাবে এই হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়ে থাকতে পারে বলে তাদের ধারণা। মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে নাটোর সদর উপজেলার ৪নং লক্ষ্মীপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম জানান, নিহত আলাউদ্দিন একজন ব্যবসায়ী এবং সাবেক ইউপি মেম্বর। ঘটনার সময় সাঁথিয়া থানার এসআই রফিকুল ইসলাম উপস্থিত হলেও জনতার    রোষানলে তাদেরকে উদ্ধার করতে পারেননি। জনতার ভিড়ে তাকে পিছু হটতে হয় বলে তিনি জানান। করমজা চতুর হাট এলাকায় সরেজমিন তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, গরু ব্যবসার সাথে জড়িত করমজা হাট এলাকার একটি সিন্ডিকেট আর্থিক লেনদেনের দ্বন্দ্বের জেরে ছেলে ধরা নাটক সাজিয়ে পরিকল্পিতভাবে এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে থাকতে পারে। তদন্তকারী কর্মকর্তা ওসি (তদন্ত) এসএম আবুল কাশেম আজাদ জানান, আতংক ছড়িয়ে এদের হত্যা করা হলেও এর পিছনে অন্যকোন কারণ থাকতে পারে। এরা অপরাধ জগতের সাথে জড়িত কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৭ আগষ্ট, ২০১৯ ইং
ফজর৪:২০
যোহর১২:০১
আসর৪:৩৩
মাগরিব৬:২৫
এশা৭:৪০
সূর্যোদয় - ৫:৩৮সূর্যাস্ত - ০৬:২০
পড়ুন