শ্রাবণ সন্ধ্যায় রবীন্দ্রনাথের বর্ষার গান
১০ আগষ্ট, ২০১৭ ইং
সন্তোষ গুপ্তের জীবনীগ্রন্থ প্রকাশ

ইত্তেফাক রিপোর্ট

বর্ষা ছিল রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রিয় ঋতু। বর্ষা পেরিয়ে শরত্ আসতে আর কদিন বাকি। শ্রাবণের শেষ প্রান্তে মেঘলা সন্ধ্যায় গতকাল শ্রোতারা মুগ্ধ হয়েছেন রবীন্দ্রনাথের বর্ষার গানে।

জাতীয় জাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় বসেছিল রবীন্দ্রনাথের বর্ষার গানের এই আসর। ঢাকাস্থ ইন্দিরা গান্ধী সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের আয়োজনে অনুষ্ঠানে একক সঙ্গীত পরিবেশন করেন লাইসা আহমদ লিসা।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই ইন্দিরা গান্ধী সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের পরিচালক জয়শ্রী ক্লু শিল্পী লাইসা আহমদ লিসাকে শ্রোতাদের সাথে পরিচয় করিয়ে দেন।

লাইসা আহমদ লিসা বলেন, আজ রবীন্দ্রনাথের বর্ষার গানগুলোই মূলত গাইছি। এছাড়াও থাকছে বর্ষার গানের সাথে সংশ্লিষ্ট কিছু প্রেমের গান। অনুষ্ঠানের প্রথম পরিবেশনা ছিল ‘বাদল দিনের প্রথম কদম ফুল’। একে একে লাইসা আহমদ লিসা শোনান ‘আজ যেমন করে গাইছে আকাশ’, ‘আজি তোমায় আবার চাই শোনাবারে’, ‘স্বপ্নে আমার মনে হল’,  ‘আমারে যদি জাগালে আজি নাথ’, ‘মন মোর মেঘের সঙ্গী’, ‘যে রাতে মোর দুয়ারগুলি’, ‘অশ্রুভরা বেদনা’, ‘মনে কী দ্বিধা’, ‘আমি তখন ছিলেম মগন’, ‘আমি এলাম তারি দ্বারে’, ‘দীপ নিভে গেছে মম’, ‘চিনিলে না আমারে কী’ এবং ‘আজি ঝড়ের রাতে’। যন্ত্রানুষঙ্গে তবলায় ছিলেন এনামুল হক ওমর, কিবোর্ডে রবিন্স চৌধুরী, এস্রাজে অসিত বিশ্বাস ও মন্দিরায় নাজমুল আলম।

সন্তোষ গুপ্তের জীবনীগ্রন্থ প্রকাশ

বাংলাদেশে সংবাদপত্র জগতের উজ্জ্বল নক্ষত্র ছিলেন সন্তোষ গুপ্ত। বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতায় তার পদযাত্রা ছিল মেধা ও দক্ষতাপূর্ণ। সাংবাদিকতার পাশাপাশি শিল্প-সাহিত্যের বিভিন্ন অঙ্গনে অবাদ বিচরণ ছিল সন্তোষ গুপ্তের। তার মতো উদার ও মহত্ মানুষ আমাদের সমাজে বিরল। তার স্বপ্ন ও দর্শন যদি বাস্তবায়ন হয় তাহলে তার আত্মা শান্তি পাবে। সন্তোষ গুপ্তের প্রয়াণ দিবসে গতকাল বাংলা একাডেমি আয়োজিত স্মরণসভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।

বাংলা একাডেমির কবি শামসুর রাহমান সেমিনার কক্ষে জীবনীগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন ও স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে সন্তোষ গুপ্ত স্মৃতি পরিষদ। বাংলা একাডেমি থেকে প্রকাশিত ‘সন্তোষ গুপ্ত জীবনীগ্রন্থ’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করা হয়। বইটি সম্পাদনা করেছেন বাংলা একাডেমির সাবেক মহাপরিচালক সৈয়দ মোহাম্মদ শাহেদ।

সন্তোষ গুপ্তের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করেন প্রবীণ সাংবাদিক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব কামাল লোহানী ও সাংবাদিক সোহরাব হাসান। বক্তব্য রাখেন বইটির লেখক সৈয়দ মোহাম্মদ শাহেদ। সভাপতিত্ব করেন পরিষদের আহ্বায়ক মোনায়েম সরকার। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন কাজী মদিনা। এর আগে ‘আছে দুঃখ আছে মৃত্যু—বিরহ দহন লাগে’ ও ‘জীবনে মরণে সীমানা ছাড়াইয়া’ গান দুইটি পরিবেশন করেন রোকেয়া হাসিনা নেলি।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন ‘অনিরুদ্ধের কলাম’ এর মধ্য দিয়ে সন্তোষ গুপ্ত পাঠক মহলে নিজের জায়গাটা করে নিয়েছিলেন পাকাপোক্তভাবে। তার রাজনৈতিক ভাষ্য অনেক রাজনৈতিক নেতার জন্যই ছিল দিক-নির্দেশনামূলক।

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১০ আগষ্ট, ২০২০ ইং
ফজর৪:১১
যোহর১২:০৪
আসর৪:৪০
মাগরিব৬:৩৯
এশা৭:৫৭
সূর্যোদয় - ৫:৩২সূর্যাস্ত - ০৬:৩৪
পড়ুন