তথ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে রিট আবেদন
ইত্তেফাক রিপোর্ট২৭ জুলাই, ২০১৬ ইং
টেস্ট রিলিফ (টিআর) ও কাজের বিনিময়ে খাদ্য (কাবিখা) বরাদ্দের ৮০ ভাগই চুরি হয়—তথ্যমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়েছে। কমিশন গঠন করে ওই ‘চুরির’ তদন্তের আবেদন জানানো হয়। এছাড়া এমপিদের বাদ দিয়ে স্থানীয় সরকারের জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে এই টিআর ও কাবিখা বন্টনের ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে। চলতি সপ্তাহে বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক ও বিচারপতি জেএন দেবের ডিভিশন বেঞ্চে এ আবেদনের ওপর শুনানি হতে পারে।

গত রবিবার রাজধানীতে গ্লোবাল সিটিজেনস ফোরাম অন সাসটেইনেবল ডেভলপমেন্টসামিট ২০১৬ শীর্ষক সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছিলেন, টিআর ও কাবিখা বরাদ্দের ৮০ শতাংশই চুরি হয়। ৩০০ কোটি টাকা বরাদ্দ হলে এর অর্ধেক যায় এমপিদের পকেটে। বাকি ১৫০ কোটি টাকার সিংহভাগ যায় ইউনিয়র পরিষদের চেয়ারম্যান-মেম্বারদের পকেটে। এ দুর্নীতিকে আমরা চোখ বন্ধ করে প্রশ্রয় দিয়ে যাচ্ছি। এই বক্তব্যের তীব্র প্রতিক্রিয়া হয় সরকারের মধ্যে। সংসদ সদস্যদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে তথ্যমন্ত্রী সংসদে দাড়িয়ে দুঃখ প্রকাশ এবং পরে ক্ষমা চান। কাবিখা ও টিআর প্রকল্পের দুর্নীতির বিচার বিভাগীয় কমিশনের মাধ্যমে তদন্ত চেয়ে রিট করেন আইনজীবী ইউনূস আলী আকন্দ।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৭ জুলাই, ২০২১ ইং
ফজর৪:০২
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৪৭
এশা৮:০৮
সূর্যোদয় - ৫:২৫সূর্যাস্ত - ০৬:৪২
পড়ুন