রোজিনাও চলে গেলেন
বাবার আকুতি, আর কারো ভাগ্য যেন এমন না হয়
বিশেষ প্রতিনিধি৩০ এপ্রিল, ২০১৮ ইং
ঢাকায় দুই বাসের বেপরোয়া প্রতিযোগিতার কারণে হাত হারিয়ে কলেজ ছাত্র রাজীবের মৃত্যুর পর সপ্তাহ না যেতেই বাসের চাপায় পা হারানো রোজিনা আক্তারও চলে গেলেন পরপারে। টানা ৯ দিন হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে মৃত্যুযন্ত্রণায় ছটফট করেছেন গৃহকর্মী রোজিনা। সরকারি পঙ্গু হাসপাতাল, ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিট ও আইসিইউয়ের চিকিত্সকরা তাকে বাঁচিয়ে রাখতে আপ্রাণ চেষ্টা চালালেও সব প্রচেষ্টাকে ব্যর্থ করে গতকাল রবিবার  সকালে ঢামেকের আইসিইউতে চিকিত্সাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

ঢামেক পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (এসআই) বাচ্চু মিয়া জানান, রোজিনা আক্তার ঢামেক হাসপাতালের ১নং আইসিইউতে চিকিত্সাধীন ছিলেন। সকাল ৭টা ২০ মিনিটে তিনি মারা যান। সকাল ১১টার দিকে স্বজনরা বিনা ময়না তদন্তে লাশ গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যান।

ঢামেক হাসপাতালের অ্যানেসথেসিয়া বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. মোজাফফর হোসেন মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে বলেন, পা হারানো রোজিনা একিউট রেসপিরেটরি ডিস্ট্রেস সিনড্রোম (এআরডিএস) বা ফুসফুসের প্রদাহজনিত গুরুতর সংক্রমণে আক্রান্ত হন। ক্র্যাশ ইনজুরির (হাড় থেতলে বা চুরমার হয়ে যাওয়া) ফলে প্রথমে তার ফুসফুসে ইনফেকশন হয়। পরবর্তীতে তা সারা দেহে ছড়িয়ে পড়ে। এর ধকল সইতে পারেনি মেয়েটি।

তিনি বলেন, এর আগে ক্র্যাশ ইনজুরিতে আক্রান্ত হয়ে তিতুমীর কলেজের ছাত্র রাজীবের মৃত্যু হয়। দুই বাসের চাপায় হাত বিচ্ছিন্ন হলেও এটা তার মৃত্যুর কারণ ছিল না। মাথায় প্রচণ্ড আঘাত পাওয়ায় ক্র্যাশ  ইনজুরির ফলে রাজীবের মৃত্যু হয়।

রোজিনার দুর্ঘটনার পর থেকেই তার বাবাসহ স্বজনেরা হাসপাতালে ছিলেন। মেয়ের জীবন নিয়ে তারা প্রতিনিয়ত কাটিয়েছেন শঙ্কায়। কামনা করেছেন, মেয়ে যেন সুস্থভাবে তাদের কাছে ফিরে আসেন। তবে তাদের সেই চাওয়া পূর্ণ হলো না। রোজিনার বাবা ময়মনসিংহের ধোবাউড়ার রসুল মিয়া পরের জমি চাষ করেন। গতকাল ঢামেক হাসপাতাল মর্গে বাবা রসুল মিয়া উপস্থিত সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেছেন, আর কারও ভাগ্য যেন এমন না হয়। তবে তিনি তার মেয়ের মৃত্যুর জন্য যারা দায়ী, তাদের কাছে ক্ষতিপূরণ দাবি করেছেন।

রোজিনা আক্তার গত দশ বছর ধরে ঢাকায় সাংবাদিক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজার বাসায় গৃহকর্মী ছিলেন। ইশতিয়াক রেজার ভাষায়, রোজিনা তার পরিবারেরই একজন হয়ে উঠেছিলেন। এ ঘটনায় গাজী টেলিভিশনের নিজস্ব প্রতিবেদক মহিউদ্দিন আহমেদ রাজধানীর বনানী থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

উল্লেখ্য, গত ২০ এপ্রিল আত্মীয়ের বাসায় বেড়ানো শেষে ফেরার পথে রাত ৮টার দিকে রাজধানীর বনানীর চেয়ারম্যান বাড়ির সামনে বিআরটিসির বাস তাকে ধাক্কা দেয়। রোজিনা পড়ে গেলে বাসটি তার ডান পায়ের উপর দিয়ে চলে যায়। এর আগে গত ৩ এপ্রিল কাওরান বাজার মোড়ে বিআরটিসি ও স্বজন পরিবহনের দুই বাসের প্রতিযোগিতার মধ্যে এক হাত হারান সরকারি তিতুমীর কলেজের ছাত্র রাজীব হোসেন। পরে চিকিত্সাধীন অবস্থায় ১৬ এপ্রিল  তিনিও মারা যান।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৩০ এপ্রিল, ২০২১ ইং
ফজর৪:০৪
যোহর১১:৫৬
আসর৪:৩২
মাগরিব৬:২৯
এশা৭:৪৭
সূর্যোদয় - ৫:২৫সূর্যাস্ত - ০৬:২৪
পড়ুন