জাপানে প্রতিবন্ধী কেন্দ্রে হামলায় নিহত ১৯
ইত্তেফাক ডেস্ক২৭ জুলাই, ২০১৬ ইং
জাপানের সাগামিহারা শহরে প্রতিবন্ধীদের একটি আবাসিক সেবাকেন্দ্রে এক হামলাকারী ছুরিকাঘাত করে অন্তত ১৯ জনকে হত্যা করেছে। হামলায় আরো অন্তত ২৬ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে ২০ জনের অবস্থা গুরুতর। হামলাকারী পরে থানায় আত্মসমর্পণ করে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এই প্রথম এত বড় ধরনের হামলার শিকার হলো জাপান। খবর বিবিসি ও রয়টার্সের।

টোকিও থেকে প্রায় ৪০ কিলোমিটার পশ্চিমে অবস্থিত সাগামিহারা শহরে স্থানীয় সময় গতকাল মঙ্গলবার খুব ভোরে ওই হামলার ঘটনা ঘটে। পুলিশ জানিয়েছে, রাত ২.৩০টার দিকে ওই সেন্টারেরই এক কর্মী থানায় ফোন করে জানান, সেখানে মারাত্মক ভয়াবহ ঘটনা ঘটছে। এর ঘণ্টা দুয়েক পরই এক ব্যক্তি থানায় গিয়ে আত্মসমর্পণ করে। তার গাড়িতেই রাখা ছিল একটি রক্তাক্ত ছুরি। পুলিশ সঙ্গে সঙ্গে ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে। ওই ব্যক্তি থানায় গিয়ে বলে যে, সে ওই হামলা চালিয়েছে এবং সে চেয়েছে প্রতিবন্ধী মানুষদের  নিশ্চিহ্ন করে দিতে। গ্রেফতারকৃত যুবকের বয়স ২৬ বলে জানা গেছে এবং সে তসুকুই ইয়ামাইয়ুরি গার্ডেন ফ্যাসিলিটি নামের ওই সেবাকেন্দ্রের সাবেক একজন কর্মী। হামলার সময় আবাসিক ওই কেন্দ্রে প্রায় দেড়শ বাসিন্দা এবং আটজন কর্মী ছিল। প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, রাত ২টা ১০ মিনিটের দিকে জানলার কাচ ভেঙে হোমে ঢোকে আততায়ী। জাপানি সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে,  হামলাকারীকে ওই হোম থেকে বের করে দেওয়া হয়েছিল বলে সে মানসিকভাবে হতাশ ছিল। তবে সরকারের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে এখনও কিছু জানানো হয়নি। নিহতের সংখ্যার দিক থেকে এটি সাম্প্রতিক সময়ে জাপানে ছুরি চালিয়ে হত্যাকাণ্ডের সবচেয়ে বড় ঘটনা। এর আগে ২০০৮ সালে টোকিওর এক জনাকীর্ণ বাজার এলাকায় একজন হামলাকারী ট্রাক চালিয়ে ঢুকে পড়ে এবং নির্বিচারে ছুরিকাঘাত করতে থাকে। ওই ঘটনায় সাতজন নিহত হয়েছিল। ২০০১ সালে ওসাকা প্রাইমারি স্কুলে মানসিক অসুস্থতার ইতিহাস আছে এমন এক হামলাকারীর ছুরিকাঘাতে ৮টি শিশু নিহত হয়। ২০০৮ এবং ২০০১ সালের দুটি হামলাই হয়েছিল একই তারিখে।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৭ জুলাই, ২০২১ ইং
ফজর৪:০২
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৪৭
এশা৮:০৮
সূর্যোদয় - ৫:২৫সূর্যাস্ত - ০৬:৪২
পড়ুন