অবিলম্বে ফুলবাড়ী চুক্তি বাস্তবায়ন দাবি
ফুলবাড়ী ট্র্যাজেডি দিবস পালিত
ইত্তেফাক রিপোর্ট২৭ আগষ্ট, ২০১৫ ইং
অবিলম্বে ফুলবাড়ী চুক্তি বাস্তবায়ন দাবি
অবিলম্বে ফুলবাড়ী চুক্তি বাস্তবায়নের দাবি জানিয়েছে তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুত্ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি। গতকাল বুধবার রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুলবাড়ী দিবস উপলক্ষে আয়োজিত সমাবেশে এ দাবি জানানো হয়।

সমাবেশে সংগঠনের জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক প্রকৌশলী শেখ মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ বলেন, ফুলবাড়ী চুক্তির এক নম্বর দাবি ছিল এশিয়া এনার্জিকে বিতাড়িত করা হবে এবং দেশের কোথাও উন্মুক্ত পদ্ধতিতে কয়লা উত্তোলন করা হবে না। এই দফা বাস্তবায়ন করা হয়নি। বরং এশিয়া এনার্জি নাম পরিবর্তন করে অন্য নামে ফুলবাড়ীর খনির ইজারা দেখিয়ে লন্ডনের   শেয়ার বাজারে ব্যবসা করছে। আর ওই শেয়ার ব্যবসার একাংশ বাংলাদেশের কয়েকজন মন্ত্রীসহ প্রভাবশালীদের পেছনে ব্যয় করছে।

সিপিবির নেতা রুহিন হোসেন প্রিন্স বলেন, ২০০৬ সালে ফুলবাড়ী আন্দোলনের পর ৪ সেপ্টেম্বর তত্কালীন বিরোধী দলের নেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিনাজপুরে সভা করেন। তখন তিনি ফুলবাড়ী চুক্তির প্রতি পূর্ণ সংহতি জানিয়ে ক্ষমতায় গেলে চুক্তি বাস্তবায়নের অঙ্গীকার করেন। কিন্তু তিনি কথা রাখেননি। বরং তার আমলা ও মন্ত্রীরা প্রায়ই উন্মুক্ত খনির পক্ষে সাফাই গায়।

বাসদ নেতা খালেকুজ্জামান বলেন, ফুলবাড়ী চুক্তি বাস্তবায়নের কোনো উদ্যোগ এখনও দেখা যাচ্ছে না। চুক্তি অনুযায়ী হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িতদের বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করানো হয়নি। জাতীয় সম্পদ লুটপাটের জন্যই ঐ চুক্তি এখনও বাস্তবায়িত হচ্ছে না বলে তিনি অভিযোগ করেন।

সমাবেশে ফুলবাড়ী আন্দোলনে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জাতীয় কমিটির সংগঠক নূর মোহাম্মদ, প্রকৌশলী বিডি রহমত উল্লাহ, অধ্যাপক এম এম আকাশ, ড. শামসুল আলম, প্রকৌশলী ম. ইনামুল হক, সাইফুল হক, বজলুর রশীদ ফিরোজ।

ঢাবিতে অস্থায়ী শহীদ বেদী নির্মাণ

এদিকে, গতকাল সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডাকসু ভবনের সামনে ফুলবাড়ী আন্দোলনে শহীদদের স্মৃতির উদ্দেশে অস্থায়ী শহীদ বেদী নির্মাণ করেছে বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন। শহীদ বেদীতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে ছাত্র ফেডারেশনের কেন্দ্রীয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও ঢাকা মহানগর শাখা, গণসংহতি আন্দোলন, প্রতিবেশ আন্দোলন, নারী সংহতি, বাংলাদেশ বহুমুখী শ্রমজীবী ও হকার সমিতি, বাংলাদেশ গার্মেন্টস শ্রমিক সংহতি, বাংলাদেশ গারো ছাত্র সংগঠন (বাগাছাস), চানচিয়া, সমগীত সংস্কৃতি প্রাঙ্গণ, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট (মার্কসবাদী), বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রী, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট, বিপ্লবী ছাত্র ঐক্য ফোরামসহ বিভিন্ন সংগঠন।

ফুলবাড়ী  (দিনাজপুর) সংবাদদাতা জানান,

তেল-গ্যাস-বিদ্যুত্-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি, সম্মিলিত পেশাজীবী সংগঠনসহ বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগে গতকাল ফুলবাড়ী ট্র্যাজেডির নবম বার্ষিকী পালন করা হয়েছে। সকালে তেল-গ্যাস জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদের নেতৃত্বে পৌর শহরে শোক শোভাযাত্রা বের করা হয়। পরে শহীদ বেদীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণশেষে স্থানীয় নিমতলা মোড়ে ফুলবাড়ি শাখা তেল গ্যাস জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক সৈয়দ সাইফুল ইসলাম জুয়েলের সভাপতিত্বে কয়লাখনি বিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। 

উল্লেখ্য, ২০০৬ সালে দিনাজপুরের ফুলবাড়ীসহ ওই অঞ্চলের লক্ষাধিক মানুষ উচ্ছেদ, আবাদী জমি, পানি, পরিবেশ ধ্বংস করে মাত্র ৬ শতাংশ রাজস্বের বিনিময়ে অনভিজ্ঞ এশিয়া এনার্জিকে পুরো খনির মালিকানা ও কয়লা বিদেশে রপ্তানির সুযোগ দেয় তত্কালীন বিএনপি জোট সরকার। এর বিরুদ্ধে স্থানীয় মানুষসহ দেশবাসী আন্দোলন গড়ে তোলে। এর ধারাবাহিকতায় ২০০৬ সালের ২৬ আগস্ট সমাবেশে বিনা উস্কানিতে গুলি করে তিনজনকে হত্যা ও শতাধিক মানুষকে আহত করে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। পরে তীব্র আন্দোলনের মুখে ৩০ আগস্ট তত্কালীন সরকার বিক্ষুব্ধ জনতার সঙ্গে চুক্তি করতে বাধ্য হয়।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৭ আগষ্ট, ২০১৯ ইং
ফজর৪:২০
যোহর১২:০১
আসর৪:৩৩
মাগরিব৬:২৫
এশা৭:৪০
সূর্যোদয় - ৫:৩৮সূর্যাস্ত - ০৬:২০
পড়ুন